লকডাউন: ব্যক্তি উদ্যোগে রাস্তা বন্ধ করে দেওয়ায় ভোগান্তি

মানিকগঞ্জের সিংগাইর পৌর এলাকা ও উপজেলার জামির্তা ইউনিয়ন এলাকা লকডাউন ঘোষণা করার পরে অন্যান্য এলাকায় গ্রামবাসী ব্যক্তি উদ্যোগে রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছেন। এতে ভোগান্তির সৃষ্টি হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
Manikganj_Road_Block
মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলার ফুকুরহাটি ইউনিয়নের কান্দাপাড়া গ্রামে বাঁশ দিয়ে রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে গ্রামবাসী। ছবি: স্টার

মানিকগঞ্জের সিংগাইর পৌর এলাকা ও উপজেলার জামির্তা ইউনিয়ন এলাকা লকডাউন ঘোষণা করার পরে অন্যান্য এলাকায় গ্রামবাসী ব্যক্তি উদ্যোগে রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছেন। এতে ভোগান্তির সৃষ্টি হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

সাটুরিয়া উপজেলার ফুকুরহাটি ইউনিয়নের কান্দাপাড়া গ্রাম ঘুরে দেখা যায়, গ্রামের প্রবেশ মুখেই বাঁশ পুতে সড়কটি স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। জরুরি প্রয়োজনের কোনো ধরনের যানবাহন চলার সুযোগ রাখা হয়নি।

গ্রামবাসী বলছেন, গ্রামের প্রবেশ মুখে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করলেই যথেষ্ট। এভাবে রাস্তা বন্ধ করার প্রয়োজন ছিল না। কোথাও আগুন লাগলে ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি ঢুকতে পারবে না। কোনো অসুস্থ ব্যক্তিকে হাসপাতালে নেওয়া প্রয়োজন হলে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হবে।

খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে— মানিকগঞ্জ সদর, শিবালয়, ঘিওর, দৌলতপুর ও হরিরামপুর উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের চিত্র একই।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ার পরে গত ৫ এপ্রিল মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার পৌর এলাকা লকডাউন ঘোষণা করেছে স্থানীয় প্রশাসন।

গত ২৪ মার্চ থেকে ১৩ সদস্যর একটি তাবলিগ জামাতের দল সিংগাইর পৌর এলাকায় আজিমপুর নয়াডাঙ্গী বাইতুল মামুর ও মারকাযুল মা আরিফ ওয়াদ-দা ওয়াহ মাদরাসায় অবস্থান করছিল। তাদের মধ্যে ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার মধ্য কাইচাইল গ্রামের এক ব্যক্তির শরীরে করোনার উপসর্গ দেখা দিয়ে তিনি এক স্বজনের সঙ্গে ঢাকায় গিয়ে রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) থেকে নমুনা পরীক্ষা করান। আইইডিসিআর নিশ্চিত করে তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত।

এরপর ৫ এপ্রিল সিংগাইর পৌর এলাকা লকডাউন করা হয়। সেই সঙ্গে জামাতে থাকা বাকি ১২ সদস্য এবং আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসায় স্থানীয় ছয় জন ও তাদের পরিবারের সদস্যদের হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়। আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসায় ২৮ জনের নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআর। এর মধ্যে ১১ জনের নমুনা পরীক্ষা করে তাবলিগ জামাতের আরও তিন জন করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত করা হয়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলায় জ্বর, সর্দি ও শ্বাসকষ্টে এক ব্যক্তির মৃত্যুর পর ৭ এপ্রিল সিংগাইর উপজেলার জামির্তা ইউনিয়ন পরিষদ এলাকা লকডাউন ঘোষণা করে স্থানীয় প্রশাসন। মৃত ব্যক্তি জামির্তায় কৃষি শ্রমিক হিসেবে কাজ করতে গিয়েছিলেন। অসুস্থ হয়ে পড়ায় তিনি বাড়ি ফিরে যান। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে বিষয়টি জানানো হলে স্থানীয় প্রশাসন জামির্তা লকডাউন ঘোষণা করে।

সাটুরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফুকুরহাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আফাজ উদ্দিন বলেন, ‘করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে আমরাও চাচ্ছিলাম মানিকগঞ্জ জেলা লকডাউন করা হোক। রাস্তা বন্ধ করার বিষয়টি আমার জানা ছিল না। আমি অবশ্যই এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেব।’

এ প্রসঙ্গে মানিকগঞ্জের পুলিশ সুপার রিফাত রহমান দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘লকডাউন অর্থ কেউ ঘর থেকে বাইরে বের হবে না। সরকারি সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে যত্রতত্র রাস্তা বন্ধ করা যাবে না। ইতোমধ্যে বেশ কিছু জায়গায় পুলিশ রাস্তার ওপর থেকে বাঁশের বেড়া, গাছের ডাল সরিয়ে দিয়েছে।’

আরও পড়ুন:

সিংগাইরে করোনা রোগী, পৌর এলাকা লকডাউন

মানিকগঞ্জে তাবলিগ জামাতের আরও ৩ জন আক্রান্ত

চাঁপাইনবাবগঞ্জে জ্বর-সর্দি-শ্বাসকষ্টে ১ জনের মৃত্যু

সিংগাইর লকডাউন, ৩ দিনেও ত্রাণ পৌঁছেনি জামির্তা ইউনিয়নে

Comments

The Daily Star  | English

Foreign airlines’ $323m stuck in Bangladesh

The amount of foreign airlines’ money stuck in Bangladesh has increased to $323 million from $214 million in less than a year, according to the International Air Transport Association (IATA).

11h ago