খেলা

এত বড় এজও টের পেলেন না বোলার-উইকেটকিপার!

এলোমেলো বোলিং আর ক্যাচ হাতছাড়া করায় এমনিতেই মিলছিল না উইকেট। তরতরিয়ে বাড়ছিল পাকিস্তানের রান। অথচ উইকেট পেতে মরিয়া বাংলাদেশ কিনা শান মাসুদের ব্যাটের কানায় লেগে উইকেটকিপারের গ্লাভসে বলেও আবেদনই করল না!
ছবি: টিভি থেকে নেওয়া

এলোমেলো বোলিং আর ক্যাচ হাতছাড়া করায় এমনিতেই মিলছিল না উইকেট। তরতরিয়ে বাড়ছিল পাকিস্তানের রান। অথচ উইকেট পেতে মরিয়া বাংলাদেশ কিনা শান মাসুদের ব্যাটের কানায় লেগে উইকেটকিপারের গ্লাভসে বলেও আবেদনই করল না!

৮৬ রানে জীবন পেয়ে শান তুলে নিয়েছেন ক্যারিয়ারের তৃতীয় সেঞ্চুরি। ২ রানের জীবন কাজে লাগিয়ে সেঞ্চুরি করেছেন বাবর আজমও। সেঞ্চুরির পরই অবশ্য শানকে বোল্ড করে ব্রেক থ্রো এনেছেন তাইজুল ইসলাম। ২০৫ রানে গিয়ে তৃতীয় উইকেট হারানো পাকিস্তান বেশ ভালো অবস্থানেই। 

বাবরের ক্যাচ ছাড়েন ইবাদত হোসেন। তবে ওই ভুল ছাপিয়ে গেছে শান মাসুদকে দেওয়া দৃষ্টিকটু সুযোগ। রুবেল হোসেনের করা ৪৫তম ওভারের তৃতীয় বল। অফ স্টাম্পের বাইরের বলে ব্যাট বাড়িয়ে পরাস্ত হন শান মাসুদ। মাথা নেড়ে ভয়ে ভয়ে ছিলেন শান। বোলার রুবেল আর উইকেট কিপার লিটন দাসের অভিব্যক্তিতে তখন আক্ষেপ, যেন মুখ থেকে বেরোয়, ‘ইশ একটুর জন্য!’ আক্ষেপ প্রকাশ করলেও তারা আর আবেদন করেননি। কিন্তু আল্ট্রা এজে রিপ্লেতে দেখা যায় আউট ছিলেন তখন ৮৬ রানে থাকা শান। ছোট খাটো কোন এজ নয়, বেশ বড় এজ হয়েছিল শানের।

আবেদন করে আম্পায়ার যদি আউট নাও দিতেন তবু রিভিউ নেওয়ার সুযোগ ছিল বাংলাদেশের। জায়ান্ট স্ক্রিনে রিপ্লে দেখে আক্ষেপ দ্বিগুণ হয়েছে রুবেল-লিটনের। কিন্তু কি আর করা, ততক্ষণে বড় ভুল যে হয়েই গেছে।

বাংলাদেশের এই ভুলের সময় পাকিস্তানের স্কোর ২ উইকেটে ১৭০। তখন আউট করতে পারলে সেঞ্চুরি বঞ্চিত হতেন শান।

এর আগে দ্বিতীয় সেশনের শুরুর দিকে তাইজুল ইসলামের বলে আরেক ব্যাটসম্যান বাবর আজমের ক্যাচ ছাড়েন ইবাদত হোসেন। তাইজুলের বলে এগিয়ে এসে উড়াতে গিয়ে মিস টাইমিং হয়ে গিয়েছিল ২ রানে থাকা বাবরের। লং অফে যাওয়া সে ক্যাচ কিছুটা দৌড়ে হাত ছুঁয়ে মাটিতে ফেলে দেন তিনি। ২ রানের জীবন নিয়ে সেঞ্চুরি তুলেছেন বাবর। দ্বিতীয় দিন শেষে ১৪৩ রানে অপরাজিত এই ব্যাটসম্যান দিচ্ছেন ডাবল সেঞ্চুরির আভাস। তার ব্যাটে ৩ উইকেটে ৩৪২ রান তুলে পাকিস্তান এগিয়ে গেছে ১০৯ রানে।

Comments