ব্ল্যাকউডের ব্যাটে চড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের দারুণ জয়

লক্ষ্যটা খুব বড় নয়, কিন্তু শেষ দিনের উইকেট আর রান তাড়ার চাপটাই ছিল মূল চ্যালেঞ্জের। সেই চ্যালেঞ্জ নিতে গিয়ে ২৭ রানেই ৩ উইকেট নেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের। ব্যাকফুটে থাকা দলকে সেখান থেকেই উদ্ধার করে দারুণ জয় পাইয়ে দিয়েছেন জারমেইন ব্ল্যাকউড
Jermaine Blackwood
৯৫ রানের ম্যাচ জয়ী ইনিংসের পথে জারমেইন ব্ল্যাকউড। ছবি: এএফপি

লক্ষ্যটা খুব বড় নয়, কিন্তু শেষ দিনের উইকেট আর রান তাড়ার চাপটাই ছিল মূল চ্যালেঞ্জের। সেই চ্যালেঞ্জ নিতে গিয়ে ২৭ রানেই ৩ উইকেট নেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের। ব্যাকফুটে থাকা দলকে সেখান থেকেই উদ্ধার করে দারুণ জয় পাইয়ে দিয়েছেন জারমেইন ব্ল্যাকউড।

রোববার সাউদাম্পটনের রোজভৌলে সিরিজের প্রথম টেস্টের শেষ দিনে ম্যাচ ছিল দোলাচলে। একবার এদিকে হেলে, তো আরেকবার ওদিকে। শেষপর্যন্ত ওই হেলদোল কাটিয়ে ক্যারিবিয়ানদের মুখের হাসিই চওড়া হয়েছে।  করোনাভাইরাসের মহামারির স্থবিরতা কাটিয়ে নামা প্রথম টেস্টে ইংল্যান্ডকে ৪ উইকেটে হারিয়েছে জেসন হোল্ডারের দল। তিন ম্যাচ সিরিজেও শুরুতেই এগিয়ে গেল তারা। 

আগের দিনের ২৮৪ রান নিয়ে খেলতে নেমে বেশিদূর এগোয়নি ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় ইনিংস। তবে গুরুত্বপূর্ণ কিছু রান এনে দেন জোফরা আর্চার। তার ব্যাটে আরও ২৯ রান যোগ করে তারা, যার ২৩ রানই আসে আর্চারের ব্যাটে।

শেষ দিনের উইকেট। তবু ২০০ রানের লক্ষ্যটা নাগালেই। লক্ষ্যটা নাগালের বাইরে নিতে শুরুতে দরকার দ্রুত উইকেট। আর্চারের তোপে এলো তাও। জন ক্যাম্বেলকে আহত করে মাঠ ছাড়া করার পর গ্রেইক ব্র্যাথওয়েটকে বোল্ড করে দেন তিনি।

খানিক পরেই দুর্দান্ত ইয়র্করে এলবিডব্লিও করে ফিরিয়ে দেন শামরাহ ব্রোকসকে। ৭ রানে ২ উইকেট হারিয়ে ক্যারিবিয়ানরা তখন দিশেহারা। পথ দেখানোর জন্য তখন সবচেয়ে যার দিকে তাকিয়ে দল, সেই শেই হোপ হতাশ করলেন এই ইনিংসেও। গতিময় মার্ক উডের ভেতরে ঢোকা বলে স্টাম্প উড়ে গেল তার।

ম্যাচ তখন অনেকটাই হেলছে ইংল্যান্ডের দিকে। তখনই দারুণ এক জুটি হয়ে উঠে রোস্টন চেজ আর জারমেইন ব্ল্যাকউডের মাঝে। টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানরা শুরুতে ছিলেন জড়োসড়ো। চেজ- ব্ল্যাকউড নিলেন ভিন্ন তরিকা। বারবার প্রান্ত বদল করে সচল রাখলেন রানের চাকা।

ইতিবাচক শরীরী ভাষাই বদলে দেন রান তাড়ার চাপ। উলটো চাপ বাড়ে ইংল্যান্ডের উপর। ৭২ রানের জুটির পর আর্চারের শরীর তাক করে ভয়ংকর বাউন্সারে চেজ ফিরলেও ব্র্যাকউড ছিলেন অবিচল। খেলেছেন দারুণ কিছু শট। অফ স্টাম্পের বাইরে বাউন্সার বল পেলে আপার কাট করে পার করেছেন সীমানা। 

পঞ্চম উইকেটে শেন ডাওরিচকে নিয়ে পুরো করেন নিজের ফিফটি। জুটিতেও রান বাড়াতে লাগলেন তরতর করে। লক্ষ্যটা ক্রমেই কমতে থাকে এতে।

পরে তাদের ৬৮ রানের জুটিটি ভেঙেছেন মরিয়া ইংলিশ অধিনায়ক স্টোকস। তার বলে স্লিপে ক্যাচ দিয়েছিলেন শেন ডওরিচ। কিন্তু নো বলের কারণে বেঁচে যান তিনি। পরের বলেই উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ২০ রান করা উইন্ডিজের উইন্ডিজের কিপার ব্যাটসম্যান।

তখন দলের জিততে বাকি ৩২ রান। ব্ল্যাকউডের সঙ্গে মিলে অধিনায়ক হোল্ডার সেই রান আনতে কোন তাড়াহুড়ার পথে যাননি। দুজনেই এক, দুই করে এগিয়ে যাচ্ছিলেন জয়ের কাছে। ব্ল্যাকউড পৌঁছে গিয়েছিলেন সেঞ্চুরির কাছে। কিন্তু সেঞ্চুরি থেকে ৫ রান আগে ভুল করে বসেন তিনি। স্টোকসের বলে অ্যান্ডারসনের হতে ধরা পড়েন এই ডানহাতি।

তবে ততক্ষণে জিততে লাগে কেবল ১১ রান। শুরুতে চোট পেয়ে বেরিয়ে যাওয়া ক্যাম্বেলকে নিয়ে তা অনায়াসে তুলেছেন হোল্ডার। 

 

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ইংল্যান্ড প্রথম ইনিংস: ২০৪

ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্রথম ইনিংস: ৩১৮

ইংল্যান্ড দ্বিতীয় ইনিংস: ১১১.২ ওভারে ৩১৩ (আগের দিন ১০৪ ওভারে ২৮৪/৮)  (বার্নস ৪২, সিবলি ৫০, ডেনলি ২৯, ক্রাউলি ৭৬, স্টোকস ৪৬, পোপ ১২, বাটলার ৯, বেস ৩, আর্চার ২৩, উড ২, অ্যান্ডারসন ৪*; রোচ ০/৫০, গ্যাব্রিয়েল ৫/৭৫, হোল্ডার ১/৪৯, চেজ ২/৭১ , জোসেফ ২/৪৫, ব্র্যাথওয়েট ০/৯)।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ দ্বিতীয় ইনিংস:  ৬৪.২ ওভারে ২০০/৬ (লক্ষ্য ২০০) (ব্র্যাথওয়েট ৪, ক্যাম্বেল ৮*, হোপ ৯, ব্রোকস ০, চেজ ৩৭, ব্ল্যাকউড ৯৫ , ডওরিচ ২০, হোল্ডার ১৪*   ; অ্যান্ডারসন ০/৪২ , আর্চার ৩/৪৫, উড ১/৩৬ , বেস ০/৩১, স্টোকস ২/৩৯ )

ফল: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৪ রানে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: শ্যানন গ্যবব্রিয়েল। 

সিরিজ: তিন ম্যাচ সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে।

Comments

The Daily Star  | English

Banking sector abused by oligarchs: CPD

Oligarchs are using banks to achieve their goals, harming good governance, transparency, and accountability in the financial sector, said economists and experts yesterday.

1h ago