পাটুরিয়া ফেরিঘাটে শ্রমজীবী মানুষের ঢল

কর্মস্থলে যোগ দিতে পাটুরিয়া ফেরিঘাটে আজ শনিবার সকাল থেকেই ঢাকামুখী শ্রমজীবী মানুষের ঢল। ফেরি পার হয়ে পাটুরিয়া ঘাটে এসে রিকশা, ভ্যান, মোটরসাইকেল, পিকআপ, ট্রাকসহ বিভিন্ন যানবাহনে চড়ে তাদের গন্তব্যে যেতে দেখা যায়। মুখে মাস্ক থাকলেও, ছিল না সামাজিক বা শারীরিক দূরত্ব। করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি নিয়েই তারা ছুটছেন কর্মস্থলে।
দেশের দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে ঢাকা ও আশেপাশের এলাকায় কাজে যোগ দিতে ফিরছেন শ্রমজীবী মানুষেরা। ছবি: স্টার

কর্মস্থলে যোগ দিতে পাটুরিয়া ফেরিঘাটে আজ শনিবার সকাল থেকেই ঢাকামুখী শ্রমজীবী মানুষের ঢল। ফেরি পার হয়ে পাটুরিয়া ঘাটে এসে রিকশা, ভ্যান, মোটরসাইকেল, পিকআপ, ট্রাকসহ বিভিন্ন যানবাহনে চড়ে তাদের গন্তব্যে যেতে দেখা যায়। মুখে মাস্ক থাকলেও, ছিল না সামাজিক বা শারীরিক দূরত্ব। করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি নিয়েই তারা ছুটছেন কর্মস্থলে।

তারা জানান, ঢাকা এবং আশেপাশের এলাকায় বিভিন্ন দোকানপাটে চাকরি করেন তারা। অনেক দিন বন্ধ থাকার পর আগামীকাল থেকে তাদের দোকানপাট খুলবে। কাজে যোগ দিতেই ফিরতে হচ্ছে তাদের। গণপরিবহন বন্ধ থাকায় অতিরিক্ত ভাড়া অন্যান্য যানবাহনে উঠতে হচ্ছে।

পথে পথে ভোগান্তির কথা জানিয়ে তারা বলেন, বাস চালু না থাকায় বিভিন্ন যানবাহনে, অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে আসতে হচ্ছে তাদের। খুলনা, যশোর, গোপালগঞ্জ, কুষ্টিয়া, মাদারীপুরসহ দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলার মানুষদের দৌলতদিয়া ঘাট পর্যন্ত কয়েকবার গাড়ি বদল করে আসতে হয়েছে। ফেরি পার হওয়ার পর পাটুরিয়া থেকে তাদের গন্তব্যে যেতে ৩ বার গাড়ি বদল করতে হয়। এসব গাড়িতে সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব রক্ষা করা সম্ভব নয় বলে জানান তারা।

মানিকগঞ্জ ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক মো. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথ ও ঢাকা- আরিচা মহাসড়কে ঢাকামুখী শ্রমজীবী মানুষের ভিড় সারাদিনই ছিল।

সরকারের নির্দেশনা মেনে পুলিশ সদস্যরা তাদের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করছেন। কোন ধরনের গণপরিবহন সড়কে চলাচল করতে দেওয়া হয়নি বলে জানান তিনি।

এদিকে, জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও নেজারত কালেক্টর (এনডিসি) মো. আকতার হোসেন ঢাকা- আরিচা মহাসড়কে মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ডে সকাল ৭-১০টা পর্যন্ত ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন।

নির্দেশনা না মেনে সড়কে গাড়ি বের করায় ১২টি মামলা করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

Comments

The Daily Star  | English

Hefty power bill to weigh on consumers

The government has decided to increase electricity prices by Tk 0.70 a unit which according to experts will predictably make prices of essentials soar yet again ahead of Ramadan.

21m ago