রাজাবাজার লকডাউন: বাসিন্দাদের কেউ কেউ মধ্যরাতে চায় পিৎজা বা প্রসাধনী ক্রিম

গত ১৬ জুন রাত সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর পূর্ব রাজাবাজার এলাকার স্বেচ্ছাসেবকরা সেখানকার এক বাসিন্দার কাছে থেকে ফোন পান। ফোনে ওই বাসিন্দা তার জন্য কিছু প্রয়োজনীয় জিনিস এনে দিতে বলেন। জিনিসগুলো হলো— আধা কেজি মালটা ও চার প্যাকেট খাবার স্যালাইন।
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

গত ১৬ জুন রাত সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর পূর্ব রাজাবাজার এলাকার স্বেচ্ছাসেবকরা সেখানকার এক বাসিন্দার কাছে থেকে ফোন পান। ফোনে ওই বাসিন্দা তার জন্য কিছু প্রয়োজনীয় জিনিস এনে দিতে বলেন। জিনিসগুলো হলো— আধা কেজি মালটা ও চার প্যাকেট খাবার স্যালাইন।

গত ১১ জুন দুপুর ১২টার দিকে আরেক স্বেচ্ছাসেবককে ফোন এক বাসিন্দা জানান, তার বাসার ছাদে বারবিকিউ পার্টি হচ্ছে। এর জন্য ব্রয়লার মুরগি এনে দেওয়ার কথা বলেন তিনি। এই ঘটনার একদিন আগেই পূর্ব রাজাবাজার এলাকাটি পরীক্ষামূলকভাবে লকডাউন করা হয়।

প্রয়োজনীয়তা যাই হোক না কেন, রেড জোনে লকডাউনের মধ্যে যারা বাস করছেন, তাদের জীবনকে স্বাচ্ছন্দ্যে রাখতে ২৪ ঘণ্টাই কাজ করে যাচ্ছেন এই স্বেচ্ছাসেবীরা।

করোনা সংক্রমণের কারণে রাজধানীর পূর্ব রাজাবাজার এলাকাকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করে গত ১০ জুন সেখানে পরীক্ষামূলক লকডাউন দেওয়া হয়। এলাকাটিতে বাস করছেন প্রায় ৫০ হাজার মানুষ।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে থাকায় দেশের বিভিন্ন এলাকা জোনভিত্তিক ভাগ করার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। পুলিশ, স্থানীয়রা ও স্বেচ্ছাসেবকরা মিলে ওই এলাকার মানুষদের সহায়তা করছেন। পাশাপাশি নিরাপত্তা পর্যবেক্ষণের জন্য টহল দিচ্ছেন সেনাবাহিনীও।

স্বেচ্ছাসেবক দলের সমন্বয়কারী মাসুদ হোসাইন সুমন জানান, এই এলাকায় বাসিন্দাদের খাদ্যসহ প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো দিতে দুই শিফটে ৮০ জন স্বেচ্ছাসেবক কাজ করছেন। স্বেচ্ছাসেবকদের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য বাসিন্দাদেরকে ফোন নম্বরও দিয়ে দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘আমরা মানুষের পাশে দাঁড়ানোর যথাসাধ্য চেষ্টা করছি। মাঝেমধ্যে তাদের অনেকে আমাদের সঙ্গে ঠাট্টা করলেও আমরা হাসিমুখেই তাদের জন্য কাজ করছি।’

আরও বেশ কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবকের সঙ্গে কথা বলে একই ধরনের অভিজ্ঞতার কথা শোনা যায়। কিন্তু, এ ধরনের ঘটনা যে সচরাচর ঘটছে, তা নয়।

বায়েজিদ হোসাইন সুজন নামে এক স্বেচ্ছাসেবক বলেন, ‘বেশিরভাগ মানুষ তাদের প্রয়োজনেই সাহায্য চায়। কিন্তু, কিছু মানুষ মজা করার জন্য ফোন করে। তবে, আমরা তাদের প্রয়োজনগুলোও গুরুত্ব দিয়েই নেই।’

দুই দিন আগে ৮০ বছর বয়সী একজনের কাছ থেকে ফোন পান সুজন। ওই ব্যক্তি জানান, তার জ্বর আছে ও শ্বাসকষ্টের সমস্যা হচ্ছে। কিন্তু, তার পরিবারের সদস্যরা তাকে একটি কক্ষে বন্ধ করে রেখেছেন। বিষয়টি জানার পর স্বেচ্ছাসেবকরা সেখানে গিয়ে ওই ব্যক্তিকে অ্যাম্বুলেন্সে করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

‘সে সময় পরিবারে কোনো সদস্য ওই ব্যক্তিকে সহায়তার জন্য এগিয়ে আসেনি। কিন্তু, আমাদের স্বেচ্ছাসেবকরা এগিয়ে গেছে’, বলেন তিনি।

রবিউল ইসলাম শাওন নামে আরেক স্বেচ্ছাসেবক বলেন, ‘কয়েকদিন আগে আমরা কন্ট্রোল রুমে ওষুধের জন্য অনুরোধ পাই। পরে যখন আমাদের এখান থেকে ফোন করে জানতে চাওয়া হলো, ওই বাসিন্দা দেশি পেঁয়াজ আর মোটা চালের দাম জানতে চাইলেন।’

‘আরেকজন রাত ১২টার দিকে ফোন করে জরুরি ওষুধ সরবরাহের জন্য বলেছিলেন। যখন স্বেচ্ছাসেবকরা প্রেসক্রিপশন নিয়ে লাজ ফার্মায় গেলেন, জানতে পারলেন এটা ব্রণের ওষুধ’, বলেন শাওন।

কয়েকদিন আগে সকাল ১১টার দিকে ফোন পান আরেক স্বেচ্ছাসেবক রেজাউল ইসলাম রাজ। ফোনে এক বাসিন্দা তার জন্যে গার্লিক পিৎজা এনে দেওয়ার কথা বলেন। আরেকজন ফোন করে সমুচা ও নাগেট এনে দিতে বলেছেন।

‘আমরা দোকানে যোগাযোগ করে তাদের এই জিনিসগুলোও পৌঁছে দিয়েছি’, বলেন রাজ।

সমন্বয়কারী মাসুদ হোসাইন সুমন বলেন, ‘আমরা ঘোষণা দিয়েছি যে কেউ যাতে তাদের ঘর থেকে না বের হয়। যদি কারো একটি সুইয়েরও দরকার হয়, আমরা তা এনে দেবো।’

‘যে কোনো জরুরি প্রয়োজনে কন্ট্রোল রুমে সবসময় পাঁচ হাজার টাকা রাখা থাকে’, বলেন তিনি।

‘বাসিন্দাদের ফোন পেয়ে সময় বাঁচাতে স্বেচ্ছাসেবকরা এখান থেকে টাকা নিয়ে তাদের প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো কেনে। পরে বাসিন্দাদের জানানো হয় যে তাদের প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো কিনতে কত খরচ হয়েছে’, যোগ করেন সুমন।

ঠাট্টা করে স্বেচ্ছাসেবকদের কাছে ফোন আসার ব্যাপারে ওই এলাকার ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফরিদুর রহমান খান ইরান দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘লকডাউনে থেকে মানুষ হতাশ হয়ে পড়ছে। এখানকার বেশিভাগ বাসিন্দার ব্যবহারই ভালো, কেবল কিছু ব্যতিক্রম ছাড়া। কিন্তু, আমরা তাদের সমস্যাগুলো বিবেচনা করছি এবং তাদের সহায়তা দেওয়ার যথাসাধ্য চেষ্টা করছি। আমরা স্বেচ্ছাসেবকদের কোনো ধরনের অসম্মানজনক আচরণ না করে ওই এলাকার মানুষের পাশে দাঁড়াতে বলেছি।’

Comments

The Daily Star  | English

Personal data up for sale online!

A section of government officials are selling citizens’ NID card and phone call details through hundreds of Facebook, Telegram, and WhatsApp groups, the National Telecommunication Monitoring Center has found.

1h ago