চিম্বুক পাহাড়ে হোটেল-বিনোদনকেন্দ্র নির্মাণে ম্রোদের লংমার্চ-বিক্ষোভ

বান্দরবানের চিম্বুক পাহাড়ে পাঁচতারকা হোটেল ও বিনোদনকেন্দ্র নির্মাণের প্রতিবাদে লংমার্চ করেছেন ম্রো সম্প্রদায়ের সদস্যরা। গতকাল রোববার চিম্বুক পাহাড়ের রামরিপাড়া থেকে হাজারো ম্রো নারী-পুরুষ পদযাত্রা করে বান্দরবান জেলা শহরে এসে সমাবেশ করেন।
Mro.jpg
বান্দরবানের চিম্বুক পাহাড়ে পাঁচতারকা হোটেল ও বিনোদনকেন্দ্র নির্মাণের প্রতিবাদে গত রবিবার লংমার্চ করেন ম্রো সম্প্রদায়ের সদস্যরা। ছবি: সংগৃহীত

বান্দরবানের চিম্বুক পাহাড়ে পাঁচতারকা হোটেল ও বিনোদনকেন্দ্র নির্মাণের প্রতিবাদে লংমার্চ করেছেন ম্রো সম্প্রদায়ের সদস্যরা। গতকাল রোববার চিম্বুক পাহাড়ের রামরিপাড়া থেকে হাজারো ম্রো নারী-পুরুষ পদযাত্রা করে বান্দরবান জেলা শহরে এসে সমাবেশ করেন।

এসময় তারা পাঁচটি দাবি উত্থাপন করেন। সেগুলো হলো- চিম্বুকের নাইতং পাহাড়ের পাঁচতারকা হোটেল ও বিনোদনকেন্দ্র স্থাপনের প্রকল্প বাতিল করতে হবে। অবৈধভাবে ভূমি দখলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদকারী স্থানীয় পাড়াবাসী, জনপ্রতিনিধি, ছাত্র জনতাকে হয়রানি ও হুমকি প্রদান করা বন্ধ করতে হবে। চিম্বুকের ম্রোদের বংশপরম্পরায় ভোগদখলীয় ভূমিতে কোনো ধরনের পর্যটন বা বিনোদনকেন্দ্র স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকতে হবে। স্থানীয় মানুষের ভূমি দখল করে পর্যটনকেন্দ্র সম্প্রসারণ উদ্যোগ কোনোভাবেই গ্রহণ করা যাবে না। যে উদ্দেশ্যেই চিম্বুক পাহাড়ের ভূমি ব্যবহার করা হোক না কেন, তা স্থানীয় কারবারি, হেডম্যান, জনপ্রতিনিধি ছাড়াও চিম্বুক পাহাড়ের সব পাড়াবাসীকে অন্তর্ভুক্ত করে আলোচনা করতে হবে।

এক বিজ্ঞপ্তিতে চিম্বুক পাহাড়বাসীরা জানান, ম্রোদের ভূমি বেদখল করে চিম্বুকের নাইতং পাহাড়ে সিকদার গ্রুপ (আর অ্যান্ড আর হোল্ডিংস)  ‘ম্যারিয়ট হোটেল অ্যান্ড রিসোর্টস’ নামে একটি পাঁচতারকা হোটেল ও বিনোদনকেন্দ্র নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে। এর ফলে আমাদের আনুমানিক এক হাজার একর ভোগদখলীয় ও চাষের জমি বেদখল হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এতে আমাদের ছয়টি পাড়া সরাসরি উচ্ছেদের মুখে পড়বে এবং ১১৬টি পাড়ার আনুমানিক ১০ হাজার বাসিন্দার ঐতিহ্যবাহী জীবিকা, চাষের ভূমি, ফলজ বাগান, পবিত্র জায়গা, শ্মশান ঘাট ও পানির উৎসগুলো ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। সংরক্ষিত পাড়াবন ও জীববৈচিত্র্য ধ্বংস হবে। এই জবরদস্তি ভূমি বেদখলের প্রতিবাদে ও নিজেদের বংশ পরম্পরায় আবাসকৃত ভূমিতে স্ব স্ব জীবন ব্যবস্থা, কৃষ্টি ও সংস্কৃতি নিয়ে বেঁচে থাকার অধিকারের দাবিতে আমরা গত বছরের ৭ অক্টোবর জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর একটি স্মারকলিপি প্রদান করেছি। ৮ নভেম্বর চিম্বুক পাহাড়ে কালচারাল শোডাউনের মাধ্যমে প্রতিবাদ করেছি। এ-সত্ত্বেও হোটেল নির্মাণ কার্যক্রম অব্যাহত থাকায় গত ১১ ডিসেম্বর চিম্বুক পাহাড়বাসী চিম্বুকস্থ কাপ্রু পাড়ায় এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এই বেআইনি কার্যক্রমের বিরুদ্ধে দেশের সব প্রান্তের প্রগতিশীল নাগরিকবৃন্দ, সচেতন ছাত্রসমাজসহ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন প্রতিবাদ জানিয়েছেন। এই প্রকল্প বাতিল করা ও চিম্বুকবাসীর জীবন-জীবিকা রক্ষার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করাসহ ছয়টি দাবি জানিয়ে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন ও ১০৬ জন খ্যাতনামা ব্যক্তি, জাতিসংঘের বিশেষজ্ঞ, মানবাধিকার কর্মী, অধ্যাপক, আইনবিদ, পরিবেশবিদ, ও নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিদের সমর্থন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী ও পার্বত্য মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীকে চিঠি লিখেছে। গত বছর ১২ ডিসেম্বর দেশের বিশিষ্ট নাগরিকবৃন্দ ও ভুক্তভোগী স্থানীয় মানুষ অনলাইনে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই হোটেল নির্মাণ বন্ধের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন। দেশের ৬২ জন বিশিষ্ট নাগরিক ১৬ ডিসেম্বর ম্রো ভূমিতে বিনোদনকেন্দ্র নির্মাণ বাতিলের দাবিতে বিবৃতি দিয়েছেন। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এই ঘটনার নিন্দা জানিয়ে এবং এই প্রকল্প বাতিলের আহ্বান জানিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীকে গত ২২ ডিসেম্বর চিঠি দিয়েছেন। এখনও অবধি দেশের বিভিন্ন প্রগতিশীল সংগঠন, ছাত্রসমাজ, ও নাগরিকবৃন্দ প্রতিবাদ জানানো অব্যাহত রেখেছেন। কিন্তু নাইতং পাহাড়ের ভূমি বেআইনিভাবে দখলে নিতে প্রশাসনকে তৎপর থাকতে দেখা যাচ্ছে এবং নানা হয়রানিসহ ভূমি হয়রানিসহ ভূমি ছেড়ে দেওয়ার জন্য বিভিন্নভাবে চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছে।

এর আগেও, উন্নয়ন ও বিভিন্ন অজুহাতে সুয়ালত ইউনিয়ন, লামা, ও নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় ম্রোসহ বিভিন্ন পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর মানুষেরা একাধিকবার উচ্ছেদের শিকার হয়েছেন। হোটেল নির্মাণের জন্য চিহ্নিত এলাকায় স্থানীয় মানুষের প্রবেশ নিষিদ্ধ রাখা হয়েছে। গত ৫ ও ৬ জানুয়ারি প্রতি বছরের মতো ওই স্থানে পাহাড়ে ফুল-ঝাড় কাটতে গেলে তাদেরতে বাঁধা প্রদানসহ নানাভাবে লাঞ্ছিত করা হয়।  হুমকি দেওয়া হয়।

এতে আরও বলা হয়, বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সংবাদ সম্মেলনে স্বীকার করেছেন যে, বর্তমানে হোটেল নির্মাণাধীন ভূমি জেলা পরিষদের নামে বন্দোবস্তকৃত নয়। কিন্তু তৎসত্ত্বেও জেলা পরিষদ কর্তৃক আর অ্যান্ড আর হোল্ডিংসের কাছে ভূমি ইজারা দেওয়ার বিষয়টিকে আমরা ক্ষমতার অপব্যবহার ও আইনের চূড়ান্ত বরখেলাপ বলে মনে করি।

এমতাবস্থায় চিম্বুকের নাইতং পাহাড়ে ম্রো ভূমি বেদখল করে পাঁচতারকা হোটেল ও বিনোদনকেন্দ্র নির্মাণের বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ জানিয়ে গতকালের লংমার্চ ও বিক্ষোভ সমাবেশ করা হয় বলে জানানো হয়েছে।

Comments

The Daily Star  | English

Dozens injured in midnight mayhem at JU

Police fire tear gas, pellets at quota reform protesters after BCL attack on sit-in; journalists, teacher among ‘critically injured’

3h ago