খুলনায় পাটকল শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষ: জামিন পেলেন ১২ আন্দোলনকারী

খুলনায় ইস্টার্ন পাটকলের সামনে পাটকল শ্রমিক ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় গ্রেপ্তার ১২ শ্রমিক ও রাজনৈতিক নেতা জামিন পেয়েছেন।
Khulna Map
স্টার অনলাইন গ্রাফিক্স

খুলনায় ইস্টার্ন পাটকলের সামনে পাটকল শ্রমিক ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় গ্রেপ্তার ১২ শ্রমিক ও রাজনৈতিক নেতা জামিন পেয়েছেন।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে খুলনার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তরিকুল ইসলাম এই জামিন আদেশ দেন।

এর আগে, গত ২১ অক্টোবর তাদের জামিন শুনানির জন্য আদালতে তোলা হলে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।।

মামালার আসামিপক্ষের আইনজীবী বাবুল হাওলাদার ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘১৪ আসামির মধ্যে ১২ জনের জামিনের আদেশ দিয়েছেন আদালত। অন্য দুজনের একজন পলাতক আছেন, অপরজন পুলিশের হেফাজতে চিকিৎসাধীন।’

গত ১৯ অক্টোবর ১৪ দফা দাবিতে আটরা শিল্প এলাকায় খুলনা-যশোর মহাসড়ক অবরোধ কর্মসূচি শুরু করে পাটকল রক্ষায় সম্মিলিত নাগরিক পরিষদ নামের একটি সংগঠন। ওই কর্মসূচিতে যোগ দেন শত শত পাটকল শ্রমিক। কর্মসূচি শুরু হওয়ার কিছুক্ষণ পর পুলিশের সঙ্গে আন্দোলনকারীদের সংঘর্ষ শুরু হয়। এ সময় আন্দোলনকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে লাঠিচার্জ, টিয়ারসেল নিক্ষেপ ও গুলি ছোড়ে পুলিশ। পরে পুলিশ ১৩ জন বাম ঘরনার রাজনৈতিক নেতা ও শ্রমিককে সেখান থেকে আটক করে।

ওই ঘটনায় ১৪ জনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাতনামা আরও ২৫০ জনকে আসামি করে মামলা করেন খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের (কেএমপি) খানজাহান আলী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মেহেদী হাসান। মামলায় আটককৃতদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে ২০ অক্টোবর আদালতে সোপর্দ করা হয়।

পাটকল রক্ষায় সম্মিলিত নাগরিক পরিষদের আহ্বায়ক কুদরত-ই-খুদা ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘১৪ জনের মধ্যে ১২ জনের জামিন হয়েছে। শ্রমিক নওশের আলী পুলিশি হেফাজতে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। আর মোজাম্মেল হোসেন খান এখনো পলাতক আছেন।’

আরও পড়ুন:

খুলনায় পাটকল শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ, আহত কমপক্ষে ২০

পাটকল শ্রমিকদের ওপর হামলা ও গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে ৫৭ নাগরিকের বিবৃতি

পাটকল আন্দোলনে গ্রেপ্তারকৃতদের মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ

Comments

The Daily Star  | English

Govt primary schools asked to suspend daily assemblies

The government has directed to suspend daily assemblies at all its primary schools across the country until further notice

36m ago