চলে গেলেন সাবেক ফুটবলার গোলাম রব্বানী

সাবেক ফুটবলার ও ঢাকা আবাহনী লিমিটেডের পরিচালক গোলাম রব্বানী হেলাল আর নেই। মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ জনিত কারণে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে আশির দশকে ঢাকার ফুটবলে ঝলক দেখানোর এই মিডফিল্ডারের।
Golam Rabbani helal

সাবেক ফুটবলার ও ঢাকা আবাহনী লিমিটেডের পরিচালক গোলাম রব্বানী হেলাল আর নেই। মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ জনিত কারণে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে আশির দশকে ঢাকার ফুটবলে ঝলক দেখানোর এই মিডফিল্ডারের।

শনিবার দুপুর ১১টা ৫০ মিনিটে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে এই কীর্তি ফুটবলার মারা যান, যেখানে তিনি গত দুদিন ধরেই ছিলেন লাইফ সাপোর্টে। তাঁর ভাইপো গোলাম কাইফ দ্য ডেইলি স্টারকে মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে জানান অবস্থা খারাপ হতে থাকায় চিকিৎসকদের কাছ থেকেই আভাস মিলছিল খারাপ কিছুর,  ‘আজ ১১টা ৫০ মিনিটে মারা গেছেন। হার্টের পালস আর পাওয়া যাচ্ছিল না। অবস্থা কালকেই খারাপ হয়ে গিয়েছিল। চিকিৎসকরা বলে দিয়েছিলেন খারাপ খবরের জন্য প্রস্তুত হতে।'

৬৭ বছর বয়েসী হেলাল মৃত্যুকালে স্ত্রী ও দুই কন্যা সন্তান রেখে গেছেন। তাঁর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। বাফুফের নির্বাহী কমিটির সদস্য হিসেবেও কাজ করেছেন হেলাল। তবে সব ছাপিয়ে তার ফুটবলার পরিচয়টাই বেশি ঝলমলে।  

১৯৭৯ থেকে ১৯৮৫ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ জাতীয় দলের হয়ে খেলেছেন মিডফিল্ডার হেলাল। ছিলেন আবাহনী লিমিটেডের ঘরের ছেলে। ১৯৭৫- ১৯৮৮ পর্যন্ত প্রায় একটানা আকাশী নীল জার্সিতে খেলতে দেখা গেছে। ওই সময় একবার খুব অল্প সময়ের জন্য খেলেছিলেন বিজেএমসিতে।

১৯৮২ সালে মোহামেডানের সঙ্গে আলোচিত ম্যাচে উত্তাপময় ম্যাচে জেলে যেতে হয়েছিল চার তারকা ফুটবলারকে। হেলাল ছিলেন তাদের একজন। বাকি তিনজন হলেন কাজী মো. সালাউদ্দিন, আশরাফ উদ্দিন চুন্নু ও কাজী আনোয়ার।

খেলা ছাড়ার পর সংগঠক হিসেবে আমৃত্যু জড়িয়ে ছিলেন ঢাকা আবাহনী লিমিটেডের সঙ্গে।

Comments

The Daily Star  | English

Death came draped in smoke

Around 11:30pm, there were murmurs of one death. By then, the fire had been burning for over an hour.

8h ago