সাহেদের বিরুদ্ধে সাতক্ষীরা আদালতে ২টি অভিযোগপত্র দাখিল

অবৈধ অস্ত্র, গুলি ও ভারতীয় রূপি রাখার অভিযোগে সাতক্ষীরার দেবহাটা থানায় দায়েরকৃত মামলায় রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান সাহেদ করিমের বিরুদ্ধে আদালতে পৃথক দুইটি অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করা হয়েছে।
র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদ। ছবি: র‌্যাবের সৌজন্যে

অবৈধ অস্ত্র, গুলি ও ভারতীয় রূপি রাখার অভিযোগে সাতক্ষীরার দেবহাটা থানায় দায়েরকৃত মামলায় রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান সাহেদ করিমের বিরুদ্ধে আদালতে পৃথক দুইটি অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করা হয়েছে।

এক মাস ২৪ দিনের তদন্ত শেষে আজ বুধবার দুপুরে সাতক্ষীরার আমলী আদালত-৬ এর বিচারক রাজীব রায়ের আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাব-৬ সাতক্ষীরা ক্যাম্পের এস.আই রেজাউল ইসলাম।

সাতক্ষীরা আদালতের উপপরিদর্শক মোন্তাজউদ্দীন জানান, দেবহাটা থানায় সাহেদের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও অবৈধ রূপি রাখার অভিযোগে দায়েরকৃত মামলার তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করা হয়েছে। ১৮৭৮ সালের আর্মস এ্যাক্টস এর ১৯-এ এবং ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ২৫ এর বি (এ) ধারায় শুধুমাত্র সাহেদের বিরুদ্ধে এই অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।

সাতক্ষীরার দেবহাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বিপ্লব কুমার সাহা জানান, ১৫ জুলাই বুধবার ভোরে সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার কোমরপুর সীমান্তের লাবণ্যবতী নদীর উপর নির্মিত সেতুর নিচ থেকে বোরখা পরিহিত অবস্থায় সাহেদকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। এ সময় তার কাছ থেকে একটি পিস্তল ও তিন রাউন্ড গুলি ও দুই হাজার ৩৩০ ভারতীয় রূপি উদ্ধার করা হয়। ওইদিন তাকে হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় আনা হয়।

একইদিন রাতে র‌্যাব-৬ এর সিপিসি-১ এর ডিএডি নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে ১৯৭৮ সালের আর্মস অ্যাক্টের ১৯-এ উপধারা এবং ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ২৫ এর বি/এ ধারায় দেবহাটা থানায় একটি মামলা করেন। মামলায়

সাহেদ করিমসহ তিন জনকে আসামি করা হয়। পরে সাহেদকে ১০ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়।

Comments