বিশ্বকাপে উঠতে ব্যর্থ ইতালি ইউরোর মূল পর্বে

সবশেষ রাশিয়া বিশ্বকাপের মূল পর্বে উঠতে ব্যর্থ হয়েছিল চার বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ইতালি। তারা বাদ পড়েছিল বাছাইপর্বের প্লে-অফ থেকে। সেই হতাশা পেছনে ফেলে অদম্য গতিতে এগিয়ে চলেছে আজ্জুরিরা। গ্রিসকে হারিয়ে উয়েফা ইউরো ২০২০ এর মূল পর্বে জায়গা করে নিয়েছে রবার্তো মানচিনির শিষ্যরা।
italy football
ছবি: ইতালি ফুটবল ফেডারেশনের টুইটার পেজ

সবশেষ রাশিয়া বিশ্বকাপের মূল পর্বে উঠতে ব্যর্থ হয়েছিল চার বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ইতালি। তারা বাদ পড়েছিল বাছাইপর্বের প্লে-অফ থেকে। সেই হতাশা পেছনে ফেলে অদম্য গতিতে এগিয়ে চলেছে আজ্জুরিরা। গ্রিসকে হারিয়ে উয়েফা ইউরো ২০২০ এর মূল পর্বে জায়গা করে নিয়েছে রবার্তো মানচিনির শিষ্যরা।

শনিবার রাতে রোমের অলিম্পিক স্টেডিয়ামে বাছাই পর্বের 'জে' গ্রুপের ম্যাচে ইতালি জিতেছে ২-০ গোলে। দুটি গোলই আসে ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে। জর্জিনহো পেনাল্টি থেকে ইতালিয়ানদের এগিয়ে নেওয়ার পর গ্রিসের জালে বল পাঠিয়ে জয় নিশ্চিত করেন ফেদেরিকো বার্নারদেস্কি।

নিজেদের গ্রুপের প্রথম ও সবমিলিয়ে দ্বিতীয় দল হিসেবে আগামী ইউরোর মূল পর্বের টিকিট কেটেছে ইতালি। তাদের আগে জায়গা করে নিয়েছে কেবল ফিফা র‍্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ দল বেলজিয়াম।

ঘরের মাঠে বল দখল ও আক্রমণে ইতালির প্রাধান্য ছিল চোখে পড়ার মতো। গ্রিসের গোলমুখে মোট ১২টি শট নেয় তারা যার ৪টি ছিল লক্ষ্যে। তবে প্রথমার্ধে তাদের গোছানো আক্রমণ বার বার গিয়ে প্রতিহত হয় গ্রিসের রক্ষণভাগের কাছে। দ্বিতীয়ার্ধে অবশ্য নিজেদের মেলে ধরে ইতালি।

৬তম মিনিটে স্পট-কিক থেকে লক্ষ্যভেদ করেন চেলসি মিডফিল্ডার জর্জিনহো। এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। ডি-বক্সের ভেতরে গ্রিকদের আন্দ্রেয়াস বৌচালাকিসের হাতে বল লাগলে পেনাল্টির বাঁশি বাজিয়েছিলেন রেফারি। ডান পায়ের শটে বাঁ দিকের জালে বল জড়ান জর্জিনহো।

৭৮তম মিনিটে লিওনার্দো বোনুচ্চির পাস থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন জুভেন্টাস ফরোয়ার্ড বার্নারদেস্কি। বাঁ পায়ের দূরপাল্লার জোরালো শটে জালের ঠিকানা খুঁজে নেন তিনি। অতিথিদের গোলরক্ষক আলেক্সান্দ্রোস পাসচালাকিস সর্বোচ্চ চেষ্টা চালালেও বল ফেরাতে ব্যর্থ হন।

বাছাইয়ে সাত ম্যাচের সবকটিতে জিতে ২১ পয়েন্ট নিয়ে 'জে' গ্রুপের পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে রয়েছে ইতালি। সমান ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বরে ফিনল্যান্ড। আর্মেনিয়া ১০ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে। বসনিয়া-হার্জেগোভিনার পয়েন্ট সমান হলেও মুখোমুখি লড়াইয়ে পিছিয়ে চতুর্থ স্থানে রয়েছে তারা।

Comments

The Daily Star  | English

International Mother Language Day: Languages we may lose soon

Mang Pu Mro, 78, from Kranchipara of Bandarban’s Alikadam upazila, is among the last seven speakers, all of whom are elderly, of Rengmitcha language.

12h ago