যুক্তরাষ্ট্র রণক্ষেত্র: ২৫ শহরে কারফিউ, নিহত ১, গুলিবিদ্ধ ৩

পুলিশ হেফাজতে কৃষ্ণাঙ্গ আফ্রো-আমেরিকান জর্জ ফ্লয়েড হত্যার বিচারের দাবিতে যুক্তরাষ্ট্রের বেশিরভাগ শহর রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেই অন্তত ৩০টি শহরে ছড়িয়ে পড়েছে সহিংস বিক্ষোভ। জায়গায় জায়গায় জ্বলছে আগুন।
MINNEAPOLIS-POLICE-PROTESTS-NEW-YORK.jpg
নিউইয়র্কে বিক্ষোভ চলাকালে পুলিশের দিকে বিস্ফোরক ছুড়ে মারা হয়। ছবি: রয়টার্স

পুলিশ হেফাজতে কৃষ্ণাঙ্গ আফ্রো-আমেরিকান জর্জ ফ্লয়েড হত্যার বিচারের দাবিতে যুক্তরাষ্ট্রের বেশিরভাগ শহর রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেই অন্তত ৩০টি শহরে ছড়িয়ে পড়েছে সহিংস বিক্ষোভ। জায়গায় জায়গায় জ্বলছে আগুন।

সিএনএন জানিয়েছে, ইতোমধ্যে ১৬টি অঙ্গরাজ্যের ২৫টি শহরে কারফিউ জারি করা হয়েছে। ১২টির মতো অঙ্গরাজ্যে মোতায়েন করা হয়েছে জাতীয় নিরাপত্তা বাহিনী। তারপরও দফায় দফায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত হচ্ছেন জনতা। জলকামান ও রাবার বুলেট ছুড়েও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারছে না পুলিশ।

ইন্ডিয়ানাপোলিসে শনিবার রাতে বিক্ষোভ চলাকালে একজন নিহত এবং তিন জন গুলিবিদ্ধ হওয়ার তথ্য জানিয়েছেন রাজ্য পুলিশ প্রধান র‌্যান্ডাল টেইলর।

অনেক শহরেই লুটপাট শুরু হয়েছে। পুলিশের গাড়ি ও ফাঁড়িতে আগুন ধরিয়ে দিচ্ছেন বিক্ষুব্ধ জনতা। এখন পর্যন্ত কয়েকশ বিক্ষোভকারীকে আটক করেছে পুলিশ।

বিক্ষোভকারীদের দাবি, জর্জ ফ্লয়েড হত্যাকাণ্ডে ঘটনাস্থলে উপস্থিত চার পুলিশ কর্মকর্তার প্রত্যেকের বিরুদ্ধে ‘হত্যার অভিযোগ’ আনতে হবে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এই হত্যাকাণ্ডের যথাযথ নিষ্পত্তি চাইলেও বিক্ষোভকারীদের আধিপত্য বিস্তার করতে দেবেন না বলে জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন:

হত্যার দায়ে মার্কিন পুলিশ কর্মকর্তা আটক

জাস্টিস ফর ফ্লয়েড: উত্তাল মিনিয়াপোলিস, সিএনএনের সাংবাদিক আটক

Comments

The Daily Star  | English

FBI confirms 'assassination attempt' on Donald Trump

As the shots rang out, Trump grabbed his right ear with his right hand, then brought his hand down to look at it before dropping to his knees behind the podium before Secret Service agents swarmed and covered him

1h ago