ডি ভিলিয়ার্সকে অধিনায়কত্ব করার প্রস্তাব দিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা!

‘মিস্টার ৩৬০ ডিগ্রি’ খ্যাত তারকা এবারে দিয়েছেন আরও চমক জাগানিয়া তথ্য। তাকে আবারও জাতীয় দলের অধিনায়কত্ব করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে বোর্ডের পক্ষ থেকে!
ab de villiers
ছবি: এএফপি

এবি ডি ভিলিয়ার্সকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরাতে চেষ্টার কোনো ত্রুটি রাখছে না দক্ষিণ আফ্রিকা। প্রোটিয়া ক্রিকেট বোর্ডের ডাকে সাড়া দিয়ে তিনিও বেশ কয়েকবার অবসর ভেঙে ফেরার প্রত্যাশার কথা জানিয়েছেন। এবার অবশ্য ‘মিস্টার ৩৬০ ডিগ্রি’ খ্যাত তারকা দিয়েছেন আরও চমক জাগানিয়া তথ্য। তাকে আবারও জাতীয় দলের অধিনায়কত্ব করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে বোর্ডের পক্ষ থেকে!

স্টার স্পোর্টস আয়োজিত শো ‘ক্রিকেট কানেক্টেড’- এ ৩৬ বছর বয়সী ডি ভিলিয়ার্স বলেছেন, ‘দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে খেলার ব্যাপারে আমার দিক থেকে প্রবল আকাঙ্ক্ষা রয়েছে এবং বোর্ডের পক্ষ থেকে ফের প্রোটিয়াদের নেতৃত্ব দেওয়ার বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হয়েছে আমাকে।’

তবে দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার বিষয়ে এখনই কিছু ভাবছেন না ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা এই ব্যাটসম্যান। এই মুহূর্তে কেবল আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ফেরার ওপরেই জোর দিচ্ছেন তিনি। ডি ভিলিয়ার্স জানিয়েছেন, যদি তার মনে হয় যে, তিনি যথেষ্ট ছন্দে আছেন, তবেই ভবিষ্যতে জাতীয় দলের জার্সিতে দেখা যাবে তাকে, ‘আমি অনেক দিন ধরে প্রোটিয়াদের সঙ্গে নেই। তাই আমার এবং আরও অনেকের জন্য এটা বিশ্লেষণ করে দেখা গুরুত্বপূর্ণ যে, আমি সেখানে (জাতীয় দলে) থাকার যোগ্য।’

‘আমার জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো, আমাকে সেরা ফর্মে থাকতে হবে এবং আমার পাশের খেলোয়াড়টির চেয়ে আমাকে ভালো অবস্থায় থাকতে হবে। যদি আমি মনে করি যে, আমি দলে জায়গা পাওয়ার যোগ্য, তাহলে এই ভাবনাটা আমার জন্য সহজ হয়ে যায় যে, আমি মূল একাদশের অংশ থাকব।’

চাপ নিতে পারছেন না এমন যুক্তি দেখিয়ে ২০১৮ সালের মে মাসে হঠাৎ করেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরে যান ডি ভিলিয়ার্স। যদিও বিশ্বের বিভিন্ন ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক টি-টোয়েন্টি আসরে নিয়মিত খেলে যাচ্ছেন তিনি। গেল কয়েক মাস ধরেই অবশ্য তার অবসরে ভেঙে জাতীয় দলে ফেরা নিয়ে জোর আলোচনা চলছে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে, চলতি বছরের অক্টোবরে অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলতে দেখা যাবে তাকে।

কিন্তু বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে ডি ভিলিয়ার্স ও দক্ষিণ আফ্রিকা বোর্ডের পরিকল্পনায় ব্যাঘাত ঘটতে পারে। কয়েক দিন আগে নিজ দেশের একটি দৈনিককে সাবেক প্রোটিয়া তারকা জানিয়েছেন দ্বিধায় পড়ে যাওয়ার কথা, ‘এই মুহূর্তে আমি ফিরতে প্রস্তুত। কিন্তু বিশ্বকাপ যদি পরের বছর চলে যায়, তাহলে বাস্তবতা পাল্টে যাবে। আমি জানি না তখন আমরার শরীর কতটা সাড়া দেবে, কতটা ফিট থাকব।’

Comments

The Daily Star  | English

44 lives lost to Bailey Road blaze

33 died at DMCH, 10 at the burn institute, and one at Central Police Hospital

8h ago