বগুড়ায় করোনা হাসপাতাল থেকে অক্সিজেন মিটার চুরি, গ্রেপ্তার ৩

বগুড়া শহরের ২৫০ শয্যা মোহাম্মদ আলী হাসপাতালকে এখন করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে। সেই হাসপাতালের দুইটি অক্সিজেন সিলিন্ডার থেকে মিটার চুরি করে সেগুলো একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে বিক্রি করে দিয়েছেন এক পরিচ্ছন্নতাকর্মী।
Bogura_DS_Map
স্টার অনলাইন গ্রাফিক্স

বগুড়া শহরের ২৫০ শয্যা মোহাম্মদ আলী হাসপাতালকে এখন করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে। সেই হাসপাতালের দুইটি অক্সিজেন সিলিন্ডার থেকে মিটার চুরি করে সেগুলো একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে বিক্রি করে দিয়েছেন এক পরিচ্ছন্নতাকর্মী।

গতকাল শুক্রবার পুলিশ অক্সিজেন মিটার দুইটি উদ্ধার করেছে। একইসঙ্গে এই কাজে জড়িত থাকার অভিযোগে তিন জনকে আটক করা হয়েছে।

তিন জন হলেন— মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের পরিচ্ছন্নতাকর্মী হীরা (৩৫), শহরের শান্তা পলি ক্লিনিকের ম্যানেজার ফেরদাউস আলম (৪০) ও ক্লিনিকের কর্মচারী ঠান্ডু মিয়া (৫০)।

বিষয়টি দ্য ডেইলি স্টারকে নিশ্চিত করে বগুড়া সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. খোরশেদ আলম বলেন, ‘গতকাল সকালে মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক শফিক আমিন কাজল জানান যে তাদের হাসপাতাল থেকে দুইটি অক্সিজেন মিটার চুরি হয়েছে। পরে সেখানে গিয়ে পরিচ্ছন্নতাকর্মী হীরার ওপর সন্দেহ হলে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে হীরা জানান, তিনি সেগুলো বেসরকারি শান্তা পলি ক্লিনিকে বিক্রি করে দিয়েছেন।’

‘এরপর শান্তা পলি ক্লিনিকে গিয়ে ম্যানেজার ফেরদাউস আলমকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনিও বিষয়টি স্বীকার করেন। পরে সেখান থেকে পুলিশ অক্সিজেন মিটার দুইটি উদ্ধার করে। এই কাজে জড়িত থাকার দায়ে ম্যানেজারসহ ওই ক্লিনিকের কর্মচারী ঠান্ডু মিয়াকেও আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়’, বলেন তিনি।

এসআই জানান, এই ঘটনায় গতকাল রাতেই সদর থানায় এই তিন জনের নামে মামলা দায়ের করেছেন মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক শফিক আমিন কাজল। মামলায় তাদের গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। আজ তাদের আদালতে পাঠানো হবে।

শফিক আমিন কাজল দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘এই দুর্যোগের সময় অক্সিজেন মিটারের দাম অনেক বেড়ে গেছে। অক্সিজেন মিটার ছাড়া রোগীর সেবা দিতে খুব অসুবিধা হচ্ছিল। এক রোগীর অক্সিজেন মিটার খুলে আরেক রোগীকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল। এতে করে রোগীর অনেক কষ্ট হয়।’

Comments

The Daily Star  | English

Dhaka footpaths, a money-spinner for extortionists

On the footpath next to the General Post Office in the capital, Sohel Howlader sells children’s clothes from a small table.

7h ago