আন্তর্জাতিক

অভিশংসন বিচারের আগে ট্রাম্পের ৫ আইনজীবীর পদত্যাগ

সিনেটে ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিশংসন বিচারের বাকি রয়েছে দুই সপ্তাহের কম সময়। এমন পরিস্থিতিতে তার পক্ষের প্রধান আইনজীবীসহ পাঁচ আইনজীবী পদত্যাগ করেছেন।
Trump.jpg
ডোনাল্ড ট্রাম্প। ছবি: রয়টার্স ফাইল ফটো

সিনেটে ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিশংসন বিচারের বাকি রয়েছে দুই সপ্তাহের কম সময়। এমন পরিস্থিতিতে তার পক্ষের প্রধান আইনজীবীসহ পাঁচ আইনজীবী পদত্যাগ করেছেন।

ঘনিষ্ঠ সূত্রের বরাত দিয়ে আজ রোববার মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন এ তথ্য জানিয়েছে।

ট্রাম্পের দ্বিতীয় অভিশংসনের আগে এ ঘটনাটিকে ‘নাটকীয়’ বলে সিএনএন’র সংবাদ প্রতিবেদনে মন্তব্য করা হয়েছে।

ট্রাম্প সিনেটে তার পক্ষে লড়াইয়ের জন্যে আইনজীবী পেতে হিমশিম খাচ্ছেন উল্লেখ করে সংবাদ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সাবেক প্রেসিডেন্ট এখনো তার ‘নির্বাচনে কারচুপি’র অভিযোগটি আঁকড়ে রয়েছেন।

সূত্র সংবাদমাধ্যমটিকে জানিয়েছে, ট্রাম্পের আইনি দলের দুই প্রধান আইনজীবী বুচ বোয়ারস ও ডেবোরাহ বারবিয়ার স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেছেন। তারা দুজনেই দক্ষিণ ক্যারোলিনার আইনজীবী। তাদের মধ্যে বুচ বোয়ারস প্রধান আইনজীবী হিসেবে ট্রাম্পের পক্ষে লড়াইয়ের জন্যে আইনজীবীদের টিম গড়ে তুলেছিলেন। তিনি জর্জ বুশের আমলে বিচার বিভাগে কাজ করতেন বলেও প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়েছে, সম্প্রতি ট্রাম্পের আইনজীবীদের সঙ্গে যোগ দেওয়া উত্তর ক্যারোলিনার জোশ ওয়ার্ডও দল ছেড়েছেন। এছাড়াও, আর যারা পদত্যাগ করেছেন তারা হলেন, দক্ষিণ ক্যারোলিনার আইনজীবী জনি প্যাসার ও গ্রেগ হ্যারিস।

সূত্র সংবাদমাধ্যমটিকে জানিয়েছে, ট্রাম্প চাচ্ছিলেন তার আইনজীবীরা মূলত নির্বাচনে ‘কারচুপি’র বিষয়টি সিনেটে তুলে ধরবেন। তবে তাদের সঙ্গে এ নিয়ে কোনো চুক্তি হয়নি এবং তাদেরকে অগ্রিম অর্থও দেওয়া হয়নি।

এ বিষয়ে সিএনএন আইনজীবীদের কোনো মন্তব্য নিতে পারেনি বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারণা দলের সাবেক উপদেষ্টা জ্যাসন মিলার সিএনএন’কে বলেছেন, ‘ডেমোক্রেকরা যে প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে অভিশংসন নিয়ে কাজ করছেন তিনি তো ক্ষমতায় নেই। এটি খুবই অসাংবিধানিক ও দেশের জন্যে ক্ষতিকর।’

‘দেখেছেন তো, ৪৫ সিনেটর ইতোমধ্যে একে অসাংবিধানিক বলে মন্তব্য করেছেন’ উল্লেখ করে তিনি আরও বলেছেন, ‘আমরা বিষয়টি নিয়ে অনেক কাজ করেছি। এ বিষয়ে আমাদের আইনজীবীদের তালিকা অল্প সময়ের মধ্যে চূড়ান্ত করা হবে।’

Comments

The Daily Star  | English