ধারে ইন্টারে যোগ দিলেন ইউনাইটেডে ‘ফ্লপ’ সানচেজ

আর্সেনাল থেকে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যখন যোগ দিয়েছিলেন অ্যালেক্সিস সানচেজ, তখন ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে তিনি ছিলেন ‘হটকেক’। তাকে পেতে মরিয়া ছিল আরও কয়েকটি নামিদামি ক্লাব। কিন্তু ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে সময়টা একদমই ভালো কাটেনি চিলির এই ফরোয়ার্ডের।
alexis sanchez
অ্যালেক্সিস সানচেজ। ছবি: এএফপি

আর্সেনাল থেকে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যখন যোগ দিয়েছিলেন অ্যালেক্সিস সানচেজ, তখন ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে তিনি ছিলেন ‘হটকেক’। তাকে পেতে মরিয়া ছিল আরও কয়েকটি নামিদামি ক্লাব। কিন্তু ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে সময়টা একদমই ভালো কাটেনি চিলির এই ফরোয়ার্ডের।

ইউনাইটেডের জার্সিতে দেড়টি বছর সানচেজ কাটিয়েছেন দুঃস্বপ্নের মতো। দুঃসহ এই অভিজ্ঞতাকে পেছনে ফেলে ক্যারিয়ারকে তিনি পুরনো পথে ফেরাতে পারবেন কি-না তা বলে দেবে সময়। তবে ঘুরে দাঁড়ানোর একটি সুযোগ পাচ্ছেন ‘ফ্লপ’ সানচেজ। ইউনাইটেড ছেড়ে ধারে তিনি যোগ দিয়েছেন ইতালির অন্যতম সফল দল ইন্টার মিলানে।

বৃহস্পতিবার (২৯ অগাস্ট) নিশ্চিত হয়েছে সানচেজের দলবদলের কার্যক্রম। এক মৌসুমের জন্য ধারে তিনি নাম লিখিয়েছেন ইন্টারে। আগামী ২০২০ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত ইতালিয়ান ক্লাবটিতে খেলবেন তিনি।

সানচেজকে দলে টানার পর এক বিবৃতিতে ইন্টারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ‘পুরো নেরাজ্জুরি (ইন্টারের ডাক নাম) পরিবারের পক্ষ থেকে আমরা তাকে সাদরে অভ্যর্থনা জানাচ্ছি এবং তাকে শুভকামনা জানাচ্ছি।’

২০১৮ সালের জানুয়ারিতে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যাওয়ার পর সেখানে ১৯ মাস ছিলেন সানচেজ। তবে মাঠে সেরাটা দিতে পারেননি, নিজের ছায়া হয়েই ছিলেন। রেড ডেভিলদের হয়ে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ৪৫ ম্যাচ খেলে গোল করেছেন মাত্র পাঁচটি।

গেল ২০১৮-১৯ মৌসুমে কেবল দুটি গোল এসেছিল সানচেজের পা থেকে। এর মধ্যে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে লক্ষ্যভেদ করতে পেরেছিলেন মোটে একবার। বাজে পারফরম্যান্সের কারণে দলে একরকম ব্রাত্যই হয়ে পড়েছিলেন ৩০ বছর বয়সী এই ফুটবলার।

আন্তোনিয়ো কন্তের দলে সঙ্গী হিসেবে সানচেজ পাচ্ছেন সাবেক ইউনাইটেড সতীর্থ রোমেলু লুকাকুকে। কদিন আগে বেলজিয়ান এই ফরোয়ার্ডকে সাত কোটি ৪০ লাখ পাউন্ডের বিনিময়ে দলে ভিড়িয়েছে ইন্টার।

Comments

The Daily Star  | English

Record job vacancies hurt govt services

More than a quarter of the 19 lakh posts in the civil administration are now vacant mainly due to the authorities’ reluctance to initiate the recruitment process.

8h ago