ধর্ষণের সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড মন্ত্রিসভায় অনুমোদন

দেশব্যাপী ধর্ষণ ও নারী নিপীড়নের বিরুদ্ধে চলমান প্রতিবাদের পরিপ্রেক্ষিতে ধর্ষণের সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের (সংশোধিত) খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

দেশব্যাপী ধর্ষণ ও নারী নিপীড়নের বিরুদ্ধে চলমান প্রতিবাদের পরিপ্রেক্ষিতে ধর্ষণের সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের (সংশোধিত) খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

আজ সোমবার এই অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। তিনি জানান, দেশব্যাপী ধর্ষণ ও নারী নিপীড়নের বিরুদ্ধে চলমান প্রতিবাদের পরিপ্রেক্ষিতে ধর্ষণের সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবনের বিধান রেখে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের (সংশোধিত) খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

‘আইন বিভাগ থেকে আইনি যাচাই (ভেটিং) শেষেই মন্ত্রিপরিষদ এই অনুমোদন দিয়েছে’, বলেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

খসড়া অনুমোাদিত সংশোধনিগুলো হলো— আইনটির ধারা ৯(১) অনুযায়ী ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি ‘যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড’র পরিবর্তে ‘মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড’ কথাগুলো প্রতিস্থাপিত হবে; ধারা ৯(৪) অনুযায়ী ধর্ষণ করিয়া মৃত্যু ঘটানো বা আহত করার চেষ্টা করার অপরাধে ‘যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড’র পরিবর্তে ‘মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড’ কথাগুলো প্রতিস্থাপিত হবে; ধারা ১১(গ) অনুযায়ী সাধারণ জখমের ক্ষেত্রে আপসযোগ্য হবে এবং ধারা ২০(৭) অনুযায়ী শিশু আইন ১৯৭৪’র পরিবর্তে শিশু আইন ২০১৩ স্থাপিত হবে।

মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে আইনটির খসড়া অনুমোদন দেওয়ায় ধন্যবাদ জানিয়ে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বলেন, ‘মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিত করায় নারীর ক্ষমতায়ন এক ধাপ এগিয়ে গেল। আমি বিশ্বাস করি এই সংশোধনের মাধ্যমে এই দেশ ধর্ষণমুক্ত হবে। যারা ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের দাবিতে রাজপথ এবং বিভিন্ন মাধ্যমে জোরালো বক্তব্য ও পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন, তাদেরকেও আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।’

‘আমি চাইনা কোনো একজন নারী বা শিশু ধর্ষণের শিকার হোক। সমাজ থেকে ধর্ষণ নির্মূলে পরিবার, বিভিন্ন মিডিয়া ও কমিউনিটির দায়িত্ব রয়েছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বিশ্বের বুকে আমরা উন্নয়নের রোলমডেল সৃষ্টি করতে সক্ষম হয়েছি। উন্নয়নের এ যুগে ধর্ষণের মতো ঘৃণিত অপকর্মের বিরুদ্ধে আমরা সবাই সোচ্চার আছি। ধর্ষণকারীকে আমি ধিক্কার ও তীব্র নিন্দা জানাই। উন্নয়নের বাংলাদেশে ধর্ষকদের ঠাঁই নাই। আমি বিশ্বাস করি আইনের সঠিক প্রয়োগ, ইতিবাচক মানসিকতা ও সামাজিক সচেতনতার মাধ্যমে সমাজ ধর্ষণমুক্ত হবে এবং যারা এ অপরাধের সঙ্গে জড়িত হবে, তাদের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড বাংলার মানুষ অচিরেই সচোখে দেখতে পাবে’, বলেন প্রতিমন্ত্রী।

Comments

The Daily Star  | English