অস্ত্র মামলায় সাহেদের বিচার শুরু

উত্তরা পশ্চিম থানায় অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইনে দায়ের হওয়া মামলায় রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিমের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে সাক্ষ্য নেওয়ার আদেশ দিয়েছেন ঢাকার বিশেষ ট্রাব্যুনাল-১ (মহানগর দায়রা জজ)।
সাহেদ
মো. সাহেদ। ফাইল ছবি সংগৃহীত

উত্তরা পশ্চিম থানায় অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইনে দায়ের হওয়া মামলায় রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিমের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে সাক্ষ্য নেওয়ার আদেশ দিয়েছেন ঢাকার বিশেষ ট্রাব্যুনাল-১ (মহানগর দায়রা জজ)।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে বিচারিক আদালতের হাকিম কে এম ইমরুল কায়েশ এই আদেশ দেন। আদালত আগামী ১০ সেপ্টেম্বর এই মামলার পরবর্তী শুনানির জন্য তারিখ নির্ধারণ করেছেন।

গত ১৯ আগস্ট আদালত এই মামলার অভিযোগপত্র আমলে নিয়েছিলেন। ৩০ জুলাই সাহেদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেন পুলিশের গোয়েন্দা শাখার পরিদর্শক ও মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. সাইরুল ইসলাম।

এদিন আদালতে অভিযোগপত্র পড়ে শোনানো হলে সাহেদ নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন।

গত ১৫ জুলাই সাতক্ষীরা থেকে সাহেদকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়, সাহেদ অবৈধভাবে সীমান্ত পেরিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলেন।

গত ৭ জুলাই ঢাকার উত্তরায় সাহেদের মালিকানাধীন রিজেন্ট হাসপাতালে অভিযান চালান র‍্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। হাসপাতাল থেকে করোনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট জব্দ করা হয়। করোনা চিকিৎসার নামে রিজেন্ট হাসপাতালের প্রতারণার বিষয়টি সামনে আসার পর থেকে সাহেদ আত্মগোপনে ছিলেন।

ওই ঘটনায় বাদী হয়ে র‍্যাব সাহেদসহ ১৭ জনের নামে উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলা করে। র‌্যাবের মামলায় রিমান্ড চলাকালে সাহেদকে নিয়ে উত্তরায় অভিযান চালায় পুলিশ। অভিযানে সাহেদের গাড়ি থেকে গুলিভর্তি পিস্তল ও মাদকদ্রব্য পাওয়া যায়।

অভিযান শেষে উত্তরা পশ্চিম থানায় অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করে পুলিশ। ৩০ জুলাই তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. সাইরুল ইসলাম সাহেদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেন। তাতে রাষ্ট্রপক্ষে মোট ১৪ জনকে সাক্ষী করা হয়।

Comments