তৃতীয় লিঙ্গের শিক্ষার্থীদের ভর্তির সুযোগ দিচ্ছে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়

বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় (বাউবি) কর্তৃপক্ষ এক অনন্য ও ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। সমাজের পিছিয়ে পড়া ও বঞ্চিত সম্প্রদায় তৃতীয় লিঙ্গের শিক্ষার্থীদের এসএসসি কর্মসূচিতে ভর্তি হওয়ার সুযোগ দিচ্ছে তারা।
Third Gender.jpg
ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় (বাউবি) কর্তৃপক্ষ এক অনন্য ও ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। সমাজের পিছিয়ে পড়া ও বঞ্চিত সম্প্রদায় তৃতীয় লিঙ্গের শিক্ষার্থীদের এসএসসি কর্মসূচিতে ভর্তি হওয়ার সুযোগ দিচ্ছে তারা।

এরই ধারাবাহিকতায় কক্সবাজারের ১৫ জন তৃতীয় লিঙ্গের শিক্ষার্থী উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের কক্সবাজার উপকেন্দ্র কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হচ্ছেন।

গতকাল শুক্রবার এ উপলক্ষে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। তৃতীয় লিঙ্গের জনগোষ্ঠীর সার্বিক উন্নয়নে কর্মরত বেসরকারি সংস্থা হাটখোলা ফাউন্ডেশন ও জয়োধ্বনি’র উদ্যোগে শুক্রবার বিকাল ৪টায় কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে হয় সে অনুষ্ঠান।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন নারী সংগঠক ও কক্সবাজার শাখা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাজনীন সরওয়ার কাবেরী, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় কক্সবাজারের উপ-আঞ্চলিক পরিচালক শ্যাম রঞ্জন কর্মকার, কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন, কক্সবাজার কাস্টমস ও ভ্যাট বিভাগের উপ-কমিশনার সুশান্ত পাল, আইনজীবী আমিনুল হক আমিন, আমানুল হক আমান, জয়োধ্বনি’র নির্বাহী পরিচালক হেলাল মোরশেদ সোহাগ এবং হাটখোলার নির্বাহী পরিচালক জান্নাতুল ফেরদৌস।

এসময় নিজেদের অনুভূতি প্রকাশ করে বক্তব্য দেন তৃতীয় লিঙ্গের শিক্ষার্থী আঁখি, মোহাম্মদ হাসান, জকির উদ্দিন, রহিম উল্লাহ, মায়েনা, জোনাকি, হাসান মাহমুদ আব্দুল্লাহ, আবুল মনসুর এবং আঁখিমনি।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, বাংলাদেশের শিক্ষাক্ষেত্রে কক্সবাজার থেকে অসাধারণ এক অভিযাত্রা শুরু হলো। যা একটি সমতাভিত্তিক, বৈষম্যহীন, সুখী-সমৃদ্ধশালী দেশ গঠনে মাইলফলক হয়ে থাকবে।

উচ্চ শিক্ষা লাভের দ্বার উন্মোচন করে দেওয়ায় উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানিয়ে তৃতীয় লিঙ্গের শিক্ষার্থীরা বলেন, আমাদের সম্পর্কে দেশবাসীর দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন ঘটাতে হবে। একটি সমতাভিত্তিক সমাজ তৈরি করতে পারলে আমরা বৈষম্য ও বঞ্চনার শিকার হব না। আমরা ও উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করে জাতীয় উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখতে পারব।

উল্লেখ্য, হাটখোলার নির্বাহী পরিচালক জান্নাতুল ফেরদৌস ২০১৯ সাল থেকে নিজ উদ্যোগে তৃতীয় লিঙ্গের জনগোষ্ঠীর জন্য প্রাথমিক শিক্ষা কার্যক্রম চালু করেন। প্রতি শুক্র ও শনিবার কুরুশকুল রাস্তার মাথায় একটি আধপাকা স্থাপনায় তাদের নিয়মিত পাঠদান চলতো। এ কাজে তাকে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করতেন সাকিব নামের এক ব্যক্তি।

তৃতীয় লিঙ্গের শিক্ষার্থীদের আরও বৃহৎ পরিসরে শিক্ষা প্রদানের লক্ষ্যে জান্নাতুল ফেরদৌস বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক ড. আনিস রহমানের শরণাপন্ন হন এবং পরিচালক তাদের উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির অনুমতি প্রদান করেন। পরে কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে তাদের ভর্তির সিদ্ধান্ত হয়। কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নাসির উদ্দীন এ ব্যাপারে সার্বিক সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস দেন।

Comments

The Daily Star  | English

MV Abdullah crewmen en route to UAE

The Daily Star spoke to the family members of one crew member to find out how the events unfolded

2h ago