করোনা উপসর্গ নিয়ে ৭ বছরের শিশুসহ ৫ জেলায় ৫ জনের মৃত্যু

করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে দেশের পাঁচ জেলায় শিশুসহ পাঁচ জন মারা গেছেন। আজ সোমবার চাঁদপুরে, পঞ্চগড়, মৌলভীবাজার, কুড়িগ্রাম ও দিনাজপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যান তারা। করোনা পরীক্ষার জন্য তাদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে দেশের পাঁচ জেলায় শিশুসহ পাঁচ জন মারা গেছেন।  আজ সোমবার চাঁদপুরে, পঞ্চগড়, মৌলভীবাজার, কুড়িগ্রাম ও দিনাজপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যান তারা। করোনা পরীক্ষার জন্য তাদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

চাঁদপুর

চাঁদপুরের হাইমচর উপজেলায় করোনা উপসর্গ নিয়ে সাত বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। আজ সোমবার দুপুরে শিশুটি মারা যায়।

উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বেলায়েত হোসেন জানান, মৃত শিশু করোনাভাইরাস আক্রান্ত ছিল কিনা সেজন্য তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হবে।

হাইমচর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মেজবাউল আলম বলেন, এ ঘটনার পর শিশুটির পরিবারকে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দিয়ে বাড়িটি লকডাউন করা হয়েছে।

হাইমচরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফেরদৌসী বেগম জানান, গত প্রায় একমাস আগে ঢাকা থেকে আসা উপজেলার ১২ বছরের এক কিশোরীর নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়েছে। ওই বাড়িটি লকডাউন করা হয়েছে বলেও তিনি জানান।


পঞ্চগড়

পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার ময়দানদিঘী ইউনিয়নে ১৬ বছর বয়সী এক কিশোর জ্বর ও গলাব্যথা নিয়ে মারা গেছে। গতকাল রোববার রাতে ওই কিশোর ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।

আজ সকালে মারা যাওয়া কিশোরের করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করেছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।

একই সঙ্গে তার বাড়িসহ আশ-পাশের পাঁচটি বাড়ি লকডাউন করে দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন।

বোদা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সোলেমান আলী বলেন, করোনা সন্দেহে বিশেষ ব্যবস্থায় কিশোরের মরদেহ দাফন করা হয়েছে।

মৌলভীবাজার

মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলায় করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে এক যুবক মারা গেছেন। আজ সকালে নিজ বাড়িতে তিনি মারা যান।

জুড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সমরজিৎ সিংহ জানিয়েছেন, মারা যাওয়া যুবকের করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

মারা যাওয়া ওই যুবকের বাড়িসহ আশেপাশের ১৫টি বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে বলে জানান জুড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অসীম চন্দ্র বনিক।

কুড়িগ্রাম

কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার দূর্গাপুর ইউনিয়নে করোনা উপসর্গ নিয়ে গতকাল রোববার রাতে এক ব্যক্তি মারা গিয়েছেন। আজ স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজন মারা যাওয়া ব্যক্তি ও তার পরিবারের সদস্যদের করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করেছেন। লকডাউন করা হয়েছে বাড়িটি।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, মারা যাওয়া ব্যক্তি টাঙ্গাইলে কাজ করতেন। এক সপ্তাহ আগে কুড়িগ্রামে নিজ বাড়িতে ফেরেন। বাড়িতে ফেরার পর তিনি জ্বর, সর্দি, গলাব্যথা ও হাঁচি-কাশিতে আক্রান্ত হন।

কুড়িগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ডা. হাবিবুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, পরীক্ষার জন্য তাদের নমুনা রংপুর মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট এলেই জানা যাবে মৃত ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত ছিলেন কিনা।

দিনাজপুর

দিনাজপুরের খানসামায় করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে এক ব্যক্তি মারা গেছেন। তিনি করোনা উপসর্গ নিয়ে গতকাল রোববার নরসিংদী থেকে তার মেয়েসহ বাড়ি ফেরার পথে মারা যান বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহমেদ মাহবুব-উল-ইসলাম।

তিনি বলেন, মৃত ব্যক্তি করোনা উপসর্গ নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। পরিবারের সদস্যদের হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলা হয়েছে এবং করোনা পরীক্ষার জন্য মৃত ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশের তত্ত্বাবধানে তার মরদেহ দাফন হয়েছে।


 

 

Comments

The Daily Star  | English

Mangoes and litchis taking a hit from the heat

It’s painful for Tajul Islam to see what has happened to his beloved mango orchard in Rajshahi city’s Borobongram Namopara.

13h ago