যুক্তরাজ্যে করোনার নতুন স্ট্রেইন ‘আরও দ্রুত ছড়ায়’, বড়দিনে কঠোর সতর্কতা

যুক্তরাজ্যে শনাক্ত হওয়া কোভিড-১৯ এর নতুন স্ট্রেইন আরও দ্রুত ছড়াতে পারে বলে জানিয়েছেন ইংল্যান্ডের প্রধান মেডিকেল কর্মকর্তা ক্রিস হুইটি।
যুক্তরাজ্যে নতুন করে করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে জনগণকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। ১৯ ডিসেম্বর ২০২০। ছবি: রয়টার্স

যুক্তরাজ্যে শনাক্ত হওয়া কোভিড-১৯ এর নতুন স্ট্রেইন আরও দ্রুত ছড়াতে পারে বলে জানিয়েছেন ইংল্যান্ডের প্রধান মেডিকেল কর্মকর্তা ক্রিস হুইটি।

গতকাল শনিবার দেশটিতে করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে জনগণকে সতর্ক হওয়ার আহ্বানও জানিয়েছেন তিনি।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন জানিয়েছে, যুক্তরাজ্যের প্রধান মেডিকেল কর্মকর্তার এমন সতর্কতার পর আসন্ন বড়দিনে নতুন করে করোনা সতর্কতা জারি করেছেন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

গত সোমবার যুক্তরাজ্যে নতুন স্ট্রেইনের করোনাভাইরাসের খোঁজ পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক।

দেশটির প্রধান মেডিকেল কর্মকর্তা ক্রিস হুইটি গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘প্রাথমিক তথ্য ও সাউথ ইস্টে দ্রুত সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় ধারণা করা হচ্ছে যে, করোনার নতুন স্ট্রেইন আগেরটির তুলনায় আরও দ্রুত ছড়িয়ে যেতে পারে।’

লন্ডনে করোনার নতুন স্ট্রেইন সম্পর্কে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে তার অনুসন্ধানগুলো জানানো হয়েছে বলেও উল্লেখ করেছেন তিনি।

হুইটি বলেছেন, ‘আমরা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে সতর্ক করে দিয়েছি। তবে নতুন স্ট্রেইনের কারণে মৃত্যু হার বেড়ে যাওয়া কিংবা ভ্যাকসিন ও চিকিত্সা পদ্ধতিতে কোনো প্রভাব পড়ছে কি না এটি নিশ্চিত করার মতো এখনও কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।’

‘এ নিয়ে জরুরি ভিত্তিতে কাজ চলছে,’ বলেও জানিয়েছেন তিনি।

প্রথমদিকে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বড়দিনে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞাগুলো শিথিল করার কথা জানিয়েছিলেন। বড়দিনে পাঁচ দিনের জন্য বাড়িতে সর্বোচ্চ তিন পরিবারের সদস্যদের অতিথি হিসেবে আমন্ত্রণ জানানো যাবে বলেও জানিয়েছিলেন তিনি।

তবে করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় সমালোচনার মুখে নতুন করে করোনার বিধিনিষেধ ঘোষণা দিয়েছেন বরিস জনসন।

বলেছেন, ‘ভাইরাসটি এখন খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। আমি খুবই দুঃখের সঙ্গে বলছি যে, আমরা এখন আগের পরিকল্পনা অনুযায়ী বড়দিন পালন করতে পারবো না।’

তাৎক্ষণিকভাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, ‘সংক্রমণ বাড়ছে। এটি করোনার নতুন স্ট্রেইনের কারণে হচ্ছে। এটি আরও সহজে ছড়িয়ে পড়েছে। নতুন স্ট্রেইন আগের স্ট্রেইনের চেয়ে ৭০ শতাংশ বেশি দ্রুত ছড়াতে পারে।’

লন্ডন, দক্ষিণ ও পূর্ব ইংল্যান্ডের বৃহৎ অংশ যেখানে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে সেখানে লকডাউনের মতোই চার ধাপের নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দিয়েছেন বরিস জনসন।

তিনি আরও বলেছেন, ‘কঠোর বিধিনিষেধের অধীনে চার ধাপের নিষেধাজ্ঞা জারি থাকবে। বড়দিনে বাড়ির ভেতরে জমায়েত করা যাবে না।’

স্কটল্যান্ড ও ওয়েলস কম বিধিনিষেধের অধীনে থাকায় কেবল সেসব অঞ্চলেই বড়দিনে সীমিত আকারে জমায়েতের অনুমতি দেওয়া হবে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

তবে দেশটিতে সংক্রমণ বাড়তে থাকায় স্কটল্যান্ড ও ওয়েলসের নেতারা তাদের অঞ্চলে আরও কঠোর নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দিয়েছেন। বড়দিনে সব ধরনের জমায়েত নিষিদ্ধ করে সেখানে সর্বোচ্চ বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছে।

জনস হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, এ পর্যন্ত যুক্তরাজ্যে মোট করোনা শনাক্ত হয়েছেন ২০ লাখ ১০ হাজার ৭৭ জন এবং মারা গেছেন ৬৭ হাজার ১৭৭ জন।

Comments

The Daily Star  | English

Dhaka air: A winter hazard

Almost every morning this past winter, media outlets reported on Dhaka’s air quality. Of the first 53 days of the year, Dhaka had the worst air quality in the world on 19 days.

9m ago