কৃষক বিদ্রোহ: পাল্টা কর্মসূচির পরিকল্পনা বিজেপির

ভারতে বিতর্কিত কৃষি আইনের বিরুদ্ধে কৃষকদের প্রতিবাদ অব্যাহত আছে। সরকারের সঙ্গে কৃষকদের কয়েক দফা বৈঠকের পরেও কোনো সমাধান হয়নি। কৃষকরাও প্রতিবাদ থেকে সরে আসেনি। তবে, এবার কৃষক বিদ্রোহ মোকাবিলায় ভারতব্যাপী সাত শতাধিক সংবাদ সম্মেলন এবং প্রায় একশ বৈঠকের পরিকল্পনা করেছে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)।
ছবি: রয়টার্স

ভারতে বিতর্কিত কৃষি আইনের বিরুদ্ধে কৃষকদের প্রতিবাদ অব্যাহত আছে। সরকারের সঙ্গে কৃষকদের কয়েক দফা বৈঠকের পরেও কোনো সমাধান হয়নি। কৃষকরাও প্রতিবাদ থেকে সরে আসেনি। তবে, এবার কৃষক বিদ্রোহ মোকাবিলায় ভারতব্যাপী সাত শতাধিক সংবাদ সম্মেলন এবং প্রায় একশ বৈঠকের পরিকল্পনা করেছে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)।

আজ শুক্রবার ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম ইন্ডিয়া টুডে বিষয়টি জানায়।

ইন্ডিয়া টুডের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এসব সংবাদ সম্মেলন ও বৈঠকে কেন্দ্রীয় সরকারের নতুন তিন কৃষি আইনের পক্ষে প্রচার চালাবে বিজেপি।

দলটি কৃষি আইন নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে এমন বিস্তৃত প্রচার পরিকল্পনা তৈরি করেছে বলে ইন্ডিয়া টুডে জানায়।

ওই পরিকল্পনা অনুযায়ী, বিজেপি নেতারা সারাদেশের ৭১৮ জেলায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বক্তৃতা দেবেন। এর বাইরেও অনেক রাজ্যের একশ স্থানে কৃষক সম্মেলনের বা চৌপালের আয়োজন করা হবে।

এসব সংবাদ সম্মেলন ও বৈঠকের তারিখ খুব শিগগির ঘোষণা করবে বিজেপি।

কৃষকরা সরকারের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যানের কয়েকদিন পরে এমন সিদ্ধান্ত এলো বিজেপির পক্ষ থেকে।

কৃষক ইউনিয়ন সরকারের দেওয়া প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে বলেছে, প্রস্তাবে তাদের প্রধান দাবি নতুন কৃষি আইনের পুরোপুরি বাতিল নিয়ে কিছু বলা হয়নি।

বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমার বলেন, ‘কোনো আইন পুরোপুরি খারাপ নয়’। এছাড়া, কৃষকরা যে আইনগুলো তাদের ক্ষতি করতে পারে বলে মনে করছে সেগুলোর নির্দিষ্ট বিধান নিয়ে সরকার তাদের সঙ্গে আলোচনা করতে প্রস্তুত।

এদিকে, কৃষক ইউনিয়নগুলো আগামী ১৪ ই ডিসেম্বরের মধ্যে তাদের প্রতিবাদ আরও কঠোর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী, শনিবার কৃষকরা দিল্লি-জয়পুর এবং দিল্লি-আগ্রা মহাসড়ক অবরোধ করবে। এছাড়া, তারা ১৪ ডিসেম্বর নতুন করে ‘দিল্লি চলো’ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে।

এ ছাড়া তারা হুমকি দিয়েছে, দাবি পূরণ না হলে শিগগির রেলপথেও অবরোধ শুরু করবে।

Comments