বরিশালে নদ-নদীর পানি বিপৎসীমার ওপরে

বরিশাল বিভাগের প্রায় সব নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে এবং এরই মধ্যে কয়েকটি বিপৎসীমা অতিক্রম করেছে বলে নিশ্চিত করেছেন বরিশাল বিভাগীয় কমিশনার মো. ইয়ামিন চৌধুরী।
ছবি: স্টার

বরিশাল বিভাগের প্রায় সব নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে এবং এরই মধ্যে কয়েকটি বিপৎসীমা অতিক্রম করেছে বলে নিশ্চিত করেছেন বরিশাল বিভাগীয় কমিশনার মো. ইয়ামিন চৌধুরী।

তিনি দ্য ডেইলি স্টারকে জানান, ভোলা, পটুয়াখালী ও বরগুনার নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

বরগুনা জেলার পায়রা, বলেশ্বর ও বিশখালী নদী, ভোলার মেঘনা, পটুয়াখালীর বুড়া গৌরাঙ্গ নদী, লোহালিয়া, রামনবাদ ও বরিশালের কীর্তনখোলা বুড়িশ্বর নদীর পানি ইতোমধ্যে বিপৎসীমা অতিক্রম করে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত করেছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো), ভোলা -২ সার্কেলের নির্বাহী প্রকৌশলী হাসান মাহমুদ জানিয়েছেন, মেঘনা নদী দৌলতখান পয়েন্টে বিপৎসীমার ৩২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। মনপুরা পয়েন্টে মেঘনা নদী বিপজ্জনকভাবে প্রবাহিত হলেও বিপৎসীমা তিনি জানাতে পারেননি।

পাউবো, পটুয়াখালী সার্কেলের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. হাসানুজ্জামান জানান, লোহালিয়া, পায়রা, বুড়া গৌরাঙ্গা নদী, রামনাবাদ নদী ইতোমধ্যে বিপৎসীমার ২.৮৫ মিটারের বেশি ১৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বরগুনা জেলার পায়রা, বলেশ্বর এবং বিষখালী বিপৎসীমা অতিক্রম করে নিচু এলাকা প্লাবিত করেছে।

বরিশাল জেলার কীর্তনখোলা ও বুড়িশ্বর নদীর পানি বিপৎসীমার ৩ সে.মি. ওপরে প্রবাহিত হচ্ছে বলে জানিয়েছে বরিশাল জেলা প্রশাসন।

এদিকে, প্লাবিত এলাকা থেকে মানুষদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়া হয়েছে বলে বরিশাল বিভাগীয় কমিশনার মুহাম্মদ ইয়ামিন চৌধুরী নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বাঁধ ভেঙে দুএকটি নিচু এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

 

Comments