করোনার ভুয়া সনদ নিয়ে বিমানবন্দরে শাজাহান খানের মেয়ে, লন্ডন যেতে পারেননি

বিদেশ যাওয়ার সময় সাবেক নৌপরিবহনমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শাজাহান খানের মেয়ে ঐশী খানকে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ফেরত পাঠানো হয়েছে।
হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। স্টার ফাইল ফটো

বিদেশ যাওয়ার সময় সাবেক নৌপরিবহনমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শাজাহান খানের মেয়ে ঐশী খানকে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ফেরত পাঠানো হয়েছে।

বিমানবন্দরের হেলথ ডেস্কে তিনি ভুয়া করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট দেখিয়ে লন্ডন যেতে চেয়েছিলেন।

বিমানবন্দরের কর্মকর্তারা জানান, হেলথ ডেস্কে যাচাইয়ের পর তিনি কোভিড-১৯ পজিটিভ বলে জানা গেছে।

সাধারণত আন্তর্জাতিক রুটের যাত্রীরা বিদেশে যাওয়ার অনুমতি পেতে বিমানবন্দর হেলথ ডেস্কে তাদের কোভিড-১৯ নেগেটিভ রিপোর্ট জমা দেওয়ার পর ডেস্ক তা যাচাই করে। এরপর যাত্রীকে একটি করোনা নেগেটিভ টোকেন দেওয়া হয়। ডেস্কের চিকিৎসকরা ওই টোকেনে সই করেন। ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে টোকেনটি জমা দিতে হয়।

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের স্বাস্থ্য ডেস্কের চিকিত্সক ডা. জহিরুল ইসলাম জানান, ভিআইপি ইমিগ্রেশনের এক কর্মকর্তা তাদের ডেস্কে ঐশী খানের পাসপোর্ট ও করোনা নেগেটিভ টোকেন নিয়ে আসেন, যেখানে চিকিৎসকের সইও ছিল। তবে, হেলথ ডেস্কের কোনো চিকিৎসকের সইয়ের সঙ্গে ওই টোকেনের সইয়ের মিল পাওয়া যায়নি।

তিনি জানান, ওই টোকেন অনলাইনে যাচাই করে দেখা যায়, ঐশী খান কোভিড-১৯ পজিটিভ। এরপরই ইমিগ্রেশন পুলিশ তাকে দেশ ছাড়তে বাধা দেয়।

আজ রোববার সকাল ১১টায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে লন্ডনের উদ্দেশে রওনা হওয়ার কথা ছিল ঐশীর।

বিমানবন্দরের এক পুলিশ কর্মকর্তা এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। আনুষ্ঠানিকভাবে কারণ হিসেবে ঐশী খান কোভিড-১৯ নেগেটিভ সার্টিফিকেট দেখাতে পারেননি বলে উল্লেখ করেন তিনি।

গত ৬ জুলাই ভুয়া করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট দেখিয়ে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট ইতালিতে প্রবেশের পর কয়েকজন বাংলাদেশি যাত্রীর করোনা শনাক্ত হয়। এরপরই বাংলাদেশের উড়োজাহাজ প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করে ইতালি সরকার।

Comments

The Daily Star  | English

Iranian President Raisi feared dead as helicopter wreckage found

Iran's state television said Monday there was "no sign" of life among passengers of the helicopter which was carrying President Ebrahim Raisi and other officials

56m ago