‘আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য আরও গতিশীল হলে জাতীয় স্বার্থ রক্ষিত হবে’

আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য আরও গতিশীল করতে পারলে জাতীয় স্বার্থ রক্ষিত হবে বলে মন্তব্য করেছেন ভারতের দিল্লিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মুহাম্মদ ইমরান।
বেনাপোল বন্দর পরিদর্শন ও বন্দর ব্যবহারকারীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা করেন হাইকমিশনার মুহাম্মদ ইমরান। ছবি: স্টার

আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য আরও গতিশীল করতে পারলে জাতীয় স্বার্থ রক্ষিত হবে বলে মন্তব্য করেছেন ভারতের দিল্লিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মুহাম্মদ ইমরান।

আজ শুক্রবার বেনাপোল বন্দর পরিদর্শন ও বন্দর ব্যবহারকারীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় এ কথা বলেন তিনি।

বাংলাদেশের হাইকমিশনার মুহাম্মদ ইমরান বলেন, ‘ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে সম্পর্ক অতীতের চেয়ে অনেক ভালো। আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য আরও গতিশীল করতে পারলে জাতীয় স্বার্থ রক্ষিত হবে। উভয় দেশের প্রধানমন্ত্রী চান দুদেশের সম্পর্ক আরও জোরদার করতে। দুদেশের পারস্পরিক বোঝাপড়া আরও বৃদ্ধি পেলে উপকৃত হবে দুই দেশের জনগণ।’

তিনি আরও বলেন, ‘স্থলবন্দরগুলো কী অবস্থায় আছে সেগুলো পর্যবেক্ষণ করে দেখছি। দুদেশের মধ্যে বাণিজ্য আরও বাড়াতে সমন্বিতভাবে প্রতিবেদন তৈরি করে উভয় দেশের সরকারের সঙ্গে আলোচনা করা হবে।’

বাংলাদেশের হাইকমিশনায় বেনাপোল বন্দর, আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট ও কাস্টমস হাউসের কার্যক্রম ঘুরে দেখেন। পরে কাস্টমস হাউসের সম্মেলন কেন্দ্রে কাস্টমস, বন্দর , উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ, রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ, সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোসিয়েশন, ভারত বাংলাদেশ চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি, ও সুধীবৃন্দের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

এদিন বিকেলে মুহাম্মদ ইমরান সীমান্তের শূন্যরেখায় পৌঁছালে বেনাপোল কাস্টম হাউসের কমিশনার মো. আজিজুর রহমান তাকে শুভেচ্ছা জানান। পরে বেনাপোল কাস্টমস কর্তৃপক্ষ, বন্দর কর্তৃপক্ষ, বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোসিয়েশন, ভারত-বাংলাদেশ চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি, আমদানি-রপ্তানিকারক সমিতির পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জানানো হয়।

মতবিনিময় সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন- কলকাতায় নিযুক্ত হাই কমিশনার তৌফিক হাসান, কলকাতা হাইকমিশনের প্রথম সচিব শামছুল আরিফ, নয়াদিল্লি হাইকমিশনের কাউন্সিলর শাহেদ আজিম।

বন্দরের সমস্যা ও সম্ভাবনা নিয়ে বক্তব্য রাখেন- বেনাপোল কাস্টমস হাউসের কমিশনার মো. আজিজুর রহমান, বেনাপোল বন্দরের ডাইরেক্টর মামুন তরফদার, ভারত বাংলাদেশ চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক মতিয়ার রহমান, ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী অফিসার সারমিন আক্তার , সিএন্ডএফ এজেন্টস এসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন, সিনিয়র সহসভাপতি আলহাজ্ব নুরুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক লতা, আমদানি-রপ্তানিকারক সমিতির সভাপতি মহসিন মিলন, পুলিশ ইমিগ্রেশনের ওসি মহসিন উদ্দিন প্রমুখ।

বক্তারা বেনাপোলে রেলের কনটেইনার টার্মিনাল নির্মাণ, বেনাপোলের ওপারে ভারতের বনগাও কালিতলা পার্কিং-এ আমদানি পণ্য বোঝাই ট্রাক থেকে চাদাবাজি বন্ধ, বন্দরের নতুন করে জমি অধিগ্রহণের জোর দাবি জানান।

Comments

The Daily Star  | English

Hiring begins with bribery

UN independent experts say Bangladeshi workers pay up to 8 times for migration alone due to corruption of Malaysia ministries, Bangladesh mission and syndicates

1h ago