শাহবাগে মশাল মিছিল থেকে গ্রেপ্তার ৭ জনের জামিন নামঞ্জুর

কারাবন্দি অবস্থায় লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর প্রতিবাদে রাজধানীর শাহবাগ এলাকায় মশাল মিছিল থেকে গ্রেপ্তার সাত জনের জামিন নামঞ্জুর করেছেন আদালত। আজ বুধবার দুপুরে মহানগর হাকিম আবু সাঈদ জামিন নামঞ্জুর করে আদেশ দেন।
Shahbag.jpg
কারাবন্দি লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় প্রতিবাদকারীদের ওপর লাঠিচার্জ করেছে পুলিশ। ছবি: স্টার
কারাবন্দি অবস্থায় লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর প্রতিবাদে রাজধানীর শাহবাগ এলাকায় মশাল মিছিল থেকে গ্রেপ্তার সাত জনের জামিন নামঞ্জুর করেছেন আদালত। আজ বুধবার দুপুরে মহানগর হাকিম আবু সাঈদ জামিন নামঞ্জুর করে আদেশ দেন।
 
কারাগারে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর প্রতিবাদে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় বাম ছাত্র সংগঠনগুলো মশাল মিছিল বের করে। সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা জানান, মিছিলটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্য থেকে শুরু করে শাহবাগ এলে পুলিশ তাদের ওপর লাঠিচার্জ করে। এতে অন্তত ১৫ জন মিছিলকারী আহত হন।
 
এর এক দিন পর ২৭ ফেব্রুয়ারি সকালে শাহবাগ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মিন্টু মিয়া বাদী হয়ে দণ্ডবিধির ১৪৩, ১৪৭, ১৪৯, ১৮৬, ৩৩২, ৩৩৩, ৩৫৩, ৩০৭, ৪২৭ ও ১০৯ ধারায় মামলাটি দায়ের করেন।
 
এজাহারে উল্লেখ করা হয়, লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে গতকাল সন্ধ্যায় মো. তামজিদ হায়দার (২২), নজির আামির চৌধুরী জয় (২৭), এ এস এম তানজিমুর রহমান (২২), মো. আকিফ আহম্মেদ (২২), মো. আরাফাত সাদ (২৪), নাফিজা জান্নাত (২৪) ও জয়তী চক্রবর্তীর (২৩) নেতৃত্বে এক থেকে দেড় শ উগ্র দুষ্কৃতিকারী মশাল মিছিল নিয়ে ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি করে রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি থেকে শাহবাগ মোড়ের উদ্দেশে রওনা হয়।
 
পুলিশ তাদের ফিরে যাওয়ার অনুরোধ জানালে মিছিলকারীরা মশাল দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা করে এবং ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এ সময় পুলিশ সদস্য আলামিনের বুলেট প্রুফ জ্যাকেটে আগুন ধরে যায়। এ ছাড়া, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আরিফুর রহমান সরদার, উপপরিদর্শক (এসআই) রোকন উদ্দিন, নিশাত, তোহা ইসলাম, দেলোয়ার, ফরহাদ, হাসানা, শিপন, মো. নুরুজ্জামান, পুষ্প তাজ আহত হন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিতে পুলিশ তিন রাউন্ড গ্যাসশেল নিক্ষেপ করে। ঘটনাস্থল থেকে সাত জনকে আটক করা হয়।
 
আরও পড়ুন

Comments

The Daily Star  | English
Personal data up for sale online!

Personal data up for sale online!

Some government employees are selling citizens’ NID card and phone call details through hundreds of Facebook, Telegram, and WhatsApp groups, the National Telecommunication Monitoring Centre has found.

13h ago