ক্রিকেট ফেরাতে আইসিসির কড়া নির্দেশিকায় যা আছে

ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট মাঠে ফেরানো নিয়ে ভাবছে আইসিসিও। এজন্য তারা তৈরি করেছে বিশেষ নির্দেশিকা।

করোনাভাইরাসের প্রকোপ শুরুর পর থেকেই বন্ধ আছে মাঠের ক্রিকেট। ইংল্যান্ড বাদে বন্ধ বাকি সব দলের অনুশীলনও। স্থবিরতা কাটাতে আরও অনেক দেশই তোড়জোড় শুরু করেছে। ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট মাঠে ফেরানো নিয়ে ভাবছে আইসিসিও। এজন্য তারা তৈরি করেছে বিশেষ নির্দেশিকা।

শুক্রবার সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সংস্থা জানিয়েছে, সদস্য দেশগুলোর চিকিৎসক প্রতিনিধিদের সঙ্গে মিলে আইসিসির মেডিকেল কমিটি এই গাইডলাইন তৈরি করেছে। তিনটি ধাপে ক্রিকেটে ফেরানোর কথা বলেছে আইসিসি। এগুলো হলো যথাক্রমে অনুশীলন, খেলা ও ভ্রমণ।

আইসিসির গাইডলাইনে আছে বেশ কিছু কড়া নির্দেশনা। প্রথমেই প্রতি দলে একজন করে চিকিৎসা বিশেষজ্ঞ বা স্বাস্থ্য নিরাপত্তা কর্মকর্তা রাখার কথা বলা হয়েছে। অনুশীলনে খেলোয়াড়রা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে কি-না তা নিশ্চিত করবেন তিনি। সংশ্লিষ্ট দেশের সরকারের স্বাস্থ্য বিষয়ক নির্দেশনা মেনে চলার ব্যাপারটাও তিনি দেখভাল করবেন।

অনুশীলন শুরু করতে হবে চার ভাগে। প্রথম ভাগে অবশ্যই গুরুত্ব দিতে হবে পেস বোলারদের। ম্যাচের সময়ও কী করা যাবে, কী করা যাবে না তা নিয়েও বিশদ ব্যাখ্যা আছে সংস্থাটির। তবে প্রতিটি দলকেই সংশ্লিষ্ট দেশের সরকারের স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

মূলত যা থাকছে আইসিসির নির্দেশনায়-

- দলের সঙ্গে বিশেষজ্ঞ রাখতে হবে। নিয়মিতভাবে ক্রিকেটারসহ দলের সবার শরীরের তাপমাত্রা মাপতে হবে।

- ম্যাচের আগে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করতে হবে। সম্ভব হলে ম্যাচের আগে ও পরে খেলোয়াড়দের করোনাভাইরাস পরীক্ষা করতে হবে।

- প্রতি খেলোয়াড়ের কিটব্যাগের সব সরঞ্জাম ব্যবহারের আগে ও পরে স্যানিটাইজার দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে। একজনের সরঞ্জাম অন্য কারও ব্যবহার করা বন্ধ করতে হবে।

- ছোট ছোট গ্রুপে অনুশীলন চালাতে হবে। একজনের সঙ্গে আরেকজনের ৩ ফুট দূরত্ব বজায় রাখার চেষ্টা করতে হবে।

- আম্পায়ারদের গ্লাভস পরে ম্যাচ পরিচালনা করতে হবে।

- ওভারের মাঝে আম্পায়ারকে টুপি, সোয়েটার, রুমাল জমা দেওয়া বন্ধ করতে হবে।

Comments