গাজীপুরে বকেয়া বেতনের দাবিতে পোশাক শ্রমিকদের বিক্ষোভ, মহাসড়ক অবরোধ

গাজীপুরে তিন মাসের বকেয়া বেতনের দাবিতে লকডাউনের নিয়ম ভেঙে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন কয়েকটি তৈরি পোশাক কারখানার শ্রমিকেরা।
Gazipur.jpg
লকডাউনের নিয়ম ভেঙে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে তৈরি পোশাক কারখানা শ্রমিকদের বিক্ষোভ। ছবি: স্টার

গাজীপুরে তিন মাসের বকেয়া বেতনের দাবিতে লকডাউনের নিয়ম ভেঙে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন কয়েকটি তৈরি পোশাক কারখানার শ্রমিকেরা।

মহানগরীর সাইনবোর্ড ও ভোগড়া বাইপাস এলাকার ইস্ট ওয়েস্ট গ্রুপ ও নিউওয়ে ফ্যাশনস লিমিটেড পোশাক কারখানার শ্রমিকেরা এই বিক্ষোভ করেন। এসময় সড়কের উভয় পাশে পণ্যবাহী যান চলাচলে সমস্যার সৃষ্টি হয়।

আজ রোববার সকাল সাড়ে ৯টা থেকে সাড়ে ১০টা পর্যন্ত এ বিক্ষোভ চলে। পরে কারখানা কর্তৃপক্ষ আগামী বৃহস্পতিবার (১৬ এপ্রিল) বকেয়া বেতনসহ অন্যান্য সুবিধাদি পরিশোধের আশ্বাস দিলে শ্রমিকরা অবরোধ তুলে নেয়। এতে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে পণ্যবাহী যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

বিক্ষোভরত অপারেটর রওশন আরা, মাজেদুল ইসলাম, বিপুল সাহা ও চায়না আক্তারসহ অন্যান্যরা জানান, তারা গত ৩ মাসের (ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিল) বেতন না পেয়ে সকাল ৯টার দিকে মহাসড়ক অবরোধ করেন।

‘আমরা তিন মাস ধরে বেতন-ভাতা পাচ্ছি না। কারখানা কর্তৃপক্ষ দেই-দিচ্ছি বলে আমাদের সঙ্গে টালবাহানা করছে। বাড়ি ভাড়া বকেয়া ও দোকানে বাকি পড়ে আছে। পাওনাদারদের জন্য বাসা থেকে বের হতে পারছি না। এর মধ্যে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে গাজীপুর জেলাকে লকডাউন করা হয়েছে। আমাদের ঘরে খাবার নেই। এখন আমাদের না খেয়ে মরার উপক্রম হয়েছে’ বলেন তারা।

শ্রমিকেরা আরও জানান, সরকারসহ বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী ও ব্যক্তিগত উদ্যোগে যেসব ত্রাণ সহায়তা দেওয়া হচ্ছে, তা কেবল গাজীপুরের যারা স্থানীয় তারাই পাচ্ছেন। কারখানার শ্রমিকেরা ত্রাণ সহায়তা পাচ্ছেন না।

এক শ্রমিক বলেন, ‘বকেয়া বেতন না পেলে পরিবার-পরিজন নিয়ে না খেয়ে মরা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই আমাদের। লকডাউনের কারণে সকল প্রকার চলাচল ও যানবাহন বন্ধ থাকায় গ্রামের বাড়িতেও যেতে পারছি না।’

Comments

The Daily Star  | English

Govt primary schools asked to suspend daily assemblies

The government has directed to suspend daily assemblies at all its primary schools across the country until further notice due to the ongoing heatwave

20m ago