যথাসময়ে অস্ট্রেলিয়া সফরের জন্য কোয়ারেন্টিনে যেতেও রাজি কোহলিরা

এই সিরিজ থেকে তাদের ১৯৫ মিলিয়ন (১৯ কোটি ৫০ লাখ) ডলার আয় হবে বলে জানিয়েছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া।
kohli paine
ছবি: এএফপি

করোনাভাইরাসের কারণে ব্যাপক আর্থিক সংকটে পড়েছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ)। চলতি বছরের শেষ দিকে ভারতের বিপক্ষে নির্ধারিত সিরিজ মাঠে না গড়ালে তাদেরকে আরও বেকায়দায় পড়তে হবে। তবে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) এক কর্মকর্তা শুনিয়েছেন আশার বাণী। সময়মতো সিরিজ আয়োজনের জন্য দরকার হলে বিরাট কোহলির দল অস্ট্রেলিয়াতে দুই সপ্তাহ কোয়ারেন্টিনে থাকবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

আর্থিক দৈন্য কাটিয়ে উঠতে ভারতের বিপক্ষে ঘরের মাঠে চার ম্যাচের টেস্ট ও তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের দিকে তাকিয়ে আছে অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট বোর্ড। এই সিরিজ থেকে তাদের ১৯৫ মিলিয়ন (১৯ কোটি ৫০ লাখ) ডলার আয় হবে বলে জানিয়েছে সিএ। তাই পূর্ব নির্ধারিত সূচি অনুসারে আগামী ডিসেম্বর-জানুয়ারিতে কোহলিদের মোকাবিলা করতে চায় তারা।

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের প্রকোপের কারণে অজিদের পরিকল্পনা শেষ পর্যন্ত বাস্তবায়িত হবে কি-না তা নিয়ে রয়েছে যথেষ্ট উদ্বেগ। তবে বিসিসিআই কোষাধ্যক্ষ অরুণ ধুমাল মনে করছেন, যথাসময়ে অস্ট্রেলিয়া সফরে যাবে ভারত। কারণ অস্ট্রেলিয়ান বোর্ডকে সাহায্য করতে চান তারা। সেজন্য মাঠে নামার আগে ১৪ দিনের জন্য কোয়ারেন্টিনে যেতেও তৈরি থাকবেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা, ‘আর কোনো উপায় নেই। সবাইকে এটা করতে হবে। কারণ, ক্রিকেট আবার চালু করতে চাইবে সবাই।’

চার টেস্টের সিরিজকে পাঁচ টেস্টে উন্নীত করা যায় কি-না তা নিয়ে আলোচনা চলছে দুই দেশের বোর্ডের মধ্যে। তবে ধুমালের মতে, আর্থিক দিক বিবেচনা করলে সাদা পোশাকের লড়াইয়ের সীমিত ওভারের ক্রিকেট বেশি লাভজনক হবে, ‘যদি তখন ফাঁকা সময় থাকে, তবে দুই বোর্ড আরও একটি টেস্ট কিংবা দুটি ওয়ানডে কিংবা দুটি টি-টোয়েন্টি আয়োজন করার বিষয়ে আলাপ করতে পারে।

লকডাউনের কারণে তাদের (অস্ট্রেলিয়ান বোর্ডের) রাজস্ব হারানোর বিষয়টি মাথায় রেখে লকডাউন উঠে যাওয়ার পর তারা চাইবে বেশি বেশি রাজস্ব পেতে। আর টেস্টের চেয়ে ওয়ানডে বা টি-টোয়েন্টি থেকে বেশি রাজস্ব আসবে।’

Comments

The Daily Star  | English

MSC participation reflected Bangladesh's commitment to global peace: PM

Prime Minister Sheikh Hasina today said her participation at Munich Security Conference last week reflected Bangladesh's strong commitment towards peace, sovereignty, and overall global security

1h ago