অফিস বন্ধ, বাসা থেকে কাজ করবেন ভারতীয় বোর্ডের কর্মীরা

নভেল করোনাভাইরাসের কারণে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে সব ধরনের খেলাধুলা। বিশ্বের সব দেশের ক্রীড়াঙ্গনেই চলছে স্থবিরতা। আইপিএলসহ সব ধরনের খেলা পিছিয়ে যাওয়ায় ভারতেরও একই অবস্থা। তবে এই সময়ে তো দাপ্তরিক কাজ চালু রাখতে হবে। সেজন্য বিকল্প পন্থা বেছে নিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)।
BCCI logo
ছবি: সংগৃহীত

নভেল করোনাভাইরাসের কারণে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে সব ধরনের খেলাধুলা। বিশ্বের সব দেশের ক্রীড়াঙ্গনেই চলছে স্থবিরতা। আইপিএলসহ সব ধরনের খেলা পিছিয়ে যাওয়ায় ভারতেরও একই অবস্থা। তবে এই সময়ে তো দাপ্তরিক কাজ চালু রাখতে হবে। সেজন্য বিকল্প পন্থা বেছে নিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)।

খেলাধুলা বিষয়ক ওয়েবপোর্টাল স্পোর্টসস্টার আজ মঙ্গলবার বিসিসিআই’র উচ্চ পদস্থ এক কর্মকর্তার বরাতে জানিয়েছে, ‘বর্তমান পরিস্থিতি মাথায় নিয়ে বোর্ড তার কর্মীদের জন্য একটি নোটিশ জারি করেছে। তাতে বলা হয়েছে, কর্মীরা যেন এই সময়ে বাড়ি থেকে কাজ করেন। খুব বেশি জরুরী কোনো কাজ থাকলে অফিসে আসতে পারবেন।’

একই খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা প্রেস ট্রাস্ট অব ইন্ডিয়াও।  বিসিসিআই’র এক কর্মকর্তার বরাতে তারা জানিয়েছে, এদিন থেকে  মুম্বাইয়ের বিসিসিআই কার্যালয় থাকছে বন্ধ। কর্মীদের তাই বাসা থেকে কাজ করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে, ‘ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে বিসিসিআই’র সদর দপ্তর মোটামুটি বন্ধই থাকবে। এই কথা সব কর্মচারীদের জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। সবাইকে তাই বাসা থেকে কাজ করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। তবে কেউ যদি জরুরী কারণে অফিসে আসতে চান, তাহলে আসতে পারবেন।’

বন্ধ আছে ব্যাঙ্গালুরুতে অবস্থিত ভারতের জাতীয় ক্রিকেট একাডেমি। এর আগে, আগামী ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) স্থগিত করেছে ভারতীয় বোর্ড। টুর্নামেন্টটি শুরু হওয়ার কথা ছিল ২৯ মার্চ।

এতদিন ধরে একমাত্র ক্রিকেট আসর হিসেবে চালু ছিল পাকিস্তান সুপার লিগ (পিএসএল)। এদিন এই ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টটিও বন্ধ করে দিয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। ফলে এই মুহূর্তে কোনো পর্যায়েই মাঠের ক্রিকেট চালু নেই বিশ্বে।

Comments

The Daily Star  | English

Onion prices surge in Dhaka after India’s export ban extension

Retailers were selling the homegrown variety of onion at Tk 204 a kg at Karwan Bazar today, compared with Tk 130 on Thursday

1h ago