রিজেন্টের সঙ্গে চুক্তির সময় ‘অতিথির মতোই’ উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

কোনো হাসপাতাল কিংবা ল্যাবের অনুমোদন কিংবা তাদের লাইসেন্স বাতিলের ক্ষমতা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আছে জানিয়ে রিজেন্টের সঙ্গে চুক্তির সময় ‘অতিথির মতোই’ সেখানে উপস্থিত ছিলেন বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।
জাহিদ মালেক। ফাইল ফটো

কোনো হাসপাতাল কিংবা ল্যাবের অনুমোদন কিংবা তাদের লাইসেন্স বাতিলের ক্ষমতা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আছে জানিয়ে রিজেন্টের সঙ্গে চুক্তির সময় ‘অতিথির মতোই’ সেখানে উপস্থিত ছিলেন বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

গতকাল সোমবার মন্ত্রী দ্য ডেইলি স্টারকে এসব কথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, ‘তারা (ডিজিএইএস) আমাকে অনুরোধ করে চুক্তি সই অনুষ্ঠানে থাকার জন্য। অন্যান্য অতিথির মতোই সেখানে ছিলাম।‘

‘তারা চুক্তির সব কাগজপত্র তৈরির পরই সেখানে যেতে বলেছিল, জানান তিনি।

এদিকে, আজ মঙ্গলবার দুপুরে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, জেকেজি ও রিজেন্ট হাসপাতালের সাম্প্রতিক কর্মকান্ডের ব্যাপারে ব্যাখ্যা দিতে মন্ত্রণালয় থেকে অধিদপ্তরকে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, জেকেজি ও রিজেন্ট হাসপাতালের অনৈতিক কর্মকান্ড কতটুকু হয়েছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। দোষী সাব্যস্ত হলে তাদের কঠোর বিচার করতে হবে এবং তাদের প্রশ্রয়দানকারীদের বিরুদ্ধেও দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে।

আজ মঙ্গলবার মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত একটি  সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠানো হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন,  স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কাছে মন্ত্রণালয় প্রশাসনিকভাবে কোন কাজের ব্যাখ্যা চাইতেই পারে। এটি সরকারের প্রশাসনিক ও দাপ্তরিক কাজের অংশ । মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের সমস্যার কোনো ব্যাপার নয়। অধিদপ্তরের সাথে মন্ত্রণালয়ের কোনো সমস্যা নেই।

তিনি বলেন, দুটিই সরকারের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান। দুটি প্রতিষ্ঠানই বর্তমানে কোভিড-১৯ এর দুর্যোগ মোকাবেলায় দিন-রাত কাজ করে যাচ্ছে। 

সংবাদকর্মীদের সঙ্গে কথা শেষে স্বাস্থ্যমন্ত্রী স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আব্দুল মান্নান ও স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলী নূরের সাথে বৈঠক করেন বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

Comments