করোনাভাইরাস

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ৩ জন, নতুন আক্রান্ত ৩৫: আইইডিসিআর

করোনাভাইরাসে দেশে আরও ৩৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে ৩০ জন পুরুষ ও পাঁচ জন নারী। এ নিয়ে দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ১২৩ জনে দাঁড়িয়েছে। এ ছাড়া, মারা গেছেন আরও তিন জন। মোট মারা গেছেন ১২ জন।
আইইডিসিআর পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা। ছবি: সংগৃহীত

করোনাভাইরাসে দেশে আরও ৩৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে ৩০ জন পুরুষ ও পাঁচ জন নারী। এ নিয়ে দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ১২৩ জনে  দাঁড়িয়েছে। এ ছাড়া, মারা গেছেন আরও তিন জন। মোট মারা গেছেন ১২ জন।

আজ সোমবার দুপুর ২টার দিকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে অনলাইন ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানিয়েছেন সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা।

তিনি বলেন, ‘একটি প্রেস ব্রিফিংয়ে মন্ত্রী প্রাথমিক তথ্যের ভিত্তিতে আপনাদের সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা বলেছেন। পরবর্তীতে আমাদের যেহেতু বাংলাদেশে এখন অনেকগুলো কেন্দ্র থেকে এ পরীক্ষা করা হয় এবং ফলাফল আসে, সেসব ফলাফল সন্নিবেশ করার পরে এবং তথ্যের ভেরিফিকেশনের পরে আপডেটেড যে তথ্য আছে তা জানাচ্ছি। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন সংক্রমণের সংখ্যা ৩৫। তার মানে সর্বমোট সংক্রমিত ব্যক্তির সংখ্যা ১২৩। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু তিনটি। সর্বমোট ১২।’

তিনি জানান, নতুন আক্রান্ত ৩৫ জনের মধ্যে সর্বোচ্চ রোগীর সংখ্যা ৪১-৪৫ বছর বয়সের মধ্যে ১১ জন, ২১-৩০ বছর বয়সী ছয় জন। এদের মধ্যে ৩০ জন পুরুষ ও পাঁচ জন নারী। সর্বমোট শনাক্ত হওয়া ১২৩ জনের মধ্যে ঢাকা শহরের ৬৪ জন, নারায়ণগঞ্জের ২৩ জন, এর পর রয়েছে মাদারীপুরে। গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত হওয়া ৩৫ জনের মধ্যে ১২ জনই নারায়ণগঞ্জের।

‘স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছিলেন গত ২৪ ঘণ্টায় চার জন মারা গেছেন, নতুন আক্রান্ত ২৯; কিন্তু আইইডিসিআর বলছে মারা গেছেন তিন জন, নতুন আক্রান্ত ৩৫’— এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘স্বাস্থ্যমন্ত্রী যে তথ্য দিয়েছেন, ওই মুহূর্ত পর্যন্ত সেটাই সত্য ছিল। সারা বাংলাদেশে আমরা ল্যাবরেটরি সম্প্রসারণ করেছি। পরীক্ষা চলছে। আমর ব্রিফিং শুরু করার আগ পর্যন্ত আমাদের কাছে যে সর্বশেষ তথ্য ছিল, সেই তথ্য আপনাদের সাথে শেয়ার করলাম। মন্ত্রী যখন কথা বলেছেন, সেটা এখন থেকে অন্তত ১ বা দেড় ঘণ্টা আগে। সেই সময়ে আমাদের হাতে যে তথ্য ছিল আমরা সেটা দিয়েছি।’

মৃত্যুর সংখ্যার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘মন্ত্রী যখন বক্তৃতা করছিলেন, সে সময় টেলিফোন করেছিলেন। সে সময় নাম নিয়ে একটা সমস্যা হয়েছিল। পরবর্তীতে দেখা গেল দুইটা নামের বানানে সমস্যা ছিল এবং শব্দ একটা কম ছিল, তখন তারা মনে করেছিল এটা দুইটা। এখন ভেরিফাই করে দেখা গেল তিন জনের মৃত্যু হয়েছে, চার জনের না। উনিতো একটা ক্লোজড মিটিংয়ে বক্তৃতা দিয়েছেন। যেকোনো কারণেই হোক সেখানে গণমাধ্যমে প্রতিনিধি ছিলেন এবং সেই কারণেই তখন এটা সেখান থেকে প্রচারিত হয়েছে। কিন্তু, এখন আমরা যে তথ্যটা বলছি এটা সর্বশেষ তথ্য। যাচাই-বাছাই শেষে যে তথ্যটা আমাদের হাতে এসেছে, সে তথ্যটা আপনাদের সাথে শেয়ার করছি। এটা নিয়ে আর বিভ্রান্তি সুযোগ নেই। এটাই সর্বশেষ তথ্য।’

Comments