ট্রাম্পের পরাজয়ের সংবাদে জনতা যখন উল্লাস করছিল, তিনি তখন গলফ খেলছিলেন

ইতিহাসে আছে, রোম যখন পুড়ছিল নীরো তখন বাঁশি বাজাচ্ছিলেন। ইতিহাসে স্থান পেল, ট্রাম্পের পরাজয়ের সংবাদে জনতা যখন উল্লাস করছিল, তিনি তখন গলফ খেলছিলেন!
জনতার উল্লাস ও ট্রাম্পের গলফ খেলার সেই দৃশ্য। ছবি: সংগৃহীত

ইতিহাসে আছে, রোম যখন পুড়ছিল নীরো তখন বাঁশি বাজাচ্ছিলেন। এবার ইতিহাসে স্থান পেল, ট্রাম্পের পরাজয়ের সংবাদে জনতা যখন উল্লাস করছিল, তিনি তখন গলফ খেলছিলেন!

দ্বিতীয়বারের মতো যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার ব্যাপারে বরাবরই আত্মবিশ্বাসী ছিলেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ভক্তদের মতে, তিনি কখনো হার মানতে শেখেননি।

মার্কিন গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, জো বাইডেনকে যখন আমেরিকার পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে ঘোষণা করা হচ্ছিল, ট্রাম্প তখন ছিলেন গলফ মাঠে।

সিএনএনে প্রকাশিত এক ভিডিওতে দেখা যায়, বিজয় ঘোষণার পর বাইডেন সমর্থকরা হোয়াইট হাউজের সামনে জড়ো হয়ে উল্লাস করছেন ও গাড়ির হর্ন বাজাচ্ছেন। তবে, সেসময় হোয়াইট হাউজে ছিলেন না ট্রাম্প।

ভিডিওতে দেখা যায়, ভার্জিনিয়ার স্টারলিংয়ের ক্লাবে তিনি গলফ খেলছেন। তার পরনে ছিল খেলার পোশাক।

দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, শনিবার গলফ মাঠ থেকে ফেরার সময় বাইডেনের জয়ধ্বনি শুনতে শুনতেই হোয়াইট হাউজে ঢোকেন ট্রাম্প। তখন কম্পাউন্ডের পাশেই চলছিল বিজয় মিছিল।

এ সময় গণমাধ্যমকর্মীদের দিকে এক পলক তাকিয়ে আঙুল উঁচিয়ে তিনি উৎসাহব্যঞ্জক ইশারা দেখিয়েছেন বলেও জানানো হয় ওই প্রতিবেদনে। সেসময় নিরাপত্তাকর্মীদের মুখে মাস্ক থাকলেও ট্রাম্পের মুখে কোনো মাস্ক ছিল না।

যুক্তরাষ্ট্রের গণতান্ত্রিক রীতি অনুযায়ী কোনো প্রার্থীর বিজয় সুনিশ্চিত হলে আনুষ্ঠানিক ঘোষণার আগেই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী পরাজয় স্বীকার করে জনসমক্ষে ভাষণ দেন।

তবে, এখনও পর্যন্ত পরাজয় স্বীকার করেননি ট্রাম্প।

এর কিছুক্ষণ পরই এক বিবৃতিতে ট্রাম্প বলেন, ‘খুব সহজ ব্যাপার হলো নির্বাচন শেষ হতে এখনো অনেক দেরি। জো বাইডেন কোনো রাজ্যের বিজয়ী হিসেবে সনদ পাননি। অনেক রাজ্যে বাধ্যতামূলক ভোট পুনর্গণনা হবে।’

এ বিষয়ে আবারও আইনি লড়াই চালিয়ে যাওয়ার কথা জানিয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘সোমবার থেকে আমাদের পক্ষ থেকে আইনি প্রক্রিয়া শুরু হবে। সঠিকভাবে বিজয়ীর আসন নিশ্চিত করার জন্য আমরা আদালতে মামলার কাজ শুরু করবো।’

এর আগেও একাধিকবার শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করবেন না বলে জানিয়েছিলেন ট্রাম্প।

নির্বাচনের দিন ভোট গণনার শুরুতে ট্রাম্পই এগিয়ে ছিলেন। যে কারণে তিনি নিজেকে ‘বিজয়ী’ ঘোষণাও করেন।

পরে ডাকযোগে আসা ভোটগুলোর গণনা শুরু হওয়ার পর থেকেই পরাজয়ের আভাস পেতে শুরু করেন ট্রাম্প। বিপরীতে জয়ের দিকে এগোতে লাগলেন ডেমোক্রেট প্রার্থী জো বাইডেন।

ট্রাম্প দাবি করেন, তার কাছে থেকে নির্বাচন ‘চুরি’ করে নেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় তিন দশকের মধ্যে ট্রাম্পই প্রথম দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে ব্যর্থ হলেন। এর আগে ১৯৯২ সালে সাবেক প্রেসিডেন্ট সিনিয়র বুশের ক্ষেত্রে এমনটি ঘটেছিল।

আরও পড়ুন:

Comments

The Daily Star  | English

Lifts at public hospitals: Horror abounds

Shipon Mia (not his real name) fears for his life throughout the hours he works as a liftman at a building of Sir Salimullah Medical College, commonly known as Mitford hospital, in the capital

3h ago