খেলা

জাতীয় দলের পাইপলাইন মজবুত করতে নতুন চিন্তায় এইচপি ক্যাম্প

যুবদল থেকে জাতীয় দল, তার মাঝেখানে হাইপারফরম্যান্স বা এইচপি স্কোয়াড। আর এই ধাপ আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে বাড়তি সচল রেখে জাতীয় দলের পাইপলাইন মজবুত রাখার চিন্তা বিসিবির।
bcb hp team
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

যুবদল থেকে জাতীয় দল, তার মাঝেখানে হাইপারফরম্যান্স বা এইচপি স্কোয়াড। আর এই ধাপ আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে বাড়তি সচল রেখে জাতীয় দলের পাইপলাইন মজবুত রাখার চিন্তা বিসিবির।

বুধবার ২৬ জন ক্রিকেটারকে নিয়ে শুরু হয়েছে বিসিবি এইচপি স্কোয়াডের ক্যাম্প। এরমধ্যে বড় অংশই সবশেষ অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন দলের ক্রিকেটার। আকবর আলি, পারভেজ হোসেন ইমনরা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রাখার আগ পর্যন্ত নিজেদের তৈরি করবেন এইচপিতে।

বিসিবির এইচপি ইউনিটের চেয়ারম্যান নাঈমুর রহমান দুর্জয় ক্যাম্প শুরুর দিন জানান, যুবদল থেকে জাতীয় দলে যাওয়ার ধাপে বড় ভূমিকা রাখবে তাদের এইচপি প্রোগ্রাম,  ‘অনূর্ধ্ব-১৯ এর পর আমরা যদি অন্যান্য দেশে খেয়াল করি যারা এক্সট্রা অর্ডিনারি থাকে তারা কিন্তু জাতীয় দলেও চলে আসে। আমাদের দেশেও এর আগে ঘটেছে, দুই একজন খেলোয়াড় (সরাসরি) খেলেছে জাতীয় দলে। মাঝখানে যদি কোন জায়গা থাকে তাদের জাতীয় দলের খেলার জন্য প্রস্তুত করার সে জায়গাটা হাই পারফরম্যান্সকে আমরা ব্যবহার করতে পারি।’

জাতীয় দলে গিয়ে আগামীতে মৌলিক বিষয়গুলোতে যেন আর খেলোয়াড়দের ভুগতে না হয়, সেজন্য এইচপিতেই সব ভুল ত্রুটি শোধরে নিতে ক্রিকেটারদের বলেছেন তিনি,  ‘আর একটা জিনিস মাথায় নিয়ে কাজ করি। অনেক সময় আমরা কাউকে প্রতিভাবান হিসেবে ধরি কিন্তু অনেকের কিছু সমস্যা থাকে, টেকনিকে দুর্বলতা থাকে যেগুলো জাতীয় দলে গিয়ে কাজ করতে হয়। আমরা চাই জাতীয় দলে গিয়ে যেন কোন এসব কাজ না করতে হয়। ওখানে গিয়ে যেন তারা যেন সেবাটা দিতে পারে এবং যার যা টেকনিকে সমস্যা আছে সেগুলো যেন এইচপিতে তারা যতদিন কাজ করবে তাদের সেরা ব্যবহারটা যেন এখান থেকে করে নেয়। এই কথা আমি আজও তাদের বলেছি।’

এইচপি দলের সদ্য নিয়োগ পাওয়া প্রধান কোচ টবি রেডফোর্ড এখনো যোগ দিতে পারেননি। ভ্রমণ জটিলতায় আর আরও কিছুদিন দেরি হবে তার। পেস বোলিং কোচ চম্পাকা রামানায়েকেও মায়ের অসুস্থতার জন্য আটকে আছেন শ্রীলঙ্কায়। আপাতত তাই স্থানীয় কোচদের দিয়েই কাজ শুরু হয়েছে।

অবশ্য ক্যাম্প শুরুর পরই একটি প্রস্তুতিমূলক টুর্নামেন্টে ব্যস্ত হয়ে যাবেন এই স্কোয়াডের বেশিরভাগ  ক্রিকেটার। ১১ অক্টোবর থেকে প্রস্তুতিমুলক ওয়ানডে সিরিজের তিন দলে এইচপির ২৬ ক্রিকেটারের ২১ জনই খেলছেন।

এই সিরিজের পর কর্পোরেট লিগে ব্যস্ত হবেন এইচপির প্রায় সব ক্রিকেটারই। তবে এসব খেলার বাইরে নিবিড় ক্যাম্পে চলবে তাদের ক্যাম্প। করোনাভাইরাসের কারণে না হওয়া বিদেশ সফরের পরিকল্পনাও পরিস্থিতি ভাল হলে আবার শুরু করবে বিসিবি। 

 

এইচপি স্কোয়াড

ব্যাটসম্যান: তানজিদ হাসান তামিম, পারভেজ হোসেন ইমন, মোহাম্মদ নাঈম শেখ, শাহাদাত হোসেন, মাহমুদুল হাসান, আফিফ হোসেন, তৌহিদ হৃদয়, শামীম হোসেন পাটোয়ারি।

স্পিনার: মিনহাজুল আবেদিন আফ্রিদি, আমিনুল ইসলাম বিপ্লব, রকিবুল হাসান, হাসান মুরাদ, তানভির ইসলাম, রিশাদ হোসেন, মেহেদি হাসান।

পেসার: শরিফুল ইসলাম, শফিকুল ইসলাম, মুকিদুল ইসলাম, মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরি, শাহিন আলম, সুমন খান, নোমান চৌধুরি সাগর, অভিষেক দাস, রেজাউর রহমান রাজা।

উইকেট-কিপার: মাহিদুল ইসলাম অঙ্কন, আকবর আলি।

Comments

The Daily Star  | English

All animal waste cleared in Dhaka south in 10 hrs: DSCC

Dhaka South City Corporation (DSCC) has claimed that 100 percent sacrificial animal waste has been disposed of within approximately 10 hours

1h ago