বোলার নয় তামিমের কাঠগড়ায় উইকেট

মিরপুর টেস্টের শুরু থেকেই ধারহীন এলোমেলো বোলিং করেছেন বাংলাদেশের বোলাররা। নিজেদের শক্তির জায়গা ভুলে প্রতিপক্ষকে নানা সুযোগ দিয়েছেন। আর সে সুযোগ লুফে নিয়ে রানের গতি নিয়মিত সচল রেখেছিল ক্যারিবিয়ানরা। শেষ পর্যন্ত বড় সংগ্রহই করলেন। আর এমনটা বোলারদের এলোমেলো বোলিংয়ের কারণে নয়, উইকেট প্রত্যাশামতো আচরণ করেনি বলেই হয়েছে বলে জানালেন বাংলাদেশ দলের ওপেনিং ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল খান।
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

মিরপুর টেস্টের শুরু থেকেই ধারহীন এলোমেলো বোলিং করেছেন বাংলাদেশের বোলাররা। নিজেদের শক্তির জায়গা ভুলে প্রতিপক্ষকে দিয়েছেন নানা সুযোগ। আর তার সদ্ব্যবহার করে রানের গতি নিয়মিত সচল রেখেছিল ক্যারিবিয়ানরা। সংগ্রহটাও হয় বড়। এমনটা বোলারদের এলোমেলো বোলিংয়ের কারণে নয়, উইকেট প্রত্যাশামতো আচরণ করেনি বলেই হয়েছে বলে জানালেন বাংলাদেশ দলের ওপেনিং ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল খান।

আবু জায়েদ রাহীকে দিয়ে এদিন বোলিংয়ের শুরু করে বাংলাদেশ। সুইং তুলে নেওয়াই তার মূল শক্তির জায়গা। কিন্তু লেংথ ও শর্ট অব লেংথ ডেলিভারি করে গেছেন তিনি। ফুল লেংথের বল যা ছিল তা লেগ স্টাম্পে। তাতে প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের কাজটা আরও সহজ হয়েছে। রান তুলেছেন স্বাচ্ছন্দ্যেই। নাঈম ইসলাম অনেক শর্ট বল দিয়েছেন। আলগা বল দিয়েছেন নিয়মিত। শেষ দিকে তাইজুল ছন্দ পেলেও শুরু থেকেই ছিলেন নির্বিষ। মেহেদী হাসান মিরাজ শুরুর দিকে কিছুটা নিয়ন্ত্রণে থাকলেও পরে এলোমেলো বল করেন।

কিন্তু বাংলাদেশ দল বোলারদের সামর্থ্য নয়, তাকিয়ে ছিল উইকেটের কাছ থেকে সমর্থনের আশায়। অন্তত তামিম বললেন এমনটাই, 'দেখেন যে পরিকল্পনাটা ছিল সেটাতো যে উইকেট দেখছি সেটার ছিল না। যখন ঘরের মাঠে কোন দল তিন স্পিনার নেয় তখন এটা রকেট সায়েন্স না, আপনার বুঝতেই পারেন আমরা আরও বেশি স্পিন ধরবে এমন উইকেট প্রত্যাশা করি। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে এটা স্পিন উইকেট হয়নি, যে কারণেই হোক না কেন।'

'আমরা সঠিক পরিকল্পনা সেট করে এগিয়েছিলাম, এখন উইকেট স্পিনারদের সাহায্য না করায় এটা নিয়ে অনেক কথা হতে পারে। তবে এগিয়ে যেতে হবে। আপনি জানেন যে বাংলাদেশ, আমরা জিতেছিলাম দুইটা বড় দলের সঙ্গে এমনকি এই ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গেই। শেষ যখন জিতেছি তখনও একই কম্বিনেশনে সফল হয়েছি। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে উইকেট স্পিনারদের সাহায্য করেনি (এই ম্যাচে), দেখা যাক কি হয়।' -যোগ করেন তামিম।

প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের কৃতিত্ব দিয়েছেন তামিম, 'উইকেট খুব ভালো ছিল, আমাদের স্পিনারদের একদমই সাহায্য করেনি। এছাড়া তারা বেশ ভালো ব্যাটিংও করেছে। সবকিছু আমাদের ভুলের কারণে এমন নয়, কিছু ক্রেডিট তাদেরও দিতে হবে। তারা অসাধারণ ব্যাটিং করেছে। জোসেফ নেমে খুব ভালো খেলেছে। সে ৭০ এর বেশি রান করেছে, উইকেটরক্ষক ভাল খেলেছে। আমরা অবশ্যই কিছু না কিছু ভুল করেছি, তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজকেও ক্রেডিট দিতে হবে।'

তবে বছর তিনেক আগে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টেস্ট জয়ের পর দ্বিতীয় টেস্টে হেরেছিল বাংলাদেশ। অতি টার্নিং উইকেটে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ১৫৭ রানে গুটিয়ে গিয়েছিল টাইগাররা। পরে সংবাদ সম্মেলনে উইকেটের বেজায় সমালোচনা করেছিলেন তামিম। দেশের ঘরোয়া ক্রিকেটেও এমন টার্নিং উইকেটে খেলেন না দাবী করেছিলেন। এরপরও দেশের চিত্র বদলায়নি। কিন্তু উইন্ডিজের বিপক্ষে সেই টার্নিং উইকেটের তুলে আনলেন এ ওপেনার।

Comments

The Daily Star  | English

Heatwaves in April getting longer

Mild to moderate heatwaves, 36 to 40 degrees Celsius, in the month of April have gotten longer over the years, according to a research.

1h ago