হোয়াইট হাউজের পথে বাইডেন, আইনি উপায় খুঁজছেন ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন যখন বিজয়ের সন্নিকটে, রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প তা ঠেকাতে খুঁজছেন আইনি পন্থা। এ মুহূর্তে চূড়ান্ত ফল নির্ধারণে নির্বাচন কর্মকর্তারা শেষ কয়েকটি রাজ্যের ভোট গণনা করছেন। আর সম্ভাব্য পরাজয়ের আঁচ পেয়ে রিপাবলিকান দলের সমর্থকরা প্রতিবাদে রাস্তায় নেমেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন যখন বিজয়ের সন্নিকটে, রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প তা ঠেকাতে খুঁজছেন আইনি পন্থা। এ মুহূর্তে চূড়ান্ত ফল নির্ধারণে নির্বাচন কর্মকর্তারা শেষ কয়েকটি রাজ্যের ভোট গণনা করছেন। আর সম্ভাব্য পরাজয়ের আঁচ পেয়ে রিপাবলিকান দলের সমর্থকরা প্রতিবাদে রাস্তায় নেমেছেন।

রয়টার্স জানায়, ট্রাম্প কোন প্রমাণ ছাড়াই জালিয়াতির অভিযোগ তুলছেন, মামলা করছেন এবং ভোটগ্রহণ বন্ধ হওয়ার দুদিন পর এসে, নতুন করে ভোট গণনার প্রস্তাব রাখছেন।

এ লড়াই এখন মাত্র পাঁচটি রাজ্যের ফলাফলের ওপর বর্তাচ্ছে। নেভাদা ও অ্যারিজোনায় অল্প ব্যবধানে এগিয়ে আছেন বাইডেন। ট্রাম্পের সম্ভাবনাময় রাজ্য পেনসিলভেনিয়া ও জর্জিয়াতে পোস্টাল ব্যালট ও নতুন পাওয়া ভোট গণনার পর সেখানেও ব্যবধান কমে আসছে। উত্তর ক্যারোলিনাতে রিপাবলিকান প্রার্থী জয়ের দ্বারপ্রান্তে থেকেও সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে ট্রাম্পের সঙ্গে বাইডেনের ব্যবধান এখন খুবই সামান্য।

ট্রাম্পকে দ্বিতীয়বারের মতো জিততে হলে তার এগিয়ে থাকা রাজ্যগুলোর সঙ্গে অ্যারিজোনা বা নেভাদার একটিতে জিততেই হবে। নইলে এর আগে ১৯৯২ সালের নির্বাচনে জয়ী রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশের পর, তিনিই প্রথম এমন দুর্ভাগ্যের অধিকারী হবেন।

ডিসেম্বরের ১৪ তারিখের মধ্যে ইলেক্টোরাল কলেজের বৈঠক হওয়ার আগের কয়েক সপ্তাহ হয়তো অনিশ্চয়তা চলবে। চলবে পোস্টাল ব্যালটের ভোট গণনা ও আদালতে বিরোধ নিষ্পত্তি। তবে, যাই হোক না কেন এ নির্বাচনে বিজয়ী ব্যক্তি ২০ জানুয়ারি প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ গ্রহণ করবেন।

নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে উত্তেজনা বাড়বার সঙ্গে সঙ্গে বুধবার অ্যারিজোনার ফিনিক্সে গুজব ওঠে যে ভোট আর গণনা হচ্ছে না। এতে ট্রাম্পের প্রায় ২০০ সমর্থক বন্দুক হাতে নির্বাচন কার্যালয়ের বাইরে জড়ো হয়। মিশিগানে ভোট জালিয়াতি হচ্ছে, এমন গুজবে মিশিগানের ডেট্রয়েটে অন্তত ৩০ জন নির্বাচন কর্মকর্তাকে রিপাবলিকান সমর্থকরা কার্যালয়ে ঢুকতে না দিয়ে অবরুদ্ধ করে রাখে।

দাঙ্গা ঠেকাতে ওরেগনের পোর্টল্যান্ডে পুলিশ অস্ত্রসহ ১১ জনকে আটক করেছে। নিউইয়র্ক, ডেনভার ও মিনিয়াপলিসেও কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

অন্যান্য শহরে অবশ্য ট্রাম্পবিরোধীরা ভোট গণনা অব্যাহত রাখার দাবিতে বিক্ষোভ করেছেন। কারণ, যত ভোট গণনা হচ্ছে ততই এগিয়ে যাচ্ছেন বাইডেন।

বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত সর্বমোট ভোটের হিসাবে বাইডেন সারা দেশে ট্রাম্পের তুলনায় ৩৬ লাখ বেশি ভোট পেয়ে এগিয়ে আছেন। তবে, কয়েকটি রাজ্যে ব্যবধান খুবই সামান্য। উইসকনসিনের ৩৩ লাখ ভোটের মধ্যে বাইডেন ট্রাম্পের চেয়ে মাত্র ২১ হাজার ভোট বেশি পেয়েছেন। জর্জিয়াতে ৫০ লাখ ভোটের মধ্যে ট্রাম্প ১৯ হাজার ভোটে এগিয়ে আছেন। এখানে গণনা এখনো চলছে।

৭৭ বছর বয়সী বাইডেন বুধবার জয়ের ভবিষ্যদ্বাণী দিয়ে ডেমোক্র্যাট নিয়ন্ত্রিত হোয়াইট হাউজ তৈরিতে একটি ওয়েবসাইট চালু করেন।

এ দিকে, ৭৪ বছর বয়সী ট্রাম্প ফন্দি আঁটছেন যে যদি তিনি হেরে যান তবে ভোট প্রক্রিয়াকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করবেন। মঙ্গলবার নির্বাচনের দিন তিনি নিজেকে বিজয়ী বলে উড়ো ঘোষণা দেন। ডেমোক্র্যাটদের বিরুদ্ধে কোনো প্রমাণ হাজির না করেই তিনি ভোট চুরির অভিযোগ তোলেন এবং এ নিয়ে আদালতে যাওয়ার হুমকি দেন।

পেনসিলভেনিয়ায় দেরিতে আসা পোস্টাল ব্যালটের গণনা বন্ধ করতে সুপ্রিম কোর্টে তার সমর্থকরা একটি মামলা করেছেন। ভোট গণনা বন্ধে মিশিগানে এবং আরও কয়েকটি অঙ্গরাজ্যে রিপাবলিকানরা বিভিন্ন অভিযোগ দায়ের করেছেন।

 

Comments

The Daily Star  | English

'Why did they kill my father?'

Slain MP’s daughter demands justice, fair investigation

1h ago