করোনাভাইরাস

বিশ্বে আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ লাখ ছাড়াল, মৃত্যু ৩ লাখ ২৮ হাজার

বিশ্বব্যাপী নতুন করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা প্রতিনিয়তই বাড়ছে। ইতোমধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ লাখ ছাড়িয়েছে। মারা গেছেন ৩ লাখ ২৮ হাজারের বেশি মানুষ। এ ছাড়া, সুস্থও হয়েছেন প্রায় ১৯ লাখ মানুষ।
জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটির করোনাভাইরাস রিসোর্স সেন্টারের তথ্য।

বিশ্বব্যাপী নতুন করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা প্রতিনিয়তই বাড়ছে। ইতোমধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ লাখ ছাড়িয়েছে। মারা গেছেন ৩ লাখ ২৮ হাজারের বেশি মানুষ। এ ছাড়া, সুস্থও হয়েছেন প্রায় ১৯ লাখ মানুষ।

আজ বৃহস্পতিবার জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটির করোনাভাইরাস রিসোর্স সেন্টার এ তথ্য জানিয়েছে।

জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটির সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৫০ লাখ ৩৮ জন এবং মারা গেছেন ৩ লাখ ২৮ হাজার ১৭২ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ১৮ লাখ ৯৯ হাজার ৩৫০ জন।

একবিংশ শতাব্দীতে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় মহামারি কোভিড-১৯। গত ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের উহান শহরে প্রথম করোনাভাইরাসটির সংক্রমণ ঘটে। প্রায় আড়াই মাসের মধ্যে গত ৩ এপ্রিল বিশ্বজুড়ে আক্রান্তের সংখ্যা ১০ লাখ ছাড়ায়। এর দেড় মাসের মধ্যেই আরও ৪০ লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ লাখ ছাড়াল।

করোনাভাইরাসে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১৫ লাখ ৫১ হাজার ৮৫৩ জন এবং মারা গেছেন ৯৩ হাজার ৪৩৯ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ২ লাখ ৯৪ হাজার ৩১২ জন।

যুক্তরাষ্ট্রের পর সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত রয়েছে রাশিয়ায়। সেখানে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লাখ ৮ হাজার ৭০৫ জন এবং মারা গেছেন ২ হাজার ৯৭২ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ৮৫ হাজার ৩৯২ জন।

যুক্তরাষ্ট্রের পর এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা গেছেন যুক্তরাজ্যে। দেশটিতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ৩৫ হাজার ৭৮৬ জন মারা গেছেন। আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৪৯ হাজার ৬১৯ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ১১৬ জন।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ছে দক্ষিণ আমেরিকার দেশ ব্রাজিলেও। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৯১ হাজার ৫৭৯ জন, মারা গেছেন ১৮ হাজার ৮৫৯ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ১৬ হাজার ৬৮৩ জন।

এ ছাড়া, ইউরোপের দেশ স্পেনে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৩২ হাজার ৫৫৫ জন, মারা গেছেন ২৭ হাজার ৮৮৮ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৫০ হাজার ৩৭৬ জন। ইতালিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ২৭ হাজার ৩৬৪ জন, মারা গেছেন ৩২ হাজার ৩৩০ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৩২ হাজার ২৮২ জন। ফ্রান্সে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৮১ হাজার ৭০০ জন, মারা গেছেন ২৮ হাজার ১৩৫ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৬৩ হাজার ৪৭২ জন। জার্মানিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৭৮ হাজার ৪৭৩ জন, মারা গেছেন ৮ হাজার ১৪৪ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৫৬ হাজার ৯৬৬ জন।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ইরানে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ২৬ হাজার ৯৪৯ জন, মারা গেছেন ৭ হাজার ১৮৩ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৯৮ হাজার ৮০৮ জন। তুরস্কে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৫২ হাজার ৫৮৭ জন, মারা গেছেন ৪ হাজার ২২২ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ১৩ হাজার ৯৮৭ জন।

প্রতিবেশী দেশ ভারতে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ১২ হাজার ৪৪২ জন, মারা গেছেন ৩ হাজার ৪৩৮ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৪৫ হাজার ৪২২ জন।

ভাইরাসটির সংক্রমণস্থল চীনে আক্রান্ত হয়েছেন ৮৪ হাজার ৬৩ জন, মারা গেছেন ৪ হাজার ৬৩৮ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৭৯ হাজার ৩১০ জন।

উল্লেখ্য, গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)। প্রতিষ্ঠানটির সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, দেশে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ২৬ হাজার ৭৩৮ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। মারা গেছেন ৩৮৬ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ৫ হাজার ২০৭ জন।

Comments

The Daily Star  | English

To Europe Via Libya: A voyage fraught with peril

An undocumented Bangladeshi migrant worker choosing to enter Europe from Libya, will almost certainly be held captive by armed militias, tortured, and their families extorted for lakhs of taka.

8h ago