করোনাভাইরাস

মৃত্যু ৪ লাখ ৩৩ হাজার, আক্রান্ত ৭৯ লাখের বেশি

বিশ্বব্যাপী প্রতিনিয়ত মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ছে। ইতোমধ্যে চার লাখ ৩৩ হাজারেরও বেশি মানুষ মারা গেছেন। আক্রান্ত হয়েছেন ৭৯ লাখের বেশি। এ ছাড়া, সুস্থও হয়েছেন সাড়ে ৩৭ লাখের বেশি মানুষ।
নিউজার্সিতে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবকালীন এক রোগীকে অ্যাম্বুলেন্সে তুলছেন ইমারজেন্সি মেডিকেল টেকনিশিয়ানরা। ১৯ মে ২০২০। ছবি: রয়টার্স

বিশ্বব্যাপী প্রতিনিয়ত মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ছে। ইতোমধ্যে চার লাখ ৩৩ হাজারেরও বেশি মানুষ মারা গেছেন। আক্রান্ত হয়েছেন ৭৯ লাখের বেশি। এ ছাড়া, সুস্থও হয়েছেন সাড়ে ৩৭ লাখের বেশি মানুষ।

আজ সোমবার জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটির করোনাভাইরাস রিসোর্স সেন্টার এ তথ্য জানিয়েছে।

জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটির সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৭৯ লাখ ৯২৪ জন এবং মারা গেছেন ৪ লাখ ৩৩ হাজার ৬৬ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ৩৭ লাখ ৬৯ হাজার ৭১২ জন।

করোনাভাইরাসে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২০ লাখ ৯৪ হাজার ৫৮ জন এবং মারা গেছেন ১ লাখ ১৫ হাজার ৭৩২ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ৫ লাখ ৬১ হাজার ৮১৬ জন।

যুক্তরাষ্ট্রের পর সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু দক্ষিণ আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ৮ লাখ ৬৭ হাজার ৬২৪ জন, মারা গেছেন ৪৩ হাজার ৩৩২ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৪ লাখ ৬৯ হাজার ১৪১ জন।

মৃত্যুর সংখ্যার দিক থেকে তৃতীয়তে রয়েছে যুক্তরাজ্য। দেশটিতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ৪১ হাজার ৭৮৩ জন মারা গেছেন। আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৯৭ হাজার ৩৪২ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ২৮৩ জন।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ছে রাশিয়া ও পেরুতেও। রাশিয়ায় এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৫ লাখ ২৮ হাজার ২৬৭ জন এবং মারা গেছেন ৬ হাজার ৯৩৮ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ২ লাখ ৭৯ হাজার ৫৩৬ জন। পেরুতে আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ২৯ হাজার ৭৩৬ জন এবং মারা গেছেন ৬ হাজার ৬৮৮ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ১৫ হাজার ৫৭৯ জন।

প্রতিবেশী দেশ ভারতে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লাখ ২০ হাজার ৯২২ জন, মারা গেছেন ৯ হাজার ১৯৫ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৬২ হাজার ৩৭৯ জন।

ইউরোপের দেশ স্পেনে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৪৩ হাজার ৯২৮ জন, মারা গেছেন ২৭ হাজার ১৩৬ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৫০ হাজার ৩৭৬ জন। ইতালিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৩৬ হাজার ৯৮৯ জন, মারা গেছেন ৩৪ হাজার ৩৪৫ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৭৬ হাজার ৩৭০ জন। ফ্রান্সে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৯৪ হাজার ১৫৩ জন, মারা গেছেন ২৯ হাজার ৪১০ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৭২ হাজার ৯৮২ জন। জার্মানিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৮৭ হাজার ৫১৮ জন, মারা গেছেন ৮ হাজার ৮০১ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৭২ হাজার ৮৯ জন।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ইরানে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৮৭ হাজার ৪২৭ জন, মারা গেছেন ৮ হাজার ৮৩৭ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৪৮ হাজার ৬৭৪ জন। তুরস্কে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৭৮ হাজার ২৩৯ জন, মারা গেছেন ৪ হাজার ৮০৭ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৫১ হাজার ৪১৭ জন।

ভাইরাসটির সংক্রমণস্থল চীনে আক্রান্ত হয়েছেন ৮৪ হাজার ৩৩৫ জন, মারা গেছেন ৪ হাজার ৬৩৮ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৭৯ হাজার ৪৮২ জন।

উল্লেখ্য, গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)। প্রতিষ্ঠানটির সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, দেশে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ৮৭ হাজার ৫২০ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। মারা গেছেন ১ হাজার ১৭১ জন। এ ছাড়া, সুস্থ হয়েছেন ১৮ হাজার ৭৩০ জন।

Comments

The Daily Star  | English
Dhaka Airport Third Terminal: 3rd terminal to open partially in October

HSIA’s terminal-3 to open in Oct

The much anticipated third terminal of the Dhaka airport is likely to be fully ready for use in October, enhancing the passenger and cargo handling capacity.

9h ago