যুক্তরাষ্ট্রে উইচ্যাট নিষিদ্ধ হলে চীনা ভোক্তারা অ্যাপল বর্জন করতে পারে

চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র শুক্রবার হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র চীনের জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম উইচ্যাট নিষিদ্ধ করলে চীনা ভোক্তারাও অ্যাপল বর্জন করতে পারে।
ছবি: সংগৃহীত

চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র শুক্রবার হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র চীনের জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম উইচ্যাট নিষিদ্ধ করলে চীনা ভোক্তারাও অ্যাপল বর্জন করতে পারে।

আজ শনিবার এএফপির বরাত দিয়ে জাকার্তা পোস্টের প্রতিবেদনে এই তথ্য উল্লেখ করা হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, চলতি মাসে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ঘোষণা করেন, যুক্তরাষ্ট্রে সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময় থেকে চীনের মালিকানাধীন উইচ্যাট ও টিকটক নিষিদ্ধ করা হবে। এসব অ্যাপ জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি বলে অভিযোগ করেন ট্রাম্প। তখন থেকেই বেইজিং এবং ওয়াশিংটনের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

গতকাল চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান টুইটে বলেন, ‘যদি উইচ্যাট নিষিদ্ধ হয়, তাহলে চীনাদের আইফোন এবং অ্যাপল পণ্য ব্যবহারের কোনো কারণ থাকতে পারে না।’

ঝাওয়ের এমন মন্তব্যের পরে চীনা সামাজিক মাধ্যম ব্যবহারকারীর মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে।

এক চীনা নাগরিক টুইটারে বলেন, ‘আমি অ্যাপল ব্যবহার করি। তবে, আমি আমার দেশকেও ভালোবাসি।’

আরেক চীনা নাগরিক বলেন, ‘অ্যাপল যতোই ভালো হোক না কেন এটি শুধুমাত্র একটি ফোন। তাই অ্যাপল বদলানো যেতে পারে, কিন্তু উইচ্যাটের বিষয়টা আলাদা।’

তিনি আরও বলেন, ‘উইচ্যাট বন্ধ হলে আধুনিক চীনারা তাদের সত্ত্বাকে হারাবে, বিশেষ করে ব্যবসায়ীরা।’

চীনের মূল ভূখণ্ডে উইচ্যাট ওয়েইজিন নামে পরিচিত এবং এর ১ দশমিক ২ মিলিয়নেরও বেশি সক্রিয় ব্যবহারকারী আছে।

উইচ্যাটের বিরুদ্ধে ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশ কার্যকর হলে এই প্ল্যাটফর্মকে যুক্তরাষ্ট্রে তার সমস্ত কার্যক্রম গুটিয়ে নিতে হবে এবং এরসঙ্গে মার্কিন নাগরিকদের বাণিজ্য নিষিদ্ধ হবে।

কাউন্টার পয়েন্টের রির্সাচ অনুযায়ী, ২০২০ সালের দ্বিতীয় প্রান্তিকে চীনের স্মার্টফোন বাজারে অ্যাপলের আধিপত্য ছিল আট শতাংশ। যা চীনা ব্রান্ড হুয়াওয়ের চেয়ে অনেক কম।

 

Comments

The Daily Star  | English

Bangladeshi students terrified over attack on foreigners in Kyrgyzstan

Mobs attacked medical students, including Bangladeshis and Indians, in Kyrgyzstani capital Bishkek on Friday and now they are staying indoors fearing further attacks

3h ago