৭৫তম জন্মদিনে আলী যাকের

নাট্যব্যক্তিত্ব আলী যাকের। অভিনেতা হিসেবে যেমন সফল একজন মানুষ, নির্দেশক হিসেবেও সফল। কখনো মঞ্চে তিনি প্রতিবাদী নুরুলদীন, কখনো গ্যালিলিও, কখনো দেওয়ান গাজী। এই তিনটি আলোচিত চরিত্রে অভিনয় করে মঞ্চপ্রেমীদের কাছে তিনি স্মরণীয় হয়ে আছেন।
প্রযাত আলী যাকের। ছবি: স্টার ফাইল ফটো

নাট্যব্যক্তিত্ব আলী যাকের। অভিনেতা হিসেবে যেমন সফল একজন মানুষ, নির্দেশক হিসেবেও সফল। কখনো মঞ্চে তিনি প্রতিবাদী নুরুলদীন, কখনো গ্যালিলিও, কখনো দেওয়ান গাজী। এই তিনটি আলোচিত চরিত্রে অভিনয় করে মঞ্চপ্রেমীদের কাছে তিনি স্মরণীয় হয়ে আছেন।

অন্যদিকে, মঞ্চে তিনি নির্দেশনা দিয়েছেন অনেক নাটক। তার মধ্যে রয়েছে- ‘অচলায়তন’, ‘বাকী ইতিহাস’, ‘বিদগ্ধ রমণীকুল’, ‘সৎ মানুষের খোঁজে’, ‘কাঁঠালবাগান’, ‘তৈল সংকট’, ‘এই নিষিদ্ধ পল্লীতে’, ‘কোপেনিকের ক্যাপ্টেন’ এবং ‘নুরুলদীনের সারাজীবন’।

অসংখ্য বেতার নাটকেও অভিনয় করেছেন গুণী এই অভিনেতা। অভিনয় করেছেন বহু টিভি নাটকে। ‘আজ রবিবার’, ‘বহুব্রীহি’, ‘তথাপি’, ‘পাথর’, ‘দেয়াল’সহ আরও বিভিন্ন নাটকে অভিনয় করে তিনি এখনো টেলিভিশন নাটকের দর্শকদের মনে জায়গা করে রেখেছেন।

১৯৭৩ সালে আলী যাকের যোগ দেন নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়-এ। আজও তিনি এই দলের অন্যতম একজন। সবশেষ নিজ নাট্যদলের হয়ে ২০১৭ সালে মঞ্চে অভিনয় করেন তিনি- সেটি গ্যালিলিও নাটকে।

এই অভিনয় শিল্পীর অভিনয়ে পথচলা শুরু ১৯৭২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে। আরণ্যক নাট্যদলের হয়ে । ‘কবর’ নাটকে। তারপর ধারাবাহিকভাবে কাজ করে গেছেন। বিশেষ করে ঢাকার মঞ্চ নাটক তার হাত ধরে শক্ত অবস্থান গড়ে তুলেছে।

আলী যাকের কেবল মঞ্চ নাটকের সফল অভিনেতা কিংবা সফল নির্দেশকই নন। মঞ্চ নাটকের অন্যতম সফল সংগঠকও তিনি।

কাজের স্বীকৃতি হিসেবে পেয়েছেন একুশে পদক, বঙ্গবন্ধু পুরস্কার, মুনির চৌধুরী পদক, নরেশ বিশ্বাস পদক ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমী পুরস্কার। এছাড়াও মেরিল প্রথম আলো আজীবন সম্মাননা পেয়েছেন তিনি।

আলী যাকের একজন সৌখিন ফটোগ্রাফারও। আবার লেখালেখির সঙ্গেও যুক্ত।

আজ (৬ নভেম্বর) গুণী অভিনেতা আলী যাকেরের ৭৫তম জন্মদিন। জন্মদিনে তার কাছের মানুষরা তাকে নিয়ে কথা বলেছেন ডেইলি স্টারের সঙ্গে।

(ঘড়ির কাঁটা অনুযায়ী) মামুনুর রশীদ, আবুল হায়াত, সারা যাকের ও ড. ইনামুল হক। ছবি: স্টার

সহশিল্পীদের স্মৃতিচারণ…

মামুনুর রশীদ:  আলী যাকের সম্পর্কে অনেক কথা বলা যায়। আমাদের নাট্য জগতকে বিভিন্ন সময়, বিভিন্নভাবে তিনি আলোকিত করেছেন। তিনি নিজেও একজন আলোকিত মানুষ। গতকালও তাকে দেখতে গিয়েছিলাম তার বাসায়। তিনি এখন অসুস্থ। অসম্ভব মেধাবী একজন শিল্পী তিনি। কী অভিনয়ে, কী নির্দেশনায়। অত্যন্ত উঁচুদরের শিল্পী। আবার আলী যাকের সুস্থ হয়ে ফিরে আসুন আমাদের মাঝে।

১৯৭২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে আমরা এক সঙ্গে কাজ শুরু করি। সেটা আরণ্যক নাট্যদলে। নাটকের নাম ‘কবর’। তারও আগে স্বাধীনবাংলা বেতারে আমরা এক সঙ্গে কাজ করেছি। আমাদের দেশের মঞ্চ নাটকে তার অবদান অনেক।

জন্মদিনে আলী যাকেরকে শুভেচ্ছা। তিনি সুস্থ হয়ে ফিরে আসুন। আবার মঞ্চে আপনাকে দেখতে চাই।

আবুল হায়াত: প্রথমেই শুভ জন্মদিন আলী যাকের। আজকের দিনে একটি কথাই বলি- আপনি সুস্থ হয়ে ফিরে আসুন। মঞ্চে আপনাকে খুব প্রয়োজন। আমাদের মঞ্চ নাটককে আপনি সমৃদ্ধ করেছেন। সেখানে আবার আপনি অভিনয় করবেন, আবারও নির্দেশনা দিবেন- মন থেকে তা চাইছি। একজন বড় মাপের শিল্পী আপনি। আপনার সুস্থতা কামনা করছি।

আলী যাকেরের সঙ্গে এক মঞ্চে সবশেষ অভিনয় করেছিলাম ২০১৬ সালে। ‘দেওয়ান গাজীর কিসসা’ নাটকে। ওই স্মৃতি বারবার চোখে ভাসে। এক জীবনে তার সঙ্গে আমার কতো কতো স্মৃতি। আমরা একই নাট্যদল করেছি বহু বছর। স্মৃতির শেষ নেই। দোয়া করি, তিনি দ্রুত সুস্থ হন। মন থেকে আশীর্বাদ করছি।

ড. ইনামুল হক: জন্মদিনে শুভাশিস রইল আলী যাকের। আলী যাকের কেবল একজন অভিনয় শিল্পী নয়, নির্দেশক নয়, তিনি আমার ভালো বন্ধুও। একটা সময় আমরা একই নাট্যদল করেছি। আমার সন্তানরা ও তার সন্তানরা বলতে গেলে একসঙ্গেই থিয়েটারের পরিবেশের মধ্যে দিয়ে বড় হয়েছে। আজ তিনি অসুস্থ। তিনি খুব দ্রুত সুস্থ হয়ে ফিরে আসুন আমাদের মাঝে।

আলী যাকের অসম্ভব ফুর্তিবাজ মানুষ। তিনি নিজে ফুর্তিতে থাকতেন, আমাদেরকেও রাখতেন। তার মতো মনখোলা মানুষ কমই দেখেছি।

আলী যাকেরের অসুস্থতা আমাকে কষ্ট দেয়। সব সময় প্রার্থনা করি উনি সুস্থ হয়ে উঠুক। আবারও শিল্পের পথে, আমাদের মাঝে আগের মতো করে ফিরে আসুক।

অভিনয় ও ব্যক্তিজীবনে একজন সফল মানুষ আলী যাকের। সব অর্থেই তিনি সফল। তার নির্দেশনায় আমি মঞ্চে অভিনয় করেছি, ‘অচলায়তন’ নাটকে। নাটকটি বেশ সাড়া ফেলেছিলো। আমার চরিত্রটিও প্রশংসা পেয়েছিলো। তার সব ক্রেডিট আলী যাকেরের।

প্রিয় বন্ধু দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠুক এই প্রত্যাশা করছি।

সারা যাকের: আলী যাকেরকে নিয়ে এক কথায় যদি বলি, তাহলে বলবো- ওর মতো উদার মনের মানুষ কমই দেখেছি। মানুষকে কখনো ছোট বা বড় হিসেবে বিবেচনা করে না, দেখেও না। সব মানুষ এক।

অনেক বছর ধরে একসঙ্গে আছি। মানুষ হিসেবে অসম্ভব সুন্দর মনের। একজন কাজপাগল মানুষ। কাজ-ই তাকে এতোদূর নিয়ে এসেছে। এক হাতে দশটা কাজ করার মানুষ। কাজবিহীন কখনো নিজেকে কল্পনাও করতে পারেনি।

অভিনয় নিয়ে কী বলবো? ওটা তো অন্যরা বলবে। একজীবনে এতো ভালো ভালো চরিত্রে মঞ্চে অভিনয় করেছে, যার জন্য আমাদের মঞ্চ নাটকই সমৃদ্ধ হয়েছে। আমরা দুজনে একসঙ্গে মঞ্চে কাজ করেছি। অসাধারণ অভিনয় ক্ষমতার এই অভিনেতার।

তার সবচেয়ে বড় গুণ হচ্ছে- কখনো কোনো কাজ থেকে পিছপা হননি। যে কাজ ধরেছেন, তা করেছেন। এজন্যই বোধহয় সফলতা এসেছে।

ফটোগ্রাফির প্রতি ওর ভীষণ আগ্রহ। এজন্য সময় বের করে গ্রামের দিকে চলে যেতো। প্রকৃতির প্রতি তার অনেক প্রেম।

Comments

The Daily Star  | English

How Lucky got so lucky!

Laila Kaniz Lucky is the upazila parishad chairman of Narsingdi’s Raipura and a retired teacher of a government college.

4h ago