খেলা

মুশফিকদের অল্প রানে বেঁধে ফেললেন মোস্তাফিজ-শরিফুল-নাহিদুল

গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামের মোস্তাফিজুর রহমান বল হাতে আলো ছড়ালেন শেষে। তার আগে নিয়ন্ত্রিত বোলিং করলেন শরিফুল ইসলাম-নাহিদুল ইসলামরা।
mustafiz
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

উইকেট পতনের শুরুটা হলো তৃতীয় ওভারে। সেই ধারা বজায় থাকল ইনিংসের শেষ পর্যন্ত। টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা বেক্সিমকো ঢাকা গড়তে পারল না কোনো ভালো জুটি। গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামের মোস্তাফিজুর রহমান বল হাতে আলো ছড়ালেন শেষে। তার আগে নিয়ন্ত্রিত বোলিং করলেন শরিফুল ইসলাম-নাহিদুল ইসলামরা। ফলে ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে অল্প রানে মুশফিকুর রহিমদের বেঁধে ফেলল মোহাম্মদ মিঠুনের দল।

মঙ্গলবার মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার ম্যাচে ১১৬ রানে গুটিয়ে গেছে ঢাকা। মোস্তাফিজ ৩২ রানে নেন ৩ উইকেট। আরেক বাঁহাতি পেসার শরিফুলের শিকার ১৭ রানে ২ উইকেট। ১ উইকেট নিতে স্পিনার নাহিদুলের খরচা মাত্র ১৫ রান।

ইনিংসের শুরুতে চমক উপহার দেয় ঢাকা। নিয়মিত লোয়ার অর্ডারে ব্যাট করা মুক্তার আলীকে ওপেনিংয়ে পাঠানো হয় সাব্বির রহমানের সঙ্গে। কিন্তু এই বাজি কাজে লাগেনি। ৩ বলের ব্যবধানে বিদায় নেন দুজন।

রাকিবুল হাসানের এক ওভারে ২টি চার মারা সাব্বির পুল করতে গিয়ে মাঝবৃত্তের ভেতরে ক্যাচ দেন সৈকত আলীকে। ১১ বলে ১১ রান করা এই ডানহাতি ব্যাটসম্যানের হন্তারক শরিফুল। পরের ওভারে বল হাতে নিয়ে প্রথম ডেলিভারিতেই মুক্তারকে বিদায় করেন নাহিদুল। টাইমিংয়ে গড়বড় করে কভারে মোহাম্মদ মিঠুনের হাতে ধরা পড়েন তিনি।

১৯ রানের মধ্যে ২ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়া ঢাকা পাওয়ার প্লেতে স্বাভাবিকভাবেই সুবিধা করতে পারেনি। তারা তোলে মাত্র ৩৩ রান। এসময়ে আসে মোটে ৪টি বাউন্ডারি।

পজিশন বদলে তিনে নামা নাঈম শেখ ও অধিনায়ক মুশফিক এরপর প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা চালান। কিন্তু ডট বলে বাড়তে থাকে চাপও। তা সরানোর প্রচেষ্টায় রাকিবুলকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে ডিপ মিড উইকেটে ধরা পড়েন নাঈম। ৩২ বলে ৩১ রানের ইনিংস সর্বোচ্চ জুটিতে তার অবদান ১৭ বলে ১২ রান।

এরপর আলোকস্বল্পতায় খেলা বন্ধ থাকে নয় মিনিট (স্ট্র্যাটেজিক টাইম আউটসহ)। ফ্লাড লাইটের বেশ কয়েকটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তৈরি হয় এমন পরিস্থিতি।

al-amin
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

আগের দিন ফরচুন বরিশালের বিপক্ষে দ্রুত ৩ উইকেট হারানোর পর ঢাকার হাল ধরেছিলেন মুশফিক ও ইয়াসির আলী। এদিন আভাস ছিল। প্রয়োজনও ছিল। কিন্তু সম্ভাবনার কুঁড়ি ফুল হয়ে ফোটেনি।

সঙ্গীকে স্ট্রাইক দিতে ভুগতে থাকা মুশফিক স্লগ সুইপ করতে গিয়ে ধরা পড়েন রাকিবুলের হাতে। মোসাদ্দেক হোসেনের ডেলিভারিতে সীমানা থেকে দৌড়ে এসে ঝাঁপিয়ে পড়ে দারুণ ক্যাচ নেন রাকিবুল। ৩১ বলের শ্লথ ইনিংসে মুশফিকের সংগ্রহ ২৫ রান। তাতে বাউন্ডারি ২টি।

ঢাকার পঞ্চম উইকেটের পতন হয় দলীয় ৯৪ রানে। ১৮তম ওভারে। মোস্তাফিজকে ড্রাইভ করতে গিয়ে উইকেটের পেছনে লিটন দাসের গ্লাভসবন্দি হন ইয়াসির। ১টি করে চার ও ছয়ে ২১ বলে তিনি করেন ২৪ রান।

ওই ওভারে চার মেরে দলের সংগ্রহ তিন অঙ্কে নিয়ে যান আল-আমিন। এরপর আকবর আলী ফেরেন দ্রুত। শরিফুলের বলে তিনিও উইকেটরক্ষকের হাতে ক্যাচ দেন।

ইনিংসের ১৯তম ও নিজের শেষ ওভারে টানা ২ উইকেট নিয়ে হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা জাগান মোস্তাফিজ। আল-আমিনের ব্যাটে ছক্কা খাওয়ার পরের বলে তাকে বোল্ড করে দেন তিনি। ওভারের তৃতীয় বলে নাসুম আহমেদের স্টাম্প উপড়ে ফেলার পাশাপাশি ভেঙেও ফেলেন দ্য ফিজ খ্যাত তারকা। 

ঢাকার হয়ে একমাত্র মারমুখী ব্যাটিং করা আল-আমিন করেন ১৮ বলে ২৫ রান। নাসুম পান গোল্ডেন ডাকের স্বাদ। শেষ ওভারে দলটির ইনিংস মুড়িয়ে দেন সৌম্য সরকার।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: 

বেক্সিমকো ঢাকা: ২০ ওভারে ১১৬ (সাব্বির ১১, মুক্তার ৭, নাঈম ১২, মুশফিক ২৫, ইয়াসির ২৪, আল-আমিন ২৫, আকবর ২, রবিউল ৩*, নাসুম ০, রুবেল ২, শফিকুল ০; শরিফুল ২/১৭, রাকিবুল ১/২৬, নাহিদুল ১/১৫, মোস্তাফিজ ৩/৩২, মোসাদ্দেক ১/২২, সৌম্য ১/৩)।

Comments

The Daily Star  | English