কিশোরগঞ্জে আমনের বাম্পার ফলন

আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবং রোগবালাই ও পোকা-মাকড়ের আক্রমণ কম হওয়ায় এ বছর কিশোরগঞ্জে আমন আবাদে বাম্পার ফলন হওয়ার আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।
boro_harvest-1.jpg
স্টার ফাইল ছবি

আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবং রোগবালাই ও পোকা-মাকড়ের আক্রমণ কম হওয়ায় এ বছর কিশোরগঞ্জে আমন আবাদে বাম্পার ফলন হওয়ার আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ১৩ উপজেলার মধ্যে নয়টিতে সাড়ে ২২ হাজার হেক্টর জমিতে উফশী, হাইব্রিড ও স্থানীয় জাতের রোপা আমনের চাষ করা হয়েছে। এর মধ্যে হোসেনপুর উপজেলায় উফশীর পাঁচ হাজার ১৫ হেক্টর ও স্থানীয় জাতের ১৫ হেক্টর জমিতে ৯৭ হাজার ১৪ মেট্রিক টন ধান উৎপন্ন হবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

সদর উপজেলায় উফশী ছয় হাজার ৭৫ ও হাইব্রিড ২৫, পাকুন্দিয়ায় উফশী তিন হাজার ৬৩৫ ও হাইব্রিড চার, কটিয়াদিতে উফশী তিন হাজার ৩৪০ ও হাইব্রিড ৮০, করিমগঞ্জে উফশী দুই হাজার ৩১০, তাড়াইলে উফশী ২০, বাজিতপুরে উফশী ৬৫০, কুলিয়ারচরে উফশী ৩৮০ ও ভৈরব উপজেলায় উফশী ৯৫০ হেক্টর জমিতে চাষা করা হয়েছে।

ইটনা, মিঠামইন, অষ্টগ্রাম ও নিকলী উপজেলার জমি জলমগ্ন থাকায় সেখানে আমন আবাদ হয় না।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. মতিউর রহমান জানান, প্রতি হেক্টরে উফশী চার দশমিক ২৫ মেট্রিক টন, হাইব্রিড চার দশমিক ৯১ মেট্রিক টন ও স্থানীয় জাত দুই মেট্রিক টন করে উৎপন্ন হয়। এ বছর জেলায় হাইব্রিড এক হাজার ৮৯০ মেট্রিক টন, উফশী ৯৫ হাজার ৯৪ মেট্রিক টন ও স্থানীয় জাতে ৩০ মেট্রিক টন ধান উৎপাদন হবে আশা করা যায়।

Comments

The Daily Star  | English

A look back at 2018 quota protests and Toriqul’s tale

Students from Comilla University were attacked by police during a quota reform demonstration yesterday. At least 10 students, including two journalists, were injured

2h ago