হংকংয়ের সব গণতন্ত্রপন্থী আইনপ্রণেতার পদত্যাগ

হংকংয়ের চার গণতন্ত্রপন্থী আইনপ্রণেতাকে চীনের অযোগ্য ঘোষণার প্রতিবাদে হংকংয়ের সব গণতন্ত্রপন্থী আইনপ্রণেতা একযোগে পদত্যাগ করেছেন।
HONGKONG.jpg
হংকংয়ের সব গণতন্ত্রপন্থী আইনপ্রণেতা একযোগে পদত্যাগ করেছেন। ছবি: রয়টার্স

হংকংয়ের চার গণতন্ত্রপন্থী আইনপ্রণেতাকে চীনের অযোগ্য ঘোষণার প্রতিবাদে হংকংয়ের সব গণতন্ত্রপন্থী আইনপ্রণেতা একযোগে পদত্যাগ করেছেন।

আজ বুধবার হংকংয়ের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি বিবেচনা করে নগর সরকার কর্তৃক চার রাজনীতিবিদকে অযোগ্য ঘোষণার প্রস্তাব পাস হয়েছে।

বিবিসি জানায়, হংকংয়ের আইনসভায় বর্তমানে বেইজিংপন্থীরা সংখ্যাগরিষ্ঠ।

১৯৯৭ সালে হংকংকে চীনের কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার পর, এই প্রথমবারের মতো দেশটির আইনপ্রণেতাদের মধ্যে মতবিরোধ দেখা দিল।

হংকং ডেমোক্রেটিক পার্টির চেয়ারম্যান উ চি-ওয়াই সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা বিশ্বকে আর বলতে পারি না যে, আমাদের এখনো “এক দেশ-দুই নীতি” চলছে। এটি আনুষ্ঠানিকভাবে শেষ হয়ে গেছে।’

হংকং একটি ব্রিটিশ উপনিবেশ ছিল। পরে ‘এক দেশ-দুই নীতি’র অধীনে একে চীনের হাতে তুলে দেওয়া হয়। ২০৪৭ সাল পর্যন্ত চীনের চেয়ে বেশি অধিকার ও স্বাধীনতা ভোগ করার কথা হংকংয়ের।

তবে চার আইনপ্রণেতাকে বরখাস্ত করার বিষয়টি হংকংয়ের স্বাধীনতাকে সীমাবদ্ধ করার চীনের সর্বশেষ প্রয়াস হিসেবে দেখা হচ্ছে।

যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাব চীনা প্রস্তাবকে ‘যুক্তরাজ্য-চীন’ যৌথ ঘোষণার আওতায় হংকংয়ের স্বায়ত্তশাসন ও স্বাধীনতার ওপর ‘আক্রমণ’ বলে অভিহিত করেছেন।

‘বিরোধী ডেমোক্রেটিকদের হয়রানি, দমন ও অযোগ্য ঘোষণা করার এই অভিযান চীনের আন্তর্জাতিক অবস্থানকে কলঙ্কিত করবে এবং হংকংয়ের দীর্ঘমেয়াদী স্থিতিশীলতাকে ক্ষুণ্ণ করবে’, বলেন তিনি।

Comments

The Daily Star  | English

A feminist approach to climate solutions

Feminist approaches offer significant opportunities for driving positive change.

4h ago