করোনা আপডেট: ময়মনসিংহ, নোয়াখালী, ফেনী, ফরিদপুর, ঠাকুরগাঁও

ময়মনসিংহ বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৬২ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। অন্যদিকে নোয়াখালীতে চিকিৎসক, ব্যাংকার, বিজিবি সদস্যের পরিবারসহ আরও ৬২ জন, ফেনীতে এক সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ১১ পুলিশ সদস্যসহ আরও ৪৯ জন, ফরিদপুরে চিকিৎসক, নার্স ও চার পুলিশসহ ৬১ জন ও ঠাকুরগাঁওয়ে ছয় জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।
Corona BD.jpg
প্রতীকী ছবি। সংগৃহীত

ময়মনসিংহ বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৬২ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। অন্যদিকে নোয়াখালীতে চিকিৎসক, ব্যাংকার, বিজিবি সদস্যের পরিবারসহ আরও ৬২ জন, ফেনীতে এক সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ১১ পুলিশ সদস্যসহ আরও ৪৯ জন, ফরিদপুরে চিকিৎসক, নার্স ও চার পুলিশসহ ৬১ জন ও ঠাকুরগাঁওয়ে ছয় জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। দ্য ডেইলি স্টার স্থানীয় সংবাদদাতারা এ সব তথ্য জানিয়েছেন।

ময়মনসিংহ বিভাগে আরও ১৬২ জনের করোনা শনাক্ত

ময়মনসিংহ বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৬২ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে, ময়মনসিংহ জেলায় শনাক্ত হয়েছে একদিনে সর্বোচ্চ ১১৮ জন, জামালপুরে ছয় জন, শেরপুরে সাত জন ও নেত্রকোনা জেলায় ১৮ জন।

ময়মনসিংহ বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. মো. আবুল কাশেম আজ মঙ্গলবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, এ নিয়ে বিভাগে মোট আক্রান্ত ২০০৫ জনের মধ্যে ময়মনসিংহ জেলায় ১০৫৯ জন, জামালপুর জেলায় ৪১৬ জন, নেত্রকোনা জেলায় ৩৪৭ জন এবং শেরপুর জেলায় ১৮৩ জন হলো। আক্রান্তদের মধ্যে ১০৭ জন চিকিৎসক ও ১০৮ নার্সসহ ৪৪৮ জন স্বাস্থ্যকর্মী রয়েছেন বলেও জানান তিনি।

তিনি আরও জানান, এ পর্যন্ত বিভাগে করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২১ জন। তার মধ্যে ময়মনসিংহ জেলায় ১১ জন, জামালপুর জেলায় পাঁচ জন, নেত্রকোনা জেলায় তিন জন ও শেরপুর জেলায় রয়েছেন দুই জন। চার জেলায় এ পর্যন্ত ৫৮৮ জন সুস্থ হয়েছেন বলেও জানান ডা. মো. আবুল কাশেম।

এ দিকে, ময়মনসিংহের সিভিল সার্জন ডা. এবিএম মশিউল আলম জানান, জেলায় শনাক্ত ১১৮ জনের মধ্যে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এক চিকিৎসক ও এক স্বাস্থ্যকর্মী এবং র‌্যাব-১৪ এর চার সদস্য রয়েছেন। জেলার সদর উপজেলায় ৫২ জন, মুক্তাগাছায় ১৪ জন, ঈশ্বরগঞ্জে ১৭ জন, হালুয়াঘাটে নয় জন, গৌরীপুর চার জন, ভালুকায় নয় জন, ফুলবাড়ীয়ায় তিন জন ও নান্দাইলে আট জনের করোনা শনাক্ত হয়। এ নিয়ে জেলায় এ পর্যন্ত এক হাজার ৫৯ জনের করোনা শনাক্ত হলো।

নোয়াখালীতে চিকিৎসক ও ব্যাংকারসহ আরও ৬২ জনের করোনা শনাক্ত

নোয়াখালীতে চিকিৎসক, ব্যাংকার, বিজিবি সদস্যের পরিবারসহ আরও ৬২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হল এক হাজার ৪৩৮ জন।

জেলা সিভিল সার্জন ডা. মাসুম ইফতেখার আজ মঙ্গলবার বিকেলে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, নতুন শনাক্তদের মধ্যে সদর উপজেলায় ১৬ জন, বেগমগঞ্জে ২১ জন, সোনাইমুড়ীতে ১১ জন, সেনবাগে আট জন, কবিরহাটে তিন জন ও সুবর্ণচরে তিন জন রয়েছেন।

তিনি আরও জানান, জেলায় মোট আক্রান্ত এক হাজার ৪৩৮ জনের মধ্যে সদর উপজেলায় ৪৩৯ জন, সুবর্ণচরে ৪৩ জন, হাতিয়ায় ১০ জন, বেগমগঞ্জে ৫৪৮ জন, সোনাইমুড়ীতে ৮৫ জন, চাটখিলে ১০২ জন, সেনবাগে ৮৩ জন, কোম্পানীগঞ্জে ২৭ জন ও কবিরহাটে ১০১ জন আক্রান্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৭২ জন। আর, জেলায় এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৩৬ জন।

সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করোনা ফোকাল পার্সন ডা. নিলিমা ইয়াছমিন জানান, সদর উপজেলায় নতুন শনাক্ত ১৬ জনের মধ্যে একজন ব্যাংকার ও এক বিজিবি সদস্যের পরিবারের দুই জন রয়েছেন।

বেগমগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. অসীম কুমার দাস জানান, উপজেলায় নতুন শনাক্ত ২১ জনের মধ্যে উত্তরা ব্যাংক বেগমগঞ্জ চৌরাস্তা শাখার শাখা ব্যবস্থাপকসহ চার কর্মকর্তা ও একজন চিকিৎসক রয়েছেন।

সেনবাগ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করোনা ফোকাল পার্সন ডা. নির্ণয় পাল জানান, সোনালী ব্যাংকের দুই কর্মকর্তা ও এক শিক্ষার্থীসহ উপজেলায় আরও আট জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

ফেনীতে এসি (ল্যান্ড), পুলিশসহ আরও ৪৯ জনের করোনা শনাক্ত

ফেনীতে একজন সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ১১ পুলিশ সদস্যসহ নতুন করে আরও ৪৯ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৫৬৩ জনে।

জেলা সিভিল সার্জন (ভারপ্রাপ্ত) এসএম মাসুদ রানা আজ মঙ্গলবার দুপুরে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, নতুন আক্রান্ত ৪৯ জনের মধ্যে ছাগলনাইয়া উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি), ফেনী সদরের ১১ পুলিশ সদস্যসহ ২৫ জন, সোনাগাজী উপজেলায় ১৩ জন, দাগনভূঁঞা উপজেলায় আট জন ও ফুলগাজী উপজেলার দুই জন আক্রান্ত হয়েছেন।

তিনি আরও জানান, জেলায় এ পর্যন্ত আক্রান্ত ৫৬৩ জনের মধ্যে ফেনী সদর উপজেলার আছেন ১৯৩ জন, দাগনভূঁঞার ১২৭ জন, ছাগলনাইয়ায় ৬৪ জন, সোনাগাজীতে ১০২ জন, পরশুরামে ২৮ জন ও ফুলগাজীতে ৩১ জন। তাদের মধ্যে ১১ জন মারা গেছেন ও সুস্থ হয়েছেন ১১৯ জন।

ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন এসএম মাসুদ রানা জানান, করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে জেলার তিন উপজেলার ৮টি এলাকা গত বৃহস্পতিবার থেকে লকডাউন করা হয়েছে। তিনি বলেন, ঈদের সময় বিভিন্ন জেলা থেকে অনেকেই বাড়িতে এসে অবাধে চলাফেরা করেছে। এতে সংক্রমন বেড়েছে।

যোগাযোগ করা হলে জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুজ্জামান জানান, মানুষ যাতে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলেন, সেজন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে নানা ধরনের কাজ করা হচ্ছে। প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও স্বাস্থ্য বিভাগ ঝুঁকি নিয়েই কাজ করে যাচ্ছেন। এরমধ্যে স্বাস্থ্য বিভাগ ও পুলিশের বেশ কিছু লোক আক্রান্ত হয়েছে। স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার জন্য বিভিন্ন এলাকায় নিয়মিত অভিযান চালানো হচ্ছে।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, গত দুই মাসে জেলা থেকে চার হাজার ২২ জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য চট্টগ্রাম ও নোয়াখালী পাঠানো হয়। আজ মঙ্গলবার পর্যন্ত দুই হাজার ৯৯৯ জনের নমুনা পরীক্ষার প্রতিবেদন পাওয়া গেছে। এক হাজার ২১ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য জমা রয়েছে।

ফরিদপুরে চিকিৎসক, নার্স ও পুলিশসহ আরও ৬১ জনের করোনা শনাক্ত

ফরিদপুরে চিকিৎসক, নার্স ও চার পুলিশসহ আরও ৬১ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় এ পর্যন্ত ৮৫০ জনের করোনা শনাক্ত হলো। জেলা সিভিল সার্জন মো. ছিদ্দীকুর রহমান আজ মঙ্গলবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের একজন চিকিৎসক ও একজন নার্সের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ ছাড়া, আক্রান্ত হয়েছেন বোয়ালমারী ও ভাঙ্গা থানার দুই জন করে পুলিশ সদস্য। তাদেরকে পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। সিভিল সার্জন কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের তিন স্বজনেরও করোনা শনাক্ত হয়েছে বলে জানান তিনি।

তিনি আরও জানান, নতুন শনাক্ত ৬১ জনের মধ্যে ফরিদপুর সদর উপজেলায় ২৪ জন, ভাঙ্গা ও বোয়ালমারী উপজেলায় আট জন করে, সালথায় সাত জন, সদরপুরে ছয় জন, নগরকান্দায় চার জন, চরভদ্রাসনে তিন জন ও আলফাডাঙ্গায় একজনের করোনা শনাক্ত হয়। তাদের মধ্যে ১৭ জন নারী ও ৪৪ জন পুরুষ বলেও জানান তিনি।

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্র জানায়, ফরিদপুরে মোট শনাক্ত ৮৫০ জনের মধ্যে ফরিদপুর সদরে ২২৬ জন, ভাঙ্গায় ২০৯ জন, বোয়ালমারীতে ১৩৫ জন, চরভদ্রাসন ও সদরপুরে ৬২ জন করে, নগরকান্দায় ৫৮ জন, আলফাডাঙ্গায় ৩৯, সালথায় ৩৬ জন এবং মধুখালীতে ২৩ জন রয়েছেন। জেলায় এ পর্যন্ত ১২৯ জন রোগী সুস্থ হয়েছেন।

ফরিদপুরের পুলিশ সুপার মো. আলিমুজ্জামান জানান, জেলায় নতুন করে যে ৬১ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে, তাদের প্রত্যেকের বাড়ি বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।

ঠাকুরগাঁওয়ে আরও ৬ জনের করোনা শনাক্ত

ঠাকুরগাঁওয়ে নতুন করে আরও ছয় জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় এ পর্যন্ত ১৬৭ জনের করোনা শনাক্ত হলো।

জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো. মাহফুজার রহমান সরকার আজ মঙ্গলবার সকালে দ্য ডেইলি স্টারকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্র জানায়, নতুন শনাক্তদের মধ্যে পীরগঞ্জে একজন, রানীশংকৈলে দুই জন, হরিপুরে একজন ও বালিয়াডাঙ্গীতে দুই জন রয়েছেন। এদের সবাই সম্প্রতি ঢাকা, গাজীপুর ও চট্টগ্রাম থেকে বাড়িতে ফিরেছেন এবং তাদের সবাই পুরুষ। বয়স ১৮ থেকে ২৯ বছর। করোনা পরীক্ষার জন্য তাদের নমুনা গত ৬ জুন দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

সূত্র আরও জানায়, শনাক্তদের শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে নিজ নিজ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অধীনে বাড়িতে অথবা হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে ।

আজ মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত জেলা থেকে মোট ২,৩৪৯ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে ১,৮৮৬ জনের ফল পাওয়া গেছে। এতে জেলায় ১৬৭ জনের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। তাদের মধ্য ইতোমধ্যে ৭৮ জনকে সুস্থ বলে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ ছাড়পত্র দিয়েছে। আর মারা গেছে দুই জন।

Comments

The Daily Star  | English

For now, battery-run rickshaws to keep plying on Dhaka roads: Quader

Road, Transport and Bridges Minister Obaidul Quader today said the battery-run rickshaws and easy bikes will ply on the Dhaka city roads

1h ago