ইউরোপে ফুটবল ফেরার পথে বাধা বাড়ছে

সাম্প্রতিক সময়ে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব কিছুটা কমায় ইউরোপের প্রায় সব দেশেই সীমিত করা হচ্ছে লকডাউন। জনজীবনও কিছুটা সচল হচ্ছে। মাঠে ফুটবল ফেরার আশা বাড়ছে। অনুশীলন চলছে অনেক দেশে। কিন্তু তারপরও বাধা দাঁড়াচ্ছে সেই করোনাভাইরাস। কারণ এখনও সম্পূর্ণ নিরাময় সম্ভব হয়নি। তাই নতুন করে আক্রান্ত হচ্ছেন খেলোয়াড়রা।
ফাইল ছবি: এএফপি

সাম্প্রতিক সময়ে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব কিছুটা কমায় ইউরোপের প্রায় সব দেশেই সীমিত করা হচ্ছে লকডাউন। জনজীবনও কিছুটা সচল হচ্ছে। মাঠে ফুটবল ফেরার আশা বাড়ছে। চলছে খেলোয়াড়দের অনুশীলন। কিন্তু তারপরও বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে সেই করোনাভাইরাস। কারণ এ ভাইরাস এখনও সম্পূর্ণ নিরাময় সম্ভব হয়নি। তাই নতুন করে আক্রান্ত হচ্ছেন খেলোয়াড়রা।

আগামী ১৬ মে থেকে ফের ফুটবল মাঠে গড়ানোর সব কার্যক্রম সেরে ফেলেছে জার্মান বুন্ডেসলিগা কর্তৃপক্ষ। ১২ জুন থেকে স্পেনেও ফুটবল মাঠে ফেরানোর ঘোষণা দিয়েছেন লা লিগা প্রেসিডেন্ট হ্যাভিয়ের তেভাজ। ফেরার লক্ষ্যে ইতালিতে নিয়মিত অনুশীলন করছেন খেলোয়াড়রা। ইংল্যান্ডে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ শুরুর জন্যও তোড়জোড় চলছে। কিন্তু আবারো কি মাঠে ফুটবল ফেরানো সম্ভব হবে?

গত শুক্রবার দলের সকল খেলোয়াড়কে কোয়ারেন্টিনে পাঠিয়েছে বুন্ডেসলিগা ২'এর ক্লাব ডায়নামো ড্রেসডেন। কারণ খেলোয়াড়দের করোনাভাইরাস পরীক্ষা করার পর সেখানে নতুন দুই খেলোয়াড়ের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছেন। যে কারণে পুরো দলকে বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিনে যেতে হয়েছে। থাকতে হবে ১৪ দিন। এছাড়া এফসি কয়িঁ ও এফসি এরজগেবিরগে উয়ের খেলোয়াড়সহ মতো ১০ জন আক্রান্ত আছেন জার্মানিতে।

নতুন করে আক্রান্তের খবর এসেছে স্পেন থেকেও। শীর্ষ দুই লিগের পাঁচ জন ফুটবলারের করোনাভাইরাস পরীক্ষার ফল পজিটিভ এসেছেন। যদিও তাদের কারও মধ্যে উপসর্গ দেখা যায়নি। আক্রান্তদের বর্তমানে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। পরে টানা দুইবার করোনাভাইরাস পরীক্ষার ফল নেগেটিভ হলেই কেবল তারা পুনরায় অনুশীলনে যোগ দিতে পারবেন। এছাড়া অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ, রিয়াল সোসিয়েদাদ, রিয়াল বেটিস ও গ্রানাদার খেলোয়াড়র আরও পাঁচ জন খেলোয়াড় কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত আগে থেকেই।

করোনাভাইরাস হানা দিয়েছে ইংলিশ লিগেও। ব্রাইটনের প্রধান নির্বাহী পল বারবার গতকাল নিশ্চিত করেছেন, রোববার দলের তৃতীয় কোনো খেলোয়াড় করোনাভাইরাস পরীক্ষায় পজিটিভ এসেছেন। যা নিঃসন্দেহে ইংলিশ ফের শুরুর পথে বড় অন্তরায়।

ইতালিতে অবশ্য এখন পর্যন্ত নতুন করে কোনো খেলোয়াড় আক্রান্ত হননি। তবে এখনও পুরনো ১১ জন খেলোয়াড় কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত। এরমধ্যে ফিওরেন্টিনার ৪ জন, সাম্পাদিয়ার ৪ জন ও তোরিনোর ৩ জন রয়েছে। যদিও অনুশীলন চলছে খেলোয়াড়দের। যদিও এখনও ব্যক্তিগত পর্যায়ে অনুশীলন চলছে। আগামী ১৮ মে থেকে শুরু হবে দলীয় অনুশীলন।

পর্তুগাল থেকে নতুন করে ভিক্টোরিয়া এসসি ৩ জনের আক্রান্ত হওয়ার খবর মিলেছে। তুরস্কেও আক্রান্ত হয়েছেন ২ জন। এছাড়া অনেক খেলোয়াড়ই মাঠে ফিরতে ভয় পাচ্ছেন বলেও জানিয়েছেন বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে। ফলে ফের ফুটবল শুরু নিয়ে সন্দেহ থাকছেই।

জার্মান ফুটবল লিগের (ডিএফএল) প্রধান নির্বাহী ক্রিস্তিয়ান সেইফের্ট জানিয়েছেন নির্দিষ্ট সময়েই শুরু হবে লিগ। সেক্ষেত্রে নতুন সূচিতে ড্রেসডেনের প্রথম দুটি ম্যাচ হবে পরবর্তী কোনো সময়ে। স্পেন থেকেও নেতিবাচক কোনো সংবাদ আসেনি। ইংলিশ লিগ কর্তৃপক্ষ আগামী ব্রাইটনের তিন খেলোয়াড় করোনা পজিটিভ হওয়ায় আজ সোমবার আলোচনায় বসবে। সিদ্ধান্ত হয়তো আসতে পারে আজই। কিন্তু সবমিলিয়ে লিগ শুরুর আগে বেশ ঝক্কি পোহাতে হচ্ছে লিগ কর্তৃপক্ষকে।

Comments

The Daily Star  | English

Economy with deep scars limps along

Business and industrial activities resumed yesterday amid a semblance of normalcy after a spasm of violence, internet outage and a curfew that left deep wounds in almost all corners of the economy.

3h ago