মাইন্ড এইড হাসপাতালের পরিচালক নিয়াজ মোর্শেদ গ্রেপ্তার

চিকিৎসার নামে পুলিশ কর্মকর্তাকে হত্যার অভিযোগে দায়ের হওয়া মামলায় মাইন্ড এইড হাসপাতালের পরিচালক নিয়াজ মোর্শেদকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ বুধবার সকালে ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার মৃত্যুঞ্জয় দে দ্য ডেইলি স্টারকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
ASP_Anisul.jpg
জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার আনিসুল করিম | ছবি: সংগৃহীত

চিকিৎসার নামে পুলিশ কর্মকর্তাকে হত্যার অভিযোগে দায়ের হওয়া মামলায় মাইন্ড এইড হাসপাতালের পরিচালক নিয়াজ মোর্শেদকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ বুধবার সকালে ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার মৃত্যুঞ্জয় দে দ্য ডেইলি স্টারকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘গতকাল রাতে আগারগাঁওয়ের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরো সায়েন্সেস ও হাসপাতাল থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।’

ডিএমপি মিডিয়া ও জনসংযোগ বিভাগের উপকমিশনার ওয়ালিদ হোসেন বলেন, ‘নিয়াজ মোর্শেদ প্যারালাইজড। তিনি  ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরো সায়েন্সেস ও হাসপাতালে ভর্তি আছে। আদালতে আবেদন করা হয়েছে, গ্রেপ্তার নিয়াজ মোর্শেদকে ওই হাসপাতালেই চিকিৎসা দেওয়া হবে।’

ডিএমপি’র তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার হারুন অর রশীদ গতকাল সংবাদ সম্মেলনে জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) আনিসুল করিমের মৃত্যুর ঘটনাটি সুস্পষ্ট হত্যাকাণ্ড বলে উল্লেখ করেন। তিনি জানান, এ ঘটনায় সরাসরি সংশ্লিষ্টতা থাকায় ১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাদের আদালতের মাধ্যমে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

এরা হলেন— মাইন্ড এইড হাসপাতালের মার্কেটিং ম্যানেজার আরিফ মাহমুদ জয়, কো-অর্ডিনেটর রেদোয়ান সাব্বির, কিচেন শেফ মাসুদ, ওয়ার্ড বয় জোবায়ের হোসেন, তানিফ মোল্লা, সজীব চৌধুরী, অসীম চন্দ্র পাল, লিটন আহাম্মদ, সাইফুল ইসলাম পলাশ ও ফার্মাসিস্ট তানভীর হাসান।

পুলিশ জানায়, এএসপি আনিসুল বরিশালে কর্মরত ছিলেন। কয়েক দিন ধরে তিনি বেশ চুপচাপ থাকছেন লক্ষ্য করে পরিবারের সদস্যরা তাকে শ্যামলীতে জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটে নিয়ে যান। মাইন্ড এইড হাসপাতালে মানসিক রোগের চিকিৎসা দেওয়ার কথা বলা হলেও তারা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কোনো বৈধ কাজগপত্র দেখাতে পারেনি। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অনুমোদন নেই তাদের। কোনো চিকিৎসক ছাড়াই হাসপাতালটি পরিচালনা করা হচ্ছিল। হাসপাতাল পরিচালনা পর্ষদের কেউ চিকিৎসক নন।

আরও পড়ুন:

সিনিয়র এএসপি আনিসুল করিমের মৃত্যু ‘সুস্পষ্ট হত্যাকাণ্ড’, গ্রেপ্তার ১০

Comments

The Daily Star  | English

Personal data up for sale online!

A section of government officials are selling citizens’ NID card and phone call details through hundreds of Facebook, Telegram, and WhatsApp groups, the National Telecommunication Monitoring Center has found.

40m ago