বাংলাদেশের নতুন ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল

মাশরাফি বিন মর্তুজার ছেড়ে দেওয়া নেতৃত্বের মশাল উঠল দেশের সফলতম ওপেনার তামিম ইকবালের হাতে।
Tamim Iqbal
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

মাশরাফি বিন মর্তুজার ছেড়ে দেওয়া নেতৃত্বের মশাল উঠল দেশের সফলতম ওপেনার তামিম ইকবালের হাতে। রবিবার (৮ মার্চ) বোর্ড সভা শেষে নতুন ওয়ানডে অধিনায়ক হিসেবে বাঁহাতি ওপেনারের নাম ঘোষণা করেছেন বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডের আগের দিন গেল বৃহস্পতিবার অধিনায়কত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন দেশের সফলতম অধিনায়ক মাশরাফি। পরদিন আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে বিদায় জানানো হয় তাকে।

মাশরাফির নেতৃত্ব ছাড়ার দুদিন পর নির্ধারিত বোর্ড সভায় এসেছে তামিমকে অধিনায়ক নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত। বাংলাদেশের হয়ে অবশ্য আগেও দুবার অধিনায়কত্ব করেছেন তিনি। তবে সেসব ছিল ভারপ্রাপ্ত দায়িত্ব। বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে ওয়ানডেতে সাত হাজারের বেশি রান করা তামিম এবারই পেলেন পূর্ণাঙ্গ দায়িত্ব।

মিরপুরের বিসিবি কার্যালয়ে বোর্ড প্রধান নাজমুল বলেন, তামিমকে দীর্ঘ সময়ের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে এবং পারফরম্যান্সে কোনো ঘাটতি না হলে এই পদ থেকে তাকে সরানো হবে না, ‘ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল (নির্বাচিত হয়েছেন) সর্বসম্মতিক্রমে। লম্বা সময়ের জন্য তাকে অধিনায়ক করা হয়েছে। নিশ্চয়তা বলতে কিছু নেই। তাকে দীর্ঘ সময়ের জন্য (নেতৃত্ব) দেওয়া হয়েছে। আমাদের ভাবনা ছিল, স্বল্প মেয়াদে (অধিনায়ক নির্বাচন) করব। আগামী বছর চেয়েছিলাম একজনকে পূর্ণাঙ্গভাবে করতে। কিন্তু আজকের (রবিবার) বোর্ড সভা শেষে আমরা চিন্তা করলাম, তামিমকে দীর্ঘ সময়ের জন্য অধিনায়ক করার। স্বল্প মেয়াদে করার চিন্তা-ভাবনা নেই। আমরা চাই, তামিম দীর্ঘ সময়ের জন্য (অধিনায়কত্ব) করুক।’

‘অধিনায়ক নির্বাচন বোর্ডের সিদ্ধান্ত। বোর্ড অনেক খেলোয়াড়কে দেখে। অনেক সময় আবার অনেকে আগ্রহীও হয় না।... সবার কথা বিবেচনা করে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’

গেল বছর ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের পর পর শ্রীলঙ্কায় তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে যায় বাংলাদেশ। নিয়মিত অধিনায়ক মাশরাফি চোটের কারণে ছিটকে গেলে ওই সিরিজে প্রথমবার ওয়ানডেতে অধিনায়কত্ব করেন তামিম। তিন ম্যাচেই অবশ্য লড়াইবিহীনভাবে হারে বাংলাদেশ। ব্যাটেও রান পাননি তামিম। টেস্টেও অধিনায়কত্ব করার নজির আছে তামিমের। ২০১৭ সালে নিউজিল্যান্ড সফরে তখনকার নিয়মিত টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের চোটে এক টেস্টে ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক ছিলেন তিনি।

২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর থেকে বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের নেতৃত্বের ভার ছিল মাশরাফির কাঁধে। টাইগারদের অধিনায়ক হিসেবে সবচেয়ে বেশি ৫০টি ওয়ানডে জিতিয়ে দায়িত্বের ইতি টানেন তিনি।

Comments