রাখাইন রাজ্যের সমস্যাটি আন্তর্জাতিক আদালতে আনার মতো বিষয় নয়: সু চি

রাখাইন রাজ্যের সমস্যাটি আন্তর্জাতিক আদালতে আনার মতো বিষয় নয়। মিয়ানমার যেসব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করছে তা গাম্বিয়ার উপলব্ধি করা উচিত।

রাখাইন রাজ্যের সমস্যাটি আন্তর্জাতিক আদালতে আনার মতো বিষয় নয়। মিয়ানমার যেসব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করছে তা গাম্বিয়ার উপলব্ধি করা উচিত।

নেদারল্যান্ডসের হেগে অবস্থিত আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে (আইসিজে) মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগে দায়েরকৃত মামলায় আজ (১১ ডিসেম্বর) যুক্তি দিতে গিয়ে দেশটির স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চি এ কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, বিদ্রোহীরা নিরাপত্তা চৌকিতে হামলা করেছে। তারা সাধারণ জনগণের ওপরও হামলা চালিয়েছে। সেসব কথা গতকাল কোনো বক্তা উল্লেখ করেননি।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট বিদ্রোহীরা তিনটি নিরাপত্তা চৌকিতে হামলা করেছিলো উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, সামরিক বাহিনী সেসব হামলার তদন্ত করেছে। সেনাবাহিনীর যেসব সদস্য অপরাধ করেছে তাদের শাস্তি দেওয়া হয়েছে।

গণহত্যা একটি অপরাধ। গণহত্যা কনভেনশনে স্বাক্ষরকারী দেশগুলোর মধ্যে মিয়ানমার প্রথম সারিতে রয়েছে বলে আদালতকে জানান সু চি।

গতকাল অভিযোগ উত্থাপন করেছে গাম্বিয়া।

উল্লেখ্য, শুনানির শেষ দিনে (১২ ডিসেম্বর) বাংলাদেশ সময় বিকাল ৩টায় দেড় ঘণ্টা বলার সুযোগ পাবে গাম্বিয়া এবং বিরতির পর রাত সাড়ে ৯টায় শুরু হয়ে দেড় ঘণ্টা বলবে মিয়ানমার।

উল্লেখ্য, গণহত্যার মামলার শুনানিতে মিয়ানমারের পক্ষে অংশ নিতে নেদারল্যান্ডসে অবস্থান করছেন দেশটির অং সান সু চি। আর গাম্বিয়ার পক্ষে মামলায় অংশ নিচ্ছেন দেশটির অ্যাটর্নি জেনারেল ও আইনমন্ত্রী আবুবকর মারি তামবাদু।

Comments

The Daily Star  | English