করোনাভাইরাসে বিশ্বের ৫০০ মিলিয়ন মানুষ গৃহবন্দী

বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় ৫০০ মিলিয়নের বেশি মানুষ গৃহবন্দী হয়ে পড়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম জাকার্তা পোস্টের প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে।
Coronavirus
করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে জার্মানির একটি বিমানবন্দরে মাস্ক পরে আছেন যাত্রীরা। ছবি: রয়টার্স

বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় ৫০০ মিলিয়নের বেশি মানুষ গৃহবন্দী হয়ে পড়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম জাকার্তা পোস্টের প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে।  

গত বছরের শেষ দিকে চীনের উহান থেকে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে। ফলে চলতি বছরের জানুয়ারি শেষ দিকে সারাবিশ্বের থেকে এক প্রকার বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে চীন। প্রদেশটিতে এখনও কোয়ারেন্টিন কার্যকর আছে। যদিও গত ১৪ মার্চ থেকে সেখানের বাসিন্দাদের চলাচল সহজ করে দেওয়া হয়েছে। 

চীনের পরে কমপক্ষে আটটি দেশ কোয়ারেন্টিনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। গত ১০ ই মার্চ থেকে ইতালি, ১৪ ই মার্চ থেকে স্পেন, ১৫ মার্চ থেকে লেবানন, ১৬ মার্চ চেক প্রজাতন্ত্র, ১৭ মার্চ থেকে ফ্রান্স, ইসরাইল ও ভেনিজুয়েলা এবং ১৮ মার্চ থেকে বেলজিয়াম তাদের নাগরিকদের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিনে রেখেছে।

স্বাভাবিকভাবেই এই আট দেশের ২৪০ মিলিয়ন মানুষ গৃহবন্দী হয়ে আছেন। তাদের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনা ও চিকিৎসা ছাড়া বাইরে বের হওয়ার কোনো সুযোগ নেই।

অস্ট্রিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি এবং ইরানও তাদের নাগরিকদের চলাচলকে সীমাবদ্ধ করেছে। এই চার দেশে প্রায় ২৪০ মিলিয়ন মানুষের বাসস্থান। ফলে, তারাও এ প্রকার গৃহবন্দী হয়ে পড়েছেন।

এছাড়াও, তিউনিসিয়া, বলিভিয়া, সার্বিয়া, যুক্তরাষ্ট্রের নিউ জার্সি এবং পুয়ের্তো রিকো এবং ফিলিপাইনের রাজধানী ম্যানিলা সন্ধ্যার পর থেকে কারফিউ জারি করা হয়েছে। এই অঞ্চলগুলোতে ৫ মিলিয়নেরও বেশি মানুষের বাস। স্বভাবতই সন্ধ্যার পর থেকে এসব অঞ্চলের বাসিন্দাদের গৃহবন্দী থাকতে হচ্ছে।

 

Comments

The Daily Star  | English

Freedom declines, prosperity rises in Bangladesh

Bangladesh’s ranking of 141 out of 164 on the Freedom Index places it within the "mostly unfree" category

59m ago