২০ সেনার প্রাণহানি: সমালোচনার মুখে সর্বদলীয় বৈঠকের ডাক মোদির

লাদাখ সীমান্তে চীনা সেনাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে ভারতীয় ২০ সেনা সদস্যের প্রাণহানির ঘটনায় ফুসছে গোটা ভারত। সমালোচনার মুখে সীমান্ত পরিস্থিতি নিয়ে আগামী শুক্রবার সর্বদলীয় বৈঠকের আহ্বান জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ছবি: এনডিটিভি

লাদাখ সীমান্তে চীনা সেনাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে ভারতীয় ২০ সেনা সদস্যের প্রাণহানির ঘটনায় ফুসছে গোটা ভারত। সমালোচনার মুখে সীমান্ত পরিস্থিতি নিয়ে আগামী শুক্রবার সর্বদলীয় বৈঠকের আহ্বান জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

আজ বুধবার সীমান্ত ইস্যুতে বক্তব্য রাখেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। মোদি বলেন, ‘আমি জাতিকে আশ্বস্ত করতে চাই, আমাদের সেনাদের আত্মত্যাগ বৃথা যাবে না।’

তিনি বলেন, ‘যখনই সময় এসেছে, দেশের অখণ্ডতা এবং সার্বভৌমত্ব রক্ষায় আমরা আমাদের শক্তি ও ক্ষমতা প্রমাণ করেছি। আত্মত্যাগ আমাদের রাষ্ট্রীয় বৈশিষ্ট্যের অংশ। কিন্তু ভারতকে উস্কানি দেওয়া হলে ভারত যেভাবেই হোক সেটার উপযুক্ত জবাব দিতে সক্ষম।’

আজ মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে নির্ধারিত বৈঠকের আগে নিহতের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে দুই মিনিট নীরবতা পালন করেন নরেন্দ্র মোদি।

এদিকে আজ বিকেলে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই’র সঙ্গে টেলিফোনে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শংকর কথা বলেছেন বলে জানিয়েছে এনডিটিভি। এতে বলা হয়, সরকারি সূত্রে জানা গেছে, জয়শঙ্কর চীনা মন্ত্রীকে টেলিফোনে বলেছেন যে, ‘চীনা সেনারা “পূর্বকল্পিত” ও “পরিকল্পনা” করে পদক্ষেপ নিয়েছে।’

এর আগে বেইজিং জানায়, সীমান্তে ভারতের সঙ্গে আর কোনও সংঘাত দেখতে চায় না চীন। 

চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান জানান, এই সংঘর্ষের জন্য চীনকে দোষ দেয়া যাবে না। বর্তমানে সীমান্তের সামগ্রিক পরিস্থিতি স্থিতিশীল এবং নিয়ন্ত্রণে আছে।

গত সোমবার ভারতের লাদাখের গালওয়ান উপত্যকা ও চীনের আকসাই চীন সীমান্তে দুই দেশের সেনাদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় কোনও গুলি চালাচালি হয়নি বলে জানায় ভারতীয় কর্মকর্তারা। মধ্যরাত পর্যন্ত দুই পক্ষের মধ্যে রড-পাথরের সংঘর্ষ ও মারামারি হয়েছে বলে জানা গেছে।

ওই সংঘর্ষে ভারতের অন্তত ২০ সৈন্য নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে ভারতীয় কর্মকর্তারা। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সংঘর্ষে উভয় পক্ষেই হতাহতের ঘটনা ঘটেছে বলে মন্তব্য করলেও চীন এখন পর্যন্ত কোনো হতাহতের খবর প্রকাশ করেনি।

সীমান্তে সেনা নিহতের ঘটনায় তীব্র সমালোচনা করেছেন কংগ্রেস পার্টির নেতা রাহুল গান্ধী। মোদি সরকারের সমালোচনা করে টুইটে বলেন, ‘যথেষ্ট হয়েছে। সীমান্তে কী হচ্ছে আমাদের তা জানতে হবে। চীন কীভাবে আমাদের সৈন্যদের হত্যা করতে সাহস করে, তারা আমাদের জমি নেওয়ার সাহস করে কীভাবে?’

ভারত ও চীনের মধ্যে প্রায় ৩ হাজার ৫০০ কিলোমিটার দীর্ঘ সীমান্ত এলাকা রয়েছে। প্রায় ৪৫ বছর পর চীনের সঙ্গে সীমান্ত সংঘর্ষে ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা নিহত হয়েছেন। এর আগে ১৯৭৫ সালে অরুণাচল প্রদেশের তুলুং লাতে সংঘর্ষে চার ভারতীয় সেনা প্রাণ হারান।

Comments

The Daily Star  | English
Qatar emir’s visit to Bangladesh

Qatari Emir Al Thani arrives in Dhaka on a 2-day visit

Qatari Emir Sheikh Tamim Bin Hamad Al Thani arrived in Dhaka for a two-day visit today afternoon

2h ago