কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন কিনতে আইএফসিকে পাশে থাকার আহ্বান

ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্স করপোরেশনকে (আইএফসি) সহযোগিতার হাত আরও প্রসারিত করার আহ্বান জানিয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আব্দুর রউফ তালুকদার বলেছেন, ‘আমাদের সরকার কোভিড-১৯ টিকা ক্রয়ের বিষয়ে অত্যন্ত আগ্রহী এবং বদ্ধপরিকর। অর্থমন্ত্রী ইতোমধ্যে দেশের সব মানুষকে টিকা আবিস্কারের সঙ্গে সঙ্গে প্রাপ্তি নিশ্চিত করার আশা ব্যক্ত করেছেন। তাই এ খাতে আমাদের বড় অংকের অর্থ সংস্থানের বিষয়টি জড়িত।’
IFC_Vaccine_31Oct20.jpg
ছবি: সংগৃহীত

ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্স করপোরেশনকে (আইএফসি) সহযোগিতার হাত আরও প্রসারিত করার আহ্বান জানিয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আব্দুর রউফ তালুকদার বলেছেন, ‘আমাদের সরকার কোভিড-১৯ টিকা ক্রয়ের বিষয়ে অত্যন্ত আগ্রহী এবং বদ্ধপরিকর। অর্থমন্ত্রী ইতোমধ্যে দেশের সব মানুষকে টিকা আবিস্কারের সঙ্গে সঙ্গে প্রাপ্তি নিশ্চিত করার আশা ব্যক্ত করেছেন। তাই এ খাতে আমাদের বড় অংকের অর্থ সংস্থানের বিষয়টি জড়িত।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের দেশীয় তিনটি ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান তাদের নিজেদের প্রতিষ্ঠানগুলোকে টিকা তৈরির উপযোগী করতে শুরু করেছে। আশা করা যায়, টিকা আবিস্কারের ছয় মাসের মধ্যেই তারা দেশে টিকা প্রস্তুত করতে সক্ষম হবে। যেহেতু সবার জন্য টিকা আমদানি করা সম্ভব নয়, তাই দেশীয় টিকার ওপর আমরা গুরুত্ব দেবো। এসব প্রতিষ্ঠানে টিকা প্রস্তুত করতে প্রচুর বিনিয়োগের প্রয়োজন হবে। আইএফসির এ খাতে সহযোগিতা করার সুযোগ রয়েছে।’

গত ২৯ অক্টোবর সন্ধ্যায় বিশ্ব ব্যাংক–আইএমএফ এর বার্ষিক সভা-২০২০ এর অংশ হিসেবে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মু্স্তফা কামাল ও আইএফসি’র চিফ অপারেটিং অফিসার স্টিফানি ফন ফ্রিডবার্গের মধ্যে ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বাংলাদেশ ও আইএফসি’র প্রতিনিধি দল অংশ নেয়। সেখানে অর্থ সচিব এই আহ্বান জানান।

বাংলাদেশের প্রতিনিধি দল থেকে বিশ্ব ব্যাংকে বাংলাদেশের বিকল্প নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ শফিউল আলম, অর্থ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আব্দুর রউফ তালুকদার, অর্থবিভাগ ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন আলোচনায় অংশ নেন।

আইএফসি’র পক্ষ থেকে এশিয়া প্যাসিফিকের ভাইস প্রেসিডেন্ট আলফোনসো গার্সিয়া মোরা এবং বাংলাদেশ, ভুটান ও নেপালের কান্ট্রি ম্যানেজার ওয়েন্ডি ওয়ার্নার আলোচনায় অংশ নেন।

আব্দুর রউফ তালুকদার বলেন, ‘আর্থিক খাত পুনর্গঠন ও সুদের হার ক্যাপিংয়ে আমরা কাজ করছি। আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ সলভেনসি অ্যাক্ট, ব্যাংক কোম্পানি অ্যাক্ট, অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট অ্যাক্টসহ বেশ কিছু আইন প্রণয়নের কাজে চলছে যা আমাদের আর্থিক খাত পুনর্গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ ২০৩০ সালের মধ্যে এসডিজি এবং ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উচ্চ আয়ের দেশের মর্যাদা অর্জনের প্রত্যাশায় আত্মবিশ্বাসী। বাস্তবসম্মত ও সময়োপযোগী উদ্যোগ নেওয়ার মাধ্যমে কোভিড-১৯ এর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে অর্থনীতিকে আবার পুনরুদ্ধার করতে আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বকে কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্বীকৃতি জানাই।’

তিনি আরও বলেন, ‘গত বছর আইএফসির সহায়তা ও সহযোগিতায় আন্তর্জাতিক বাজারে বাংলাদেশ প্রথম টাকা বন্ড চালু করে। করোনার কারণে এটি কিছুটা স্তিমিত হয়ে গেলেও আশা করা যায় এখন আবার আইএফসি এ খাতটি সমৃদ্ধ করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।’

এ সময় আইএফসিকে সুদের হার কমানোর অনুরোধ জানান অর্থমন্ত্রী।

Comments

The Daily Star  | English

Trees are Dhaka’s saviours

Things seem dire as people brace for the imminent fight against heat waves and air pollution.

5h ago